ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭, ০৬ সফর ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বিশ্বের ঐতিহাসিক যে ছয়টি মসজিদ গির্জায় রূপান্তরিত!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২০, ৮:৫৯ পিএম

বিভিন্ন সময়ে বিশ্বের ঐতিহাসিক ছয়টি মসজিদ গির্জায় রূপান্তরিত হয়েছে। কারণ, ইতিহাসের কালপরিক্রমায় বিধর্মী শত্রু দ্বারা মুসলিম উম্মাহ নানারকম জুলুম-অত্যাচারের সম্মুখীন হয়েছে। মসজিদ থেকে গির্জায় রূপান্তরিত হওয়া ঐতিহাসিক ছয়টি মসজিদ নিয়ে তৈরি হয়েছে এই প্রতিবেদন।-ডেইলি মেইল, টুডে নিউজ, টাইম নিউজ

১. মসজিদ কসরুল হামরা, স্পেন: খৃষ্টীয় দশম শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধে বাদশাহ আবু আবদুল্লাহ মুহাম্মদ বিন আল-আহমার ঐতিহাসিক এই মসজিদটি নির্মাণ করেন। সেই যুগে এটিকে বিশ্বের অন্যতম নান্দনিক ধর্মীয় স্থাপনা হিসেবে ধরা হতো। ১২৩৬ সালে আন্দালুসিয়ার পতনের সময় বিধর্মীরা মসজিদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি করে। পরবর্তীতে এটিকে তারা ‘সেন্ট মেরি’ গির্জায় রূপান্তর করে। স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদের দক্ষিণাঞ্চলে আজও মসজিদ কসরুল হামরা গির্জারূপে ভারাক্রান্ত মনে দাঁড়িয়ে আছে।

২. কর্ডোভা গ্র‍্যান্ড মসজিদ, স্পেন: ইতিহাসের বহুল আলোচিত এই মসজিদটির নির্মাতাও বাদশাহ আবু আবদুল্লাহ মুহাম্মদ বিন আল-আহমার। ৭৫৪ সালে এটি নির্মাণ করেন তিনি। কর্ডোভায় অবস্থিত মুসলমানদের ঐতিহাসিক এই স্মৃতি-স্থাপনা ৯৮৭ খৃষ্টাব্দে মুসল্লিদের জন্য উন্মুক্ত করেন আমির তৃতীয় আব্দুর রহমান। আন্দালুসিয়ার পতনের পরে এটিকেও গির্জা বানিয়ে ফেলা হয়। নাম দেয়া হয়, ‘ভার্জিন মেরি’।

৩. সেভিল গ্র‍্যান্ড মসজিদ: মসজিদটি ১১৮২ সালে খলিফা আবু ইউসুফ ইয়াকুবের শাসনামলে নির্মিত হয়েছে। অতঃপর রাজা দ্বিতীয় ফার্নান্ডোর হাতে সেভিলের পতন হয় এবং তিনি মসজিদটিকে গির্জায় রূপান্তরের আদেশ দেন।

৪. মসজিদ বাবুল মারদুম, স্পেন: স্পেনের টলেডোতে অবস্থিত এই মসজিদের নির্মাণকাজ সমাপ্ত হয় ৯৯৯ সালে। অতঃপর ১০৮৫ সালে শহরটি মুসলমানদের হাতছাড়া হলে এটিকে ‘লাইট অব ক্রাইস্ট’ নাম দিয়ে গির্জায় রূপান্তর করেন ষষ্ঠ আলফানসো। এখন একসময়ের মসজিদ বাবুল মারদুমকে ঘিরে স্পেনের আকর্ষণীয় একটি পর্যটনস্থল তৈরি হয়েছে।

৫. মসজিদ আমর ইবনুল আস, মিসর: এটি মিসরের দ্বিতীয় বৃহত্তম মসজিদ। ৬৪২ সালে দামিয়াত নগরী জয় করার পর মিসরীয় মুসলমানরা মসজিদটি নির্মাণ করেন। পরবর্তীতে জেরুজালেমের তৎকালীন শাসক জ্যান ডি ব্রায়ান মুসলমানদের থেকে দামিয়াত দখল করে নেন ও ‘মসজিদ আমর ইবনুল আস’কে গির্জায় রূপান্তর করেন। তবে ১২২১ সালে ক্রুশেডাররা যখন মিসর ত্যাগ করে তখন আবার এটিকে মসজিদের রূপে ফিরিয়ে আনা হয়।

৬. কিশতাওয়াহ মসজিদ, আলজেরিয়া: ১৭৯২ সালে উসমানী শাসনামলে আলজেরীয় মুসলমানগণ এটি নির্মাণ করেন। অতঃপর ফরাসিরা আলজেরিয়ায় উপনিবেশ প্রতিষ্ঠার পরে তাদের নেতা ডিউক ডি রোভিগো মসজিদটিকে গির্জা বানিয়ে ফেলেন। তারপর ১৯৬২ সালে স্বাধীনতা ফিরে পেলে আলজেরিয়ার মুসলমানগণ আবার এটিকে মসজিদে রূপান্তর করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (6)
Md. Kamal Hossain ২৪ জুলাই, ২০২০, ৯:১৩ পিএম says : 0
মুসলীমগণ যতদিন ঐক্যহীন থাকবে তাদের উপর জুলুম ও নির্যাতন ততই বারতে থাকবে
Total Reply(0)
Md. Kamal Hossain ২৪ জুলাই, ২০২০, ৯:১৩ পিএম says : 0
মুসলীমগণ যতদিন ঐক্যহীন থাকবে তাদের উপর জুলুম ও নির্যাতন ততই বারতে থাকবে
Total Reply(0)
যোবায়ের ২৪ জুলাই, ২০২০, ১০:৩৭ পিএম says : 0
নিন্দা জানাই
Total Reply(0)
তানজিল আহমেদ ২৫ জুলাই, ২০২০, ৯:৩৬ পিএম says : 0
সব মুসলিম উম্মাহ এক হও । ইহুদিদের পা চাটা বা গুলামি ছাড়তে হবে।
Total Reply(0)
তানজিল আহমেদ ২৫ জুলাই, ২০২০, ৯:৩৬ পিএম says : 0
সব মুসলিম উম্মাহ এক হও । ইহুদিদের পা চাটা বা গুলামি ছাড়তে হবে।
Total Reply(0)
Mustafizur Rahman Ansari ২৬ আগস্ট, ২০২০, ১২:৩৫ এএম says : 0
Yes,Mohammad Kamal Hossain,Jobaer and Tanjl Ahmed absolutely Right said.Thanks All.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন