ঢাকা রোববার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২ আশ্বিন ১৪২৭, ০৯ সফর ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বাউফলে আ’লীগের দুই কর্মী হত্যার ঘটনায় ৫৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বাউফল (পটুয়াখালী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৪ আগস্ট, ২০২০, ৬:৪৮ পিএম

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় গত রবিবার (২ আগষ্ট) কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের অভ্যন্তরীন কোন্দলে এমপি সমর্থিত দুই গ্রুপের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এ ঘটনায় যুবলীগ নেতা রাকিব উদ্দিন রোমান (৩৪) ও ছাত্রলীগ নেতা ইশাত তালুকদার (২৪) নিহত হয়। এ ঘটনায় আজ মঙ্গলবার বিকালে যুবলীগ নেতা রাকিব উদ্দিন রোমানের বড় ভাই মফিজ উদ্দিন মিন্টু বাদি হয়ে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কেশবপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভলুকে প্রধান আসামি করে ৫৯জনের নাম উল্ল্যেখসহ অজ্ঞাত ১৫ থেকে ১৬ জনের বিরুদ্ধে বাউফল থানায় মামলা করেন।
পুলিশ এ ঘটনায় মঙ্গলবার পর্যন্ত ১১জনকে গ্রেপ্তার করেছে।
সুত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সাংসদ সাবেক চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ সমর্থিত উপজেলার কেশবপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সালাউদ্দিন পিকু ও সাধারন সম্পাদক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন লাভলুর মধ্যে স্থানীয় প্রভাব বিস্তার নিয়ে দির্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। শুক্রবার (৩১ জুলাই) দুপুর বারোটার দিকে পূর্ব বিরোধের জের ধরে সাধারন সম্পাদক সমর্থিত যুবলীগ নেতা রফিকুলকে বেধরক মারধর করে সভাপতি সমর্থিত ইউপি সদস্য যুবলীগ নেতা সুজন তালুকদার ও তার কর্মীরা। আহত অবস্থায় যুবলীগ নেতা রফিকুলকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এর জেরে ওই দিনই রফিকুলের অনুসারীরা দুপুর দুইটার দিকে সভাপতি সমর্থিত কর্মীদের উপর হামলা করে। এ ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা বশির ও ইব্রাহিমকে আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।
হাসপাতাল থেকে সুস্থ্য হয়ে রবিবার (২ আগষ্ট) সন্ধায় সভাপতি সমর্থিত যুবলীগ নেতা রফিকুল কেশবপুর বাজারে গেলে যুবলীগ কর্মী রাকিব উদ্দিন রোমান ও ইশাত তালুকদাদের সাথে বিরোধে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয় পক্ষ লাঠিসোটা ও দেশিও অস্ত্র নিয়ে সংঘাতে জড়িয়ে পড়লে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি সালাউদ্দিন পিকুর আপন ভাই যুবলীগ নেতা রাকিব উদ্দিন রোমান ও চাচাতো ভাই ইশাত তালুকদার গুরুতর আহত হয়। পরে তাদেরকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসার সময় ইশাত মারা যায় ও রাকিবকে হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসারত অবস্থায় কিছুক্ষন পড়েই তার মৃত্যু হয়।
বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, এ হত্যা ঘটনায় কেশবপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মহিউদ্দিন লাভলুকে প্রধান আসামী করে ৫৯ জনের নাম উল্ল্যেখ ও ১৫-১৬ জন অজ্ঞাত মামলা করেন। মামলা নং-৫। বাকী আসামীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন