ঢাকা শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ০৮ সফর ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

পানিতে ডুবে মৃত্যু ১১

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ আগস্ট, ২০২০, ১২:০২ এএম

দেশের বিভিন্ন স্থানে গত ২৪ ঘণ্টায় পানিতে ডুবে ১১ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। এদের মধ্যে কুষ্টিয়ায় পানিতে ডুবে মা- ছেলেসহ তিনজন, কুড়িগ্রাম ও পাবনায় ২, টাঙ্গাইল, নওগাঁ, পঞ্চগড় ও মুন্সিগঞ্জে একজন করে। আমাদের সংবাদদাতাদের পাঠানো তথ্যে বিস্তারিত
কুড়িগ্রাম : কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে পুকুরের পানিতে ডুবে নিলয় চন্দ্র নামের (৭) বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বিকাল সাড়ে ৫ টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের কুটিচন্দ্রখানা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। মৃত শিশু নিলয় চন্দ্র ওই গ্রামের মিলন চন্দ্রের ছেলে।

পরিবার ও এলাকাবাসী স‚ত্রে জানা গেছে, বিকালে বাড়ীর উঠানে খেলতে খেলতে এক পর্যায়ে বাড়ির পাশের পুকুরের পানিতে গিয়ে ডুবে যায়। পরে পরিবারের লোকজন ও স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে দ্রæত ফুলবাড়ী হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই শিশুকে মৃত ঘোষণা করেন।
পাবনা (ঈশ্বরদী) : পাবনা সদর উপজেলায় পুকুরে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে খালাতো দুই বোনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুরের দিকে উপজেলার সাতমাইল বিএমবি ইটভাটার পুকুরে এ ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলো- ঈশ্বরদী উপজেলার চরগড়গড়ি গ্রামের ওহেদ শেখের মেয়ে জিম খাতুন (১২) ও একই উপজেলার বাঁশেরবাদা গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে সুমাইয়া খাতুন (১৩)। জিম পঞ্চম শ্রেণীতে ও সুমাইয়া ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ছিল। তারা সর্ম্পকে আপন খালাতো বোন।

ঈশ্বরদীর সাঁহাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মতলেবুর রহমান মিনহাজ ফকির জানান, সাতমাইলে তার নানা চাঁদু শেখের বাড়িতে পরিবারের সঙ্গে বেড়াতে আসে জিম ও সুমাইয়া। দুপুরের দিকে নানা বাড়ির পাশে অবস্থিত বিএমবি ইটভাটার ওই পুকুরে গোসল করতে নেমে তারা পানিতে ডুবে যায়। এদিকে বাড়ির লোকজন তাদের না দেখে খোঁজাখুঁজি শুরু করে। এক পর্যায়ে ওই পুকুর থেকে ভাসমান অবস্থায় দুই বোনকে উদ্ধার করে পাবনা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দু’জনকেই মৃত বলে ঘোষণা করেন।
কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পৃথক ঘটনায় পানিতে ডুবে মা-ছেলেসহ তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার বেলা তিনিটার দিকে উপজেলার রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের সোনাতলা সাহেবনগর এলাকায় বন্যার পানিতে ডিঙি নৌকা ডুবে মা সেলিনা খাতুন (৩০) ও ছেলে সিয়ামের (১১) মৃত্যু হয়েছে। বেলা ১১টার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউনিয়নের পাকুড়িয়া গ্রামে পুকুরের পানিতে ডুবে তামান্না নামের ১০ বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজ মন্ডল জানান, ছোট ডিঙি নৌকায় চড়ে চারজন পদ্মার চরের তালতলা ঘাট থেকে সোনাতলা সাহেবনগর যাচ্ছিল। পথে মহাবুল বিশ্বাসের বাগানের কাছে ডিঙি নৌকাটি উল্টে ডুবে যায়। এ সময় সেলিনার বাবা রসুল মন্ডল (৬২) ও সেলিনার ছোট ছেলে সাগর (৯) সাঁতরিয়ে কিনারে উঠলেও পানিতে ডুবে মারা যান সেলিনা ও আরেক ছেলে সিয়াম। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের লাশ উদ্ধার করেন। পদ্মা নদীতে বন্যার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ফলে চরাঞ্চলের মানুষের যোগাযোগের মাধ্যম এখন ডিঙি নৌকা।

অপরদিকে পুকুরের পানিতে ডুবে মারা যাওয়া তামান্না আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের ধর্মদহ গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে এবং ধর্মদহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। স্থানীয়রা জানান, তামান্না পাকুড়িয়া গ্রামে নানা হানিফের বাড়িতে বেড়াতে এসে বাড়ির পাশে পুকুরে গোলস করতে নামে। সাঁতার না জানার কারণে তামান্না ডুবে যায়। পরে স্থানীয়রা তার লাশ উদ্ধার করেন।

নওগাঁ : নওগাঁর মান্দায় নৌকা বাইচ খেলা দেখতে যাওয়ার পথে ঝড়ের কবলে পড়ে নৌকা ডুবে দুই সহোদরের মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার বিকেলে উপজেলার নুরুল্লাবাদ ইউনিয়নের ইউনিয়নের চককসবা বিলে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে।
নিহতের একজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তবে অপর জনের লাশ উদ্ধারে ঘটনাস্থলে মান্দা ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট উদ্ধার কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। নিহতরা হলেন, উপজেলার চকদেবিরাম গ্রামের মৃত শরফতুল্লার ছেলে আব্দুল মজিদ (৬৫) ও তার ছোট ভাই রইচ উদ্দিন (৫০)।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে বন্ধুদের সাথে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে আল আমিন (২২) নামে এক কলেজ ছাত্রের মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার রাতে উপজেলার উয়ার্শী ইউনিয়নের রোয়াইল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আল আমিন উপজেলার ভাতগ্রামের ইউনিয়নের কুইচতারা গ্রামের আব্দুর রহমান এর ছেলে। সে গত বছর মির্জাপুর সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলো বলে জানা গেছে।

পঞ্চগড় : পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে নদীর পানিতে ডুবে রেহেনা আক্তার (৮) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। রেহেনার বাড়ি দেবীগঞ্জ উপজেলার সোনাহার মল্লিকাদহ ইউনিয়নের নুর বাজার এলাকায়। সে ওই এলাকার আব্দুর রউফের মেয়ে। নিহতের প্রতিবেশিরা জানায়, বুধবার দুপুর থেকে রেহেনার খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। দীর্ঘ সময় মেয়েকে দেখতে না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। কিন্তু তার কোন খোঁজ পায়নি তারা। গতকাল সকালে খড়খড়িয়া ব্রিজের কয়েকশ মিটার সামনে নদীতে তার লাশ ভেসে থাকতে দেখে প্রতিবেশিরা । স্থানীয়দের ধারণা সাঁতার না জানায় খড়খড়িয়া নদীতে পড়ে গিয়ে পানিতে ডুবে তার মৃত্যু হয়েছে।
শ্রীনগর (মুন্সিগঞ্জ) : শ্রীনগরে পানিতে ডুবে ঐশী আক্তার (১০) নামে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। গত বুধবার উপজেলার কুকুটিয়া ইউনিয়নের টুনিয়ামান্দ্রা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ঐশী নারায়াণগঞ্জ এলাকার আবুল হোসেনের কন্যা।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন