ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ জুন ২০২১, ০৪ আষাঢ় ১৪২৮, ০৬ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

নাব্য সঙ্কটে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ

পারাপারের অপেক্ষায় শতশত গাড়ি চরম ভোগান্তিতে যাত্রীরা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

মাত্র চারদিন আগে তীব্র স্রোতের কারণে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ করা হয়। চারদিনের মাথায় একই নৌ-রুটে এবার নাব্য সঙ্কটের কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। ঝুঁকি এড়াতে বিআইডবিøউর চেয়ারম্যান অন্য রুট ব্যবহারের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। শিমুলিয়া-কাঁঠাল বাড়ি নৌ-রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় শত শত যানবাহন পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে। নারী-শিশুসহ হাজার হাজার যাত্রী চরম ভোগান্তিতে পরেছে।

গত ২৯ আগস্ট শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে ফেরি চলাচাল বন্ধ করা হয়। স্রোতের তীব্রতা এতটাই ছিল যে ফেরি চলাচলে যে কোন সময় দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা ছিল। এ ছাড়া পদ্মা সেতুর চলমান কর্মকান্ড ব্যাহত ও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ারও আশঙ্কা ছিল। সেদিন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেছিলেন, অতিরিক্ত স্রোতের মধ্যেও নদীতে পদ্মা সেতুর কাজ চলছে। স্রোতের কারণে ফেরিগুলো চরে গিয়ে আটকে যাচ্ছে। আশঙ্কা করা হচ্ছে রাতে যদি ফেরি চলাচল চালু থাকে তাহলে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। সরকার চায় না খেয়ালিপনার কারণে পদ্মা সেতুর কর্মকান্ড ব্যাহত হোক, ক্ষতিগ্রস্ত হোক। যে কারণে পদ্মা সেতুর নিরাপত্তা ও দুর্ঘটনা এড়াতে সন্ধ্যা থেকে ফেরি চলাচল বন্ধ করা হয়েছে। সে অবস্থা স্বাভাবিক হতে না হতেই মাত্র চারদিনের মাথায় এবার নাব্য সঙ্কটে শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে ফেরি চলাচাল বন্ধ করা হলো।

গতকাল বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডাব্লিউটিএ) চেয়ারম্যান গোলাম সাদেক শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুট পরিদর্শন শেষে বলেছেন, যাত্রীদের শিমুলিয়া ও কাঁঠালবাড়ি ঘাট ব্যবহার না করার জন্য অনুরোধ করছি। তাদের দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া রুটে চলাচলের জন্য বলা হচ্ছে। কয়েকদিন আমাদের একটু কষ্ট করতে হবে। তবে শিগগির একটি সুন্দর ব্যবস্থা চালু করা হবে। চ্যানেলে ড্রেজিং কাজ চলছে। এক জায়গা থেকে ড্রেজার নিয়ে আরেক জায়গায় বসানোও বেশ কষ্টসাধ্য। ১২ জন মানুষের দুই দিন লেগে যায়।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডাবিøউটিসি) শিমুলিয়া ঘাটের ব্যবস্থাপক সাফায়েত আহমেদ জানান, গতকাল বিকাল ৪টায় শিমুলিয়া ঘাটে পারের অপেক্ষায় আছে ৩৫০ গাড়ি। এদের মধ্যে প্রাইভেটকার, পিক আপের সংখ্যাই বেশি।

মাদারীপুর থেকে আবুল হাসান সোহেল জানান, প্রচন্ড স্রোত ও নব্য সঙ্কট চরম আকার ধারণ করায় দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশ পথ শিমুলিয়া-কাঠালবাড়ী নৌ-রুটে ফেরি চলাচল মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ফলে ঘাটে পারাপার হতে আসা যানবাহনের চালক ও শ্রমিকদের গত কদিন ধরেই নানা দুর্ভোগ ও ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। ঘাট এলাকায় পারাপারের অপেক্ষায় রয়েছে প্রায় পাঁচশতাধিক যানবাহন। এদের মধ্যে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাস, এম্বুলেন্স ছাড়াও রয়েছে অসংখ্য যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাক এবং কভার্ডভ্যান।
আরিচা থেকে জাহাঙ্গীর ভুইয়া জানান, পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌপথে নাব্য সংকটের হুমকির মুখে। পাটুরিয়া লঞ্চ ঘাটের সামনে ইতোমধ্যেই ডুবোচর দেখা দিয়েছে। কর্তৃপক্ষ নৌপথ সচল রাখতে গত ১ সপ্তাহ ধরে ১টি ড্রেজার দিয়ে পলি অপসারণ করছে। দৌলতদিয়া ঘাট সংলগ্ন ক্যানালে প্রতি বছর ন্যাব্য সংকট দেখা দেয়। এবারও বর্ষা মৌসুম শেষে পানি কমতে থাকায় পদ্মায় নাব্য সংকট দেখা দিচ্ছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন