ঢাকা বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭, ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বিচারবহির্ভূত হত্যায় জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি

সংসদে বিএনপি সদস্যদের ক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দেশে বন্দুক যুদ্ধের নামে ক্রসফায়ারে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির দুইজন সংসদ সদস্য। তারা ওই সকল হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন। সিনহা হত্যাকান্ডসহ বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশের পাশাপাশি হত্যাকান্ডের শিকার ব্যক্তির পরিবার যাতে সুবিচার পায় সে জন্য তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ সরকারর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

গতকাল সোমবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে অনির্ধারিত আলোচনার সূত্রপাত করেন বিএনপির সংসদীয় দলের নেতা মো. হারুনুর রশিদ। তিনি তার নির্বাচনী এলাকা বিভিন্ন বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের উদাহরণ তুলে ধরে বলেন, এসব হত্যাকান্ডের মাধ্যমে সংবিধান লংঘন করা হচ্ছে। পরে আলোচনায় অংশ নেন একই দলের সদস্য ব্যারিষ্টার রুমিন ফারহানা। তিনি সরকারের বিরুদ্ধে সংবিধান লংঘনের অভিযোগ করেন।

আলোচনায় হারুনুর রশীদ বলেন, গত বছর ২৮ এপ্রিল জাতীয় সংসদে এমপি হিসেবে শপথ নেওয়ার মাত্র দুই দিন পর ৩০ এপ্রিল আমার নির্বাচনী এলাকায় প্রকাশ্যে বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড হয়। একটি পেশাদারী প্রতিষ্ঠান বিকেলে ৪টায় একজন সাধারণ নাগরিককে ধরে নিয়ে গুলি করে হত্যা করে। পুলিশি এজাহারে ওই ঘটনা থানা থেকে মাত্র এক কিলোমিটার দূরে ঘটেছে বলে দেখানো হয়। এজাহারে বলা হয়, পুলিশের উপর বেপরোয়া আক্রমণ চালানো হয়েছে। কিন্তু অস্ত্র দেখানো হয়েছে হাতে তৈরি অস্ত্র। সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো ওই ঘটনায় দুইজন ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে। তাদের একজন আমাদের এলাকায় উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। আর তার বড় ভাই। অথচ ঘটনার দিন তারা সংসদে এসে সংসদ গ্যালারি থেকে আমাদের অধিবেশন দেখেছেন। সংসদে ঢুকতে হলে সবার অনুমতি নিতে হয়। এই সংসদের কাছে এ ধরনের ডকুমেন্টস আছে। তাদের নামে আমি পাস ইস্যু করেছিলাম।

হারুনুর রশীদ বলেন, এই ধরনের পুলিশ আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয় দিয়ে মানুষকে উঠিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে হত্যা করা হচ্ছে। তা নিয়ে নাটক বানাচ্ছে। তিনি বলেন, আমাদের এলাকার এক ছাত্রকে ঢাকার শেওড়াপাড়া থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে এলাকায় ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়। ঢাকা থেকে তুলে নেওয়ার চারদিন পর তাকে ক্রসফায়ারে দেওয়া হয়। তিনি বলেন, অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা হত্যাকান্ডের আজ বিচার হচ্ছে। আদালত তাদের পরিবারের মামলা গ্রহণ করেছে। কিন্তু বাংলাদেশে আরও প্রায় তিন হাজারের অধিক ব্যক্তি এমন হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। তারা কি বিচার পাবে না? তাদের পাশে রাষ্ট্র দাঁড়াবে না? তাদেরকে কি রাষ্ট্র এই অধিকার দিবে না?

এরপর ব্যারিষ্টার রুমিন ফারহানা সরকারের বিরুদ্ধে সংবিধান লংঘনের অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, এই সরকার ২০১৩ সালে একটি আইন করেছিল হেফাজতে নির্যাতন মৃত্যু নিবারণ আইন। ওই আইনে চমৎকার সব ধরা থাকা সত্তে¡ও সেই আইনে খুব বেশি মামলা হয়নি। অথচ এই সাত বছরে অসংখ্য মানুষ পুলিশ হেফাজতে মারা গেছে। কিন্তু তার মামলাগুলো কি হলো, কেন পরিবারগুলো মামলা করার সাহস পায় না, হলে কয়টি মামলা হয়, সেইসব মামলার কি অবস্থা, তার কিছুই আমরা জানি না। তিনি বলেন, স¤প্রতি একটি বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড সকলেরই দৃষ্টি কেড়েছে। অথচ প্রতিদিনই বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ড হয়।

পরিসংখ্যান তুলে ধরে তিনি বলেন, ২০১৮ সালে ৪৬৬ জন, ২০১৯ সালে ৩৮৮ জন এবং ২০২০ সালে করোনাকালে প্রথম ছয় মাসে ১৫৮ জন বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। অর্থাৎ প্রতিদিন একজনের বেশি বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। তিনি বলেন, এগুলো বিচ্ছিন্ন ঘটনা বলে প্রচার করা হলেও এগুলোর একটিও কিন্তু বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। কারণ আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হিসাবে গত এক যুগে অর্থাৎ ১২ বছরে তিন হাজারের বেশী মানুষ বিচারবহির্ভূত হত্যাকান্ডের শিকার হয়েছেন। অসংখ্য মানুষ গুম হয়েছেন। অথচ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন বাংলাদেশ গুম বলে কোন শব্দ নাই। একই লাইন ধরে পুলিশের আইজি কিছুদিন আগে বলেছেন ক্রসফায়ার নামেও বলে কিছু নাই। এটি এনজিওগুলোর শব্দ। যে রাষ্ট্রে বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডকে বিভিন্নভাবে উৎসাহিত করা হয়, সেখানে বিচার বিভাগ ও আইনের শাসন থাকে না বলে তিনি দাবি করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Mohammed Shah Alam Khan ৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১:৩১ এএম says : 0
বিএনপি দলের সাংসদ হারুনুর রশীদ ও রুমিন ফারহানা সাহসিকতার সাথে সংসদে বিরোধী দল না হয়েও বিরোধী দলের দায়িত্ব পালন করছে এটা অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার। এখানে সাংসদেরা যে দাবী করেছেন এটা সম্পূর্ণ ভাবে সত্য কথা সেটা হচ্ছে পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা উকিলরা করতে চাননা কারন হিসাবে বলেন আদলতে পুলিশের বিরুদ্ধে মামলার প্রাধান্য দেয়া হয়না তাই মামলা করে সুবিধা করা যায়না যতই সত্য ঘটনা হউকনা কেন। আমি নিজে একজন বিদেশী পাসপোর্টে বাংলাদেশে যাই বেড়াতে সেখানে গিয়ে বাড়ি করা নিয়ে মামলায় জড়িত হয়ে পুলিশের নাজেহাল হতে হচ্ছে। আমি পুলিশের এসব অপকর্মের জন্যে মামলা দিতে গেলে আমার উকিল আমাকে পুলিশের বিপক্ষে মামলা না করার পরামর্শ দেন। আমি এইমূহুর্তে দেশের বাহিরে আছি কিন্তু পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে দেখে ভাল লাগছে। আমিও দেশে ফিরে পুলিশের অপকীর্তি নিয়ে মামলা করার ইচ্ছা রাখছি। আল্লাহ্‌ আমাদের দেশের পুলিশদেরকে ’৭৫ সালে জাতীর জনকের সরকার যেভাবে পুলিশকে জবাবদাহিতার আওতায় রেখে নিয়ন্ত্রণ করছিল সেই আইন আবার প্রচলন করে পুলিশকে নিয়ন্ত্রণ করা বর্তমান সরকারের উচিৎ বলে বিজ্ঞজনদের অভিমত।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন