ঢাকা শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭, ০৮ সফর ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সোলেইমানির মতো বাশার আল-আসাদকেও হত্যা করতে চেয়েছিলাম : ট্রাম্প

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৯:৪৪ এএম

ইরানের জেনারেল কাসেম সোলেইমানির মতো সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকেও হত্যা করতে চেয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু তৎকালীন মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস ট্রাম্পের বিরোধিতায় সেটি সম্ভব হয়নি। গতকাল মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) ‘ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস’ অনুষ্ঠানে নিজেই এসব কথা বলেন ট্রাম্প।

অনুষ্ঠানে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি চাইলেই আসাদকে সরিয়ে দিতে পারতাম। তাকে হত্যা করতে পারতাম। কিন্তু প্রতিরক্ষামন্ত্রী আমার এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেছিলেন। কারণ তিনি জানেন না কিভাবে যুদ্ধে জিততে হয়। তাই তিনি আমাদের বেশিরভাগ বিষয়ের সঙ্গেই দ্বিমত পোষণ করতেন।’

সাবেক মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস দেশটির সাবেক মেরিন জেনারেল ছিলেন। তিনি মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে ট্রাম্পের নানা খামখেয়ালি কর্মকাণ্ডের বিরোধিতা করায় ট্রাম্পের সঙ্গে তার মতবিরোধ সৃষ্টি হয়। ইরানের সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তি থেকে যুক্তরাষ্ট্রের সরে যাওয়া, সিরিয়া ও আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহার, জলবায়ু পরিবর্তন রোধে অর্থবরাদ্দ কমিয়ে দেওয়ার মতো বিভিন্ন বিষয়ে ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে ম্যাটিসের মতবিরোধ দেখা দেয়। শেষ পর্যন্ত ২০১৮ সালের ২০ ডিসেম্বর মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দেন তিনি। তবে সে সময় ট্রাম্প দাবি করেছিলেন, ম্যাটিস পদত্যাগ করেননি, তাকে তিনি বরখাস্ত করেছেন।
অনুষ্ঠানে ম্যাটিস সম্পর্কে ট্রাম্প বলেন, ‘এ সাবেক জেনারেল একজন মহান আমেরিকান, তিনি দেশকে অনেক দিয়েছেন। আমি বলব না তিনি ভালো বা খারাপ আমেরিকান। আমি শুধু বলছি, তিনি কাজ ভালো করেননি, তাই তাকে যেতে দিয়েছি।’

এদিকে, ইরানের কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার জেরে ইরান মার্কিন সম্পদে আঘাত হানতে পারে বলে যে খবর ছড়িয়েছে, সে বিষয়ে মুখ খুলেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প

গত সোমবার রাতে এক টুইটে ট্রাম্প বলেছে, ‘সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুসারে সন্ত্রাসী নেতা সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধ নিতে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হত্যাকাণ্ড বা যেকোনও ধরনের হামলা চালালে তার জবাবে এক হাজার গুণ বেশি মাত্রার হামলা চালানো হবে।’

উল্লেখ্য, গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন ড্রোন হামলায় প্রাণ হারান ইরানের প্রভাবশালী নেতা ও অভিজাত বাহিনী রেভল্যুশনারি গার্ডের (আইআরজিসি) কুদস ফোর্সের কমান্ডার মেজর জেনারেল কাসেম সোলাইমানি। এর পরপরই মার্কিন সম্পদে হামলা চালিয়ে কঠোর প্রতিশোধ নেয়ার ঘোষণা দেয় মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি। অবশ্য ইতিমধ্যে ইরাকে অবস্থিত মার্কিন সামরিক ঘাটিতে ব্যাপকভাবে হামলা চালিয়েছে ইরানি সেনারা। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Shamsur Rahman ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৩০ এএম says : 1
আসাদ ট্রাম্পের চেয়েও খারাপ, ওর কারণের সিরিয়া সুন্নিদের রক্তে রঞ্জিত হচ্ছে
Total Reply(0)
Abdul Karim Javed ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৩০ এএম says : 1
সিরিয়ানরা মুক্তি পেতো।
Total Reply(0)
Golam Rahman ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:২৯ এএম says : 0
ওকেই তো নোবেল দেওয়া উচিত খুনি হিসাবে
Total Reply(0)
মুহাম্মাদ আশরাফুল আলম হাবিবী ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:২৯ এএম says : 0
অন্যায়ভাবে হত্যা করা কখনো নীতিবানদের কাজ নয়।
Total Reply(0)
দাউদ ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৩৪ এএম says : 0
এরা এভাবে মানুষ মারে, আবার এরাই ভালো বা সন্ত্রাসীর সার্টিফিকেট দেয়
Total Reply(0)
এ, কে, এম জামসেদ ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১১:৪০ এএম says : 0
শিয়া বা সুন্নি যে ব্যক্তি বা রাষ্ট্র মুসলমানদের দুশমন ইসলায়েলের সাথে হাত মিলাবে, সে ব্যক্তি বা রাষ্ট্র ইসলামের দুশমন। কাট মোল্লারা একটা জানে আরেকটা জানেনা।
Total Reply(0)
Monjur Rashed ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৭:০২ পিএম says : 0
Trump would have done it before if he had the capability to Kill Asad. A barking dog seldom bites.
Total Reply(0)
Md.Haq ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৮:৪১ এএম says : 0
After the end of Trump regime, middle East would make this kebaab of him
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন