ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

ইসলামী জীবন

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১২:১৮ এএম

প্রশ্ন : কোনো অমুসলিমের রোগমুক্তির জন্য আল্লাহপাকের দরবারে দোয়া করা যাবে কি না, জানতে চাই।

উত্তর : স্বাভাবিক অবস্থায় মানবিক দিক বিবেচনায় অমুসলিমদের রোগমুক্তির জন্য আল্লাহপাকের নিকট প্রার্থনা করা যাবে। মুসলিম চিকিৎসক জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকলের চিকিৎসাও করতে পারবেন। কেননা, আল্লাহপাক সকল মানুষেরই স্রষ্টা, নিয়ন্তা ও প্রভু। তবে যুদ্ধাবস্থায় বা অস্বাভাবিক কোনো পরিবেশে ইসলাম ও মুসলিম সমাজের সাথে সাংঘর্ষিক অবস্থানে থাকাবস্থায় কোনো অমুসলিম সামরিক ব্যক্তির রোগমুক্তি বা যে কোনো কল্যাণের দোয়া বা প্রচেষ্টা ইসলামসম্মত নয়। আল্লাহ তায়ালার গজবে নিপতিত কোনো কাফির সম্প্রদায়ের ওপর ব্যাপকভাবে কোনো বিপর্যয় নেমে এলে তাদের জন্য দোয়া করাও ঠিক নয়। সাধারণত অমুসলিমদের জন্য আমাদের দোয়ার ধরনটা হতে হবে এমন, ‘হে আল্লাহ, ওদের তুমি হেদায়েত দান করো, আর হেদায়েত যদি ওদের ভাগ্যে না থাকে তবে তুমি তাদের ধ্বংস ও নিপাত করো।’
প্রশ্ন : কারবালা প্রান্তর কোন দেশে অবস্থিত? সিমার এবং ইয়াজিদের পরিচয় জানতে চাই।
উত্তর : কারবালা প্রান্তর ইরাকে অবস্থিত। ইরাকের কুফা নগরীর সন্নিকটবর্তী ফোরাত নদীর তীরে এই ময়দান একটি উপক‚লীয় বালুকাবেলা। ইয়াজিদ মুসলিম বিশ্বের শাসক। বিশিষ্ট সাহাবি হজরত মোআবিয়া রা.-এর পুত্র। হজরত হোসাইন রা.-এর প্রতিদ্ব›দ্বী জননেতা। সিমার তার অন্যতম সেনাপতি ও সাম্রাজ্যের পূর্বাঞ্চলীয় প্রতিরক্ষা প্রধান।
প্রশ্ন : বাড়ীর মুরব্বী মারা গেলে না কি ৪ দিন পর্যন্ত বাড়ীতে চুলা জ্বালানো যায় না? এ সময় অন্য বাড়ী থেকে রান্নাবান্না করে আনতে হয়। এ রীতি কি ইসলামসম্মত?
উত্তর : মৃত ব্যক্তির বাড়ীতে চুলা জ্বালানো বা রান্নাবান্না করা ইসলামে নিষিদ্ধ নয়। যেদিন বাড়ীতে কোনো মুরব্বী বা অন্য কেউ মারা যাবেন, সেদিনই রান্নাবান্না করা যাবে। ইসলামে মৃত ব্যক্তির জন্যে শোক পালনের সময়সীমা তিনদিন। এ তিনদিন তার জন্যে বিশেষ দোয়া, সদকা-খয়রাত, স্মৃতিচারণ এবং নিকটাত্মীয়দের শোকতাপ অত্যন্ত স্বাভাবিক। এ তিনদিন কোনো কার্যক্রম বন্ধ রাখা বা চালু রাখা বাধ্যতামূলক নয়। এ সময় স্বাভাবিক জীবনাযাত্রার কোনো কিছু স্থগিত রাখা বা চালু রাখা উভয়ই অনুমোদিত। অবশ্য বাংলাদেশের গ্রাম ও শহরে একটি নিয়ম চালু আছে যে, মৃত ব্যক্তির বাড়ীতে দু’একবার অন্যান্য বাড়ী থেকে খানা পাক করে উপহারস্বরূপ পাঠানো হয়। এটা ইসলামী ভ্রাতৃত্ববোধ ও সমবেদনারই বহিঃপ্রকাশ মাত্র। এতে দোষের কিছু নেই বরং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের রান্নাবান্নার ঝামেলা থেকে মুক্ত রাখার একটি প্রশংসনীয় মানবিক উদ্যোগ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন