ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বগুড়া বিএনপির প্রতিনিধি সভায় হট্টগোল চেয়ার ভাংচুর

বগুড়া ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২২ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬:১৫ পিএম

বগুড়া জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সভায় আভ্যন্তরীন বিবাদের জের ধরে হট্টগোল , চেয়ারভাংচুর ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার দুপুরে বিএনপি বগুড়া জেলা আহ্বায়ক কমিটি শহর ,পৌর ও উপজেলা সমুহের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে এক প্রতিনিধি সভার আয়োজন করে।
ওই সভাতেই বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির বিরোধি একদল লোক বিভিন্ন সাংগঠনিক অনিয়মের কথা বলতে বলতে সভাস্থলে প্রবেশ করে হট্টগোল ও চেয়ার ভাংচুর করে। কিছুক্ষণ পরে আহ্বায়ক কমিটির পক্ষে একদল লোক লাঠি সোটা ও লোহার রড নিয়ে ভাংচুরকারীদের ধাওয়া করে তাদের কার্যালয় থেকে বের করে দেয় । পরে দলের কার্যালয়ের বাইরের রাস্তায় কয়েকদফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হলে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘঠনাস্থলে এসে পরিসিস্থিতি শান্ত করে ।
সভায় উপস্থিত সিনিয়র নেতারা জানান, পুর্বঘোষনা মোতাবেক মঙ্গলবার বেলা ১১টায় বিএনপি অফিস কমপ্লেক্সের ভেতরের যুবদল কার্যালয়ে দলের জেলা আহ্বায়ক ও সংসদ সদস্য জিএম সিরাজের সভাপতিত্বে শুরু হয় । সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য হেলালুজ্জামান লালু ,সংসদ সদস্য মোশারফ হোসেন , সাবেক সভাপতি রেজাউল করিম বাদশা , সাবেক সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চাঁন,মহিলাদলের জেলা সভানেত্রী লাভলী রহমান, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আলী আজগর তালুকদার হেনা,আহসানুল তৈয়্যব জাকির,তৌহিদুল আলম মামুন প্রমুখ ।
তবে সভার শুরুতে বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলা বিএনপির কমিটি বিকৃতির অভিযোগ এনে কারাবন্দী বিএনপি নেতা এম আর ইসলাম স্বাধীনের একদল সমর্থক আহ্বায়ক জিএম সিরাজের কাছে নালিশ জানায় ও প্রতিকার দাবি করে । জিএম সিরাজ বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দিলে প্রতিবাদকারীরা শান্ত হয় । এরপর বেলা ১১ টায় সভার কাজ শুরু হলে আরেকদল লোক সভাস্থলে ঢুঁকে পড়ে এবং দল পরিচালনায় বর্তমান আহ্বায়কের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সাংগঠনিক অনিয়মের অভিযোগ তুলে হট্টগোল এবং চেয়ার ভাংচুর করতে থাকে । এর কিছু পরেই আহ্বায়ক সমর্থক অপর একদল লোক লাটি সোঁটা লোহার রড নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে চেয়ার ভাংচুরকারীদের ধাওয়া দিয়ে দলের কার্যালয়ের বাইরে ঠেলে দেয়। দুপুর পর্যন্ত রাস্তায় দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা শুরু হলে বিপুল সংখ্যায় পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে ।
বগুড়ার ৯টি পৌরসভা ও কয়েকটি ইউপি নির্বাচণে দলের প্রার্থী নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হবার সম্ভাব্য ধারণা থেকেই উত্তেজনা তৈরী হলেও শেষ পর্যন্ত সভায় সে সংক্রান্ত আলোচনা বা সিদ্ধান্ত হয়নি বলে সাংবাদিকদের জানো হয় । দুপুরে নামাজের বিরতীর পর পুনরায় সভা শুরু হয়ে বিকাল ৫টায় তা ’ শেষ হয় ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন