ঢাকা রোববার, ২৫ অক্টোবর ২০২০, ৮ কার্তিক ১৪২৭, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

আরতো দেরী সয়না, কার ভাগ্যে পদ পদবী ?

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৭:১৪ পিএম

ফরিদপুরের জেলা বিএনপির কমিটি নেই দীর্ঘ এক বছর ধরে। অভিভাবকহীন হয়ে চলছে ফরিদপুরের জেলা বিএনপি। ২০১৯ সালের ৫ইং সেপ্টেম্বর মাসে এক প্রজ্ঞাপনে ফরিদপুর জেলা কমিটি ভেঙ্গে দেয় কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রহুল কবীর রিজভি আহম্মেদ এবং ৯০ দিনের মধ্যে কমিটি গঠন করার দায়িত্ব পায় কেন্দ্রীয় কমিটির তিন নেতা। তারা হলেন শামা ওবায়েদ রিংকু, খন্দকার মাশুকুর রহমান মাসুক এবং সেলিমুজ্জাম। কিন্তু দীর্ঘ এক বছরেও তারা ফরিদপুর জেলা কমিটি ঘোষণা দিতে পারে নাই তারা। অপরদিকে কমিটি না থাকার কারণে হতাশায় ভুগছে তৃণমূল সাধারণ বিএনপির কর্মীরা। এদিকে সাধারণ সম্পাদক পদটি নিয়ে চার নেতা দৌড়ঝাপ শুরু করেছে। তার মধ্যে তিনজন সাবেক ছাত্র নেতা আফজাল হোসেন খান পলাশ, সৈয়দ জুলফিকার হোসেন জুয়েল, মুরাদ হোসেন এবং রাশিদুল ইসলাম লিটন। তবে সাবেক তিন ছাত্রনেতাকে বিএনপির পরীক্ষিত নেতা বলে ফরিদপুরের সকলে চিনে। হামলা, মামলা নির্যাতনের শিকার এই নেতাদের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক মামলা রয়েছে প্রায় ১৫/২০ করে। বহুবার গ্রেপ্তার হয়েছে হয়ে জেল খেটে বর্তমানে সবাই জামিনে আছে। সাধারণ কর্মীদের মধ্যে চলছে চাপা ক্ষোভ কেন দীর্ঘ দিন লাগছে কমিটি ঘোষণা দিতে।
এ বিষয়ে খোন্দকার মাশুকুর রহমান জানান, করোনার কারণে কমিটি ঘোষণা দিতে বিলম্ব হচ্ছে, খুব শিঘ্রই কমিটি ঘোষনা করা হবে বলে তিনি জানান। ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক নেতা জানান, ফরিদপুরের বিএনপির অভ্যন্তরিন কারণে কমিটি ঘোষণা দিতে পারছে না। তবে ফরিদপুরের বিএনপি তিনটি গ্রুপ বিভক্ত তা সকলেই অবগত আছে।
বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, সাবেক নেতারা আশাবাদি তারা পদ পদবী পাবেন।
এদিকে রাশিদুল ইসলাম লিটনকে সমর্থন দিয়ে জোড়ালো ভুমিকা রাখছেন সাবেক সভাপতি আলহাজ জহিরুল হক শাহজাদা মিয়া। বাকী তিন ছাত্রনেতা মধ্যে ২ জন রয়েছেন শামা ওবায়েদের অনুগত এবং অপর জনের রয়েছে তৃণমূলের সমর্থন।
তৃণমূল নেতারা জানান, আরতো দেরী সয়না, দ্রুত কমিটি ঘোষণার দাবি জানান তারা।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন