ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

সৈয়দপুর শহরে স্কুল শিক্ষিকার বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত

সৈয়দপুর (নীলফামারী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ১০:৩২ এএম

নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরে এক স্কুল শিক্ষিকার বাসায় দুর্ধর্ষ চুরি সংঘটিত হয়েছে। গতকাল দিবাগত গভীর রাতে শহরের নিয়ামতপুর জুম্মাপাড়া এলাকায় শিক্ষিকা রেহেনা খানমের বাসায় ওই চুরির ঘটনাটি ঘটে। চোরের দল ওই বাসা থেকে নগদ অর্থ, স্বর্ণালংকার, দুইটি মূল্যবান মুঠোফোন সেটসহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল চুরি করে গিয়ে গেছে।

জানা গেছে, রেলওয়ের সাবেক কর্মচারী মো. আব্দুল কাদের এবং সৈয়দপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের সিনিয়র শিক্ষিকা রেহেনা খানম। ওই দম্পতি সৈয়দপুর শহরের আদানীমোড় সংলগ্ন বিসিক নৈপূণ্য বিকাশ কেন্দ্রের পিছনের নিয়ামতপুর জুম্মাপাড়া এলাকার নিজস্ব বাসায় বসবাস করেন। তারা প্রতিদিনের মতো ঘটনার দিন গতকাল দিবাগত রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে নিজ নিজ রুমে ঘুমিয়ে পড়েন। আর ওই দিন গভীর রাতে চোরেরা ওই বাসার পেছনের একটি রুমের ভেন্টিলেটারের গ্রীল কেটে বাসার ভেতরে প্রবেশ করে। এর পর চোরের দল বাসার কয়েকটি স্টীলের আলমিরা ও ওয়্যারড্রপের তালা ভেঙ্গে নগদ টাকা-পয়সা ও স্বর্ণালংকার খুঁজতে থাকেন। এ সময় চোরেরা গৃহকর্ত্রী স্কুল শিক্ষিকা রেহেনা খানমের কয়েকটি স্টীলের আলমিরা ও ওয়্যারড্রপের ড্রয়ার ও ভ্যানিটি ব্যাগসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র তছনছ করে। এর এক পর্যায়ে চোরের দল গৃহকর্ত্রীর রুমের স্টীলের আলমিরার তালা ভাঙ্গার প্রাক্কালে আওয়াজ পেয়ে তাঁর ঘুম ভেঙ্গে যায়। এ সময় তিনি ঘরের মধ্যে তিনজন চোর দেখতে পেয়ে কে কে বলে চিৎকার দেন। আর এ সুযোগে চোরের দল বাসার স্টীলের আলমিরা ও ওয়্যারড্রাপের তালা ভেঙ্গে তাদের হেফাজতে নেয়া নগদ প্রায় ১০ হাজার টাকা, এক ভরি স্বর্ণালংকার, মূল্যবান দুইটি মুঠোফোনসহ লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে দ্রæত সটকে পড়েন।
গতকাল সকালে শহরে এক স্কুল শিক্ষিকার বাসা চুরির খবর পেয়ে সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. সাহিদুর রহমান সঙ্গীয় পুলিশ সদস্যদের নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন।
এ চুরির ঘটনায় গৃহকর্তা মো. আব্দুল কাদের সৈয়দপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন।
সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আবুল হাসনাত খান শহরের এক স্কুল শিক্ষিকার বাসা চুরির হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, চুরির বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করা হচ্ছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন