ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

জলঢাকায় ধুম নদীর ভাঙ্গনে দিশেহারা ঘোড়ামারা গ্রামের মানুষ

নীলফামারী সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ অক্টোবর, ২০২০, ২:৫৪ পিএম

বন্যার পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে ভাঙ্গন শুরু হয়েছে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার ধুম নদীতে। ইতিমধ্যে বসতভিটা, গাছপালা ও ফসলী জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় আতংকিত হয়ে পড়েছে ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষজন।

জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা ইউনিয়নের পূর্ব গোলমুন্ডা ঘোড়ামারা এলাকায় ধুম নদীর ভয়াবহ ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিনে ওই গ্রামের ১২টি পরিবারের ঘরবাড়ী, বাঁশঝাড়, গাছপালা ও ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। অনেকে ঘরবাড়ী সরিয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছে। প্রতিনিয়তই ভাঙ্গনের কবলে পড়ছে নতুন নতুন এলাকা। চরম হুমকির মুখে পড়েছে পূর্ব গোলমুন্ডা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি মসজিদ। যে কোন সময় নদীগর্ভে বিলীন হতে পারে এই দুটি স্থাপনা । এদিকে ভাঙ্গন রোধে কার্যকরী পদক্ষেপ না থাকায় র্নিঘুম রাত কাটাচ্ছেন ভাঙ্গন কবলিত এলাকার মানুষজন। ঘোড়ামারা গ্রামের সফিকুল ইসলাম,আলতাফ হোসেন, আলহাজ্ব তৈয়ব আলী,আফজাল হোসেন,মনোয়ার,বাবুল,মানিক,রেজাউল সহ অনেকের অভিযোগ স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষকে অবগত করার পরেও ভাঙ্গন রোধে কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় প্রতিদিনেই বসতভিটা ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হচ্ছে।

গোলমুন্ডা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোজাম্মেল হোসেন জানান,ঘোড়ামারা গ্রামের ধুম নদীর ভাঙ্গনে ইতিমধ্যে অনেক পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ভাঙ্গন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অবগত করা হলেও তারা কোন পদক্ষেপ নেননি।

পানি উন্নয়ন বোর্ড নীলফামারীর ডালিয়া ডিভিশনের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ফারুক হোসেন বলেন, ঘোড়ামারা গ্রামে নদী ভাঙ্গনের বিষয়টি আমার জানান নেই। আমি লোক পাঠিয়ে বিষয়টি দেখছি ।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন