ঢাকা মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গোবিন্দগঞ্জে বন্যার অবনতি, কাটাখালী পয়েন্টে পানি বিপদ সীমার ১১১ সেঃমিঃ উপরে

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১ অক্টোবর, ২০২০, ৪:১৭ পিএম

গত কয়েকদিনের টানা বর্ষণে সৃষ্টবন্যায় গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ঢাকা-দিনাজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের ৩টি অংশ বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় গোবিন্দগঞ্জ থানামোড় থেকে দিনাজপুর সড়কে ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে বন্যার পানি ওঠায় ব্যাহত হচ্ছে স্বাস্থ্যসেবা।

জানাগেছে, গত কয়েকদিনের টানাভারী বর্ষণের কারণে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার উপর দিয়ে প্রবাহিত করতোয়া নদীর পানি ব্যাপকহারে বৃদ্ধি পাওয়ায় বন্যা দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ১৩টি ইউনিয়নের ৫০টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টায় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানিয়েছেন। এসব গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ এখনও পানিবন্দি অবস্থায় জীবন যাপন করছে। উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, ইতিমধ্যে বন্যার পানিতে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলায় ২হাজার ৭৮০ হেক্টর জমির আমনধান, ২১০ হেক্টর জমির শীতকালীন শাকসবজি সহ প্রায় তিনহাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রামকৃষ্ণ বর্মন জানান, বন্যার্ত মানুষের সহায়তার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে দেড়হাজার মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দেয়া হয়েছে। এছাড়া ২শ মানুষের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। বন্যা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ইতোমধ্যে ৬টি আশ্রয়কেন্দ্র খোলা হয়েছে। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে সার্বক্ষণিক খোঁজ-খবর রাখা হচ্ছে। যে কোন ধরণের পরিস্থিতি মোকাবেলায় প্রশাসনের প্রস্তুতি রয়েছে বলে তিনি আরও জানান।
এদিকে বন্যার পানি দ্রæত বেড়ে যাওয়ায় ঢাকা-দিনাজপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের ৩টি অংশ বন্যার পানিতে ডুবে যাওয়ায় দুর্ঘটনার আশংকায় বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে গোবিন্দগঞ্জ থানামোড় হয়ে চলাচলকারী সকল প্রকার ভারী যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে গাইবান্ধা সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী রুবেল সরকার নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে উপজেলার ফুলবাড়ী ইউনিয়নের ফতেউল্ল্যাপুর শ্যামপুর গ্রামে বাঁধের মাটি কেটে বাঁধ সংস্কারের অভিযোগ পাওয়া গেছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ঠিকাদারের বিরুদ্ধে। ফলে ঝুঁকির মুখে পড়েছে ওই এলাকার বন্যা নিয়ন্ত্রন কার্যক্রম। এবিষয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ড গাইবান্ধার নির্বাহী প্রকৌশলী মোখলেছুর রহমান জানান, বাঁধের মাটি কাটার বিষয়টি আমি জানি, পানি কমে গেলে ঠিকাদার ওই স্থানের মাটি ভরাট করে দেবে। তিনি আরো জানান, করতোয়া নদীর কাটাখালী পয়েন্টে বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টা পর্যন্ত বিপদ সীমার ১১১ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে বন্যার পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন