ঢাকা শনিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২০, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে ভারতে ব্যাপক আলোচনা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ অক্টোবর, ২০২০, ৮:৫৮ এএম

উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে ভারতকে পেছনে ফেলে এগিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এ উন্নয়ন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে প্রতিবেশী এই দেশটিতে। বিশেষ করে কলকাতার গণমাধ্যমে ফলাও করে প্রচার করা হচ্ছে প্রতিবেশী দেশের উন্নয়নের চিত্র। সম্প্রতি কলকাতার বেসরকারি টেলিভিশন ‘কলকাতা টিভি’ ভারতের চেয়ে বাংলাদেশ কোন কোন সূচকে কী পরিমাণ এগিয়ে আছে তা নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদন করেছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্ব ক্ষুধা সূচক থেকে নারী-পুরুষ সমতায় ভারতকে পেছনে ফেলে এগিয়ে গেছে বাংলাদেশ। ভারতে শিশু মৃত্যু হার ১ হাজারে ৮৮ জন। বাংলাদেশ এ হার ৮৪ জন। -কলকাতা টিভি

ভারতীয়দের গড় আয়ু ৬৯ বছর। বাংলাদেশিদের গড় আয়ু তিন বছর বেশি, ৭২ বছর। এর অর্থ বাংলাদেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভারতের থেকে ভালোর দিকে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে কলকাতার বিশেষায়িত হাসপাতাল, যেগুলো বাংলাদেশি রোগীর ভরসায় থাকে, তাদের ব্যবসা লাটে উঠবে। প্রশংসা করা বাংলাদেশ সরকারের নেয়া ভিলেজ কমিউনিটি স্বাস্থ্যসেবা প্রকল্পের। ভারতের থেকে বাংলাদেশি তরুণের মধ্যে শিক্ষার হার বাড়ছে। উচ্চ শিক্ষায় নারীরা, পুরুষকে ছাপিয়ে যাচ্ছে। ভারতের পুরুষের চেয়ে সংখ্যায় নারী কম। ‘প্রথম’ নামে একটি সংগঠনের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চালানো এক সমীক্ষায় জানানো হয়, বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা ভারতের ছাত্রছাত্রীর চেয়ে সাবলিলভাবে দেখে দেখে বই পড়তে পারে। বাংলাদেশের সরকার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে (সরকারি, বেসরকারি, স্কুল, মাদরাসায়) বিনামূল্যে বই দিচ্ছে। যেখানে ভারতের সরকারি বিদ্যালয়ে শুধু বিনামূল্যে পাঠ্যবই দেয়া হয়। শিক্ষা, স্বাস্থ্যে বাংলাদেশ ভারতের চেয়ে বেশি ব্যয় করছে। বাংলাদেশে ১০০ শিশুর মধ্যে ৩৩ জন অপুষ্টিতে ভোগে। ভারতে এ হার ৩৬ জন। বাংলাদেশ সরকারের নেয়া পুষ্টি প্রকল্প ‘পুষ্টি আপা’ বিষয়ক অনুষ্ঠানে তুলে ধরা হয়। বলা হয়, বাংলাদেশে ভারতের মতো আমিষ ভোজের জটিলতা নেই। তাই বাংলাদেশের মানুষ ডিম, মাংস সবই খেতে পারছে। আর ভারতে শুধু শাকসবজি। সেই তালিকায় নেই দুধ, ঘি পনিরের মতো পুষ্টিকর খাবার।

বাংলাদেশের ৯৮ শতাংশ ঘরে টয়লেট আছে। ভারতে ৯৭ শতাংশ। বাংলাদেশের ৮০ শতাংশ বিদ্যালয়ে টয়লেট আছে। ভারতের ৭৩ শতাংশ বিদ্যালয়ে টয়লেট রয়েছে। বলা হয়, স্বাস্থ্য সচেতনতায় বাংলাদেশ এগিয়ে। শ্রমের জোগানে বাংলাদেশের মেয়েরা ভারতের চেয়ে অনেক এগিয়ে। চা, বাগান, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে নারীদের সংখ্যা অনেক বেড়েছে। ভারতে বেকারত্বের হার ৮ দশমিক ৪ শতাংশ। বাংলাদেশে এ হার ৪ দশমিক ১৯ শতাংশ। গেল কয়েক বছরে শুধু মাথা পিছু আয়ে নয়; অনেক ক্ষেত্রে ভারতকে বাংলাদেশ ছাপিয়ে গেছে বলেও উল্লেখ করা হয়। ভারত পাল্লা দিয়ে পিছিয়েছে বলেও বলা হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ ইসলামি সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে লড়ছে। মুজিব হত্যাকারীদের ফাঁসি দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া ভারতের সন্ত্রাসীদের দেশটির হাতে তুলে দেয়া হয়েছে। যে কোনো ক্ষেত্রে এখনও পর্যন্ত ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশ সুম্পর্ক রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে। আর মোদি-আমিত শাহ ভাইদের মনে হয়েছে, বাংলাদেশিরা না খেতে পেয়ে ভারতে উইপোকার মতো ছড়িয়ে পড়ছে।

সেই একাত্তর থেকে অবাঙালি ভারতীয়দের এক বড় অংশের ধারণা বাংলাদেশ তাদের করদ রাজ্য। আমরা তাদের স্বাধীনতা এনে দিয়েছি। বাংলাদেশিদের প্রতি তাদের ধারণা, অত্যন্ত গরিব, ওই দেশে কিছুই হয় না, কেবল বাচ্চা পয়দা হয়, আর ওরা মুসলমান। কিন্তু সেদেশটিই নোবেল এনেছে, শিল্প তৈরি করছে, ক্রিকেট টিম তৈরি করছে। কৃষিখাতেও বাংলাদেশের উন্নতির প্রশংসা করা হয় অনুষ্ঠানে। মাছ উৎপাদনে তারা এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের সামনে আরো অনেক কাজ বাকি উল্লেখ করে বলা হয়, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। ভারত পিছিয়ে যাচ্ছে সবদিক থেকে। মুজিব কন্যা শেখ হাসিনা চুপ করে কাজ করে চলেছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
habib ২১ অক্টোবর, ২০২০, ১০:৪৭ এএম says : 0
Bangladeshe kono islamic jongi nai. jeta ace seta Indian ISKON r RAW agent kaz kortese bangladeshe.....
Total Reply(0)
মোঃ দুলাল মিয়া ২১ অক্টোবর, ২০২০, ৯:৩২ এএম says : 0
উপরে ফিটফাট ভিতরে সদরঘাট। ????
Total Reply(0)
ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২১ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫১ এএম says : 0
ওয়াশিংটন পোষ্ট আন্তর্জাতিক গন মাধ্যমে বাংলাদেশের অর্থনীতির অভাবনীয় উন্নতি অগ্রগতির প্রশংসা করেছে ভারতের রাজনীতিবিদ মাঝে বাংলাদেশের উন্নয়ন উন্নতি নিয়ে গবেষণা হচ্ছে রীতিমতো। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আমেরিকা চীন ভারত বিশ্ব নেতৃত্ব বাংলাদেশের প্রতি শ্রদ্ধা সম্মান জানাচ্ছেন। বিশালাকার বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি বিশ্বের মাঝে বাংলাদেশের মর্যাদা সুনাম অর্জনের কারিগর বাংলাদেশ পেয়েছে বিশাল ব‍্যাক্তিত্বের পরিশ্রমী ত‍্যাগী সৎ নেতা। বিশ্বের প্রভাবশালী নেতাদের একজন দক্ষিণ এশিয়ার লৌহ মানবী। আবার মানবতার আদশ‍্যে আন্তর্জাতিক ভাবে মানবতার মা। মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা। আকাশ বিজয় সমুদ্র বিজয় ডিজিটাল বাংলাদেশ বিজয় পার্বত্য চট্টগ্রামের শান্তির বিজয়। দশলক্ষ অসহায় মানুষ তাদের আশ্রয় দিয়ে জীবন বাচানোর বিজয়। বাংলাদেশের রিজার্ভ হাপ ট্রিলিয়ন কাছাকাছি নিরাপদ রিজার্ভের বিজয়। বাংলাদেশ কে অর্থনৈতিক পরাশক্তি বানানোর বিজয় পতাকা হাতে নিয়ে সংগ্রামী জাতীয় নেতা। বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতির দৃশ্যমান পদ্ধাসেতু সারাবিশ্বের সাথে চ‍্যালেঞ্জ। বিশ্ব দাতা গোষ্ঠীদের দেখিয়ে ছিলেন শক্তি সাহসিকতার দৃষ্টান্ত বঙ্গবন্ধুর পবিত্র রক্তের স্রোতধারা পদ্ধাসেতু বাংলাদেশের টাকাই হবে। শক্তিশালী কন্ট কারছিল। এই নেতা ছাড়া আর কাওকে দিয়ে কল্পনা করা যাবে। এটি আটার কোটি নারী পুরুষের বিজয়। জাতীয় আন্তর্জাতিক মিডিয়াই বাংলাদেশ শিরোনাম হচ্ছে। নিঃসন্দেহে দেশের লক্ষ কোটি মানুষের সম্মান মর্যাদা। এই শক্তিশালী নেতা তার নিজের দলের জনপ্রিয়তার শীর্ষে তাকাদের সর্তকবাণী দিয়ে যাচ্ছেন দুন্নীতির নানান বিষয়ে। তাহার যুব ছাত্র সংঘটনের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান করেছেন নির্মোহ ভাবে । একটাই স্বপ্ন বাংলাদেশের অগ্রগতি উন্নয়ন শান্তি শৃংখলা স্বার্থে। কোলকাতা ইলেকট্রনিক মিডিয়া। আন্তর্জাতিক গন মাধ্যমে সংবাদ অত্যন্ত সম্মানের। জাতি হিসাবে বাংলাদেশের মানুষ ভাগ‍্যবান মাননীয় প্রধান মন্ত্রী মত মহান নেতা পাওয়াতে। অভিনন্দন সালাম ও সালাম। আন্তরিকতার সাথে নিঃস্বার্থ দোয়া। শতাব্দীর পর শতাব্দী বাংলাদেশের ইতিহাসের পাতা স্বর্নাক্ষরে লিখা থাকবে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতির সারথী বিশ্ব মানবতার মায়ের নাম। মাননীয় প্রধান মন্তী শেখ হাসিনা। শেখ হাসিনা। তাহার শারীরিক সুস্থতা দীর্ঘায়ু কামনা করছি। জাতীয় পত্রিকা ইনকিলাব কে প্রতি শ্রদ্ধা ও সালাম জানাচ্ছি।
Total Reply(0)
Myeenuddin ২১ অক্টোবর, ২০২০, ১১:৫৯ এএম says : 1
হাইরে উন্নয়ন বুলি আর কতকাল তুই যন্ত্রনা দিবি দেশ কে।
Total Reply(0)
Myeenuddin ২১ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০০ পিএম says : 1
হাইরে উন্নয়ন বুলি আর কতকাল তুই যন্ত্রনা দিবি দেশ কে।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন