ঢাকা বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

গোয়ালন্দে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

পুলিশ সদস্যকে মারধর

গোয়ালন্দ (রাজবাড়ী) উপজেলা সংবাদদাতা : | প্রকাশের সময় : ২২ অক্টোবর, ২০২০, ১২:০১ এএম

গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ঘাটে সরকারি কাজে বাঁধা প্রদান ও কর্তব্যরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যকে মারপিটের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা মমিন শেখকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ওমর আলী মোল্লার পাড়া গ্রামের মো. হামেদ শেখের ছেলে। গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে দৌলতদিয়া ঘাটের ট্রাফিক পুলিশ বক্সের সামনে থেকে তাকে আটক করা হয়।
এ ঘটনায় মারপিটের শিকার পুলিশ কনস্টেবল মীর ইয়াসিন আলী বাদী হয়ে গতকাল গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মামলা দায়ের করেছেন। মমিন শেখ রাজবাড়ী জেলা ছাত্রলীগের উপ-প্রচার সম্পাদক। এছাড়া তিনি অনলাইনভিত্তিক ‘এস’ টিভি চ্যানেলসহ বিভিন্ন মিডিয়ার সাংবাদিক এবং গোয়ালন্দ উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নিজেকে পরিচয় দেন। ছাত্রলীগ নেতা ও সাংবাদিক পরিচয়ে তিনি দৌলতদিয়া ঘাট, যৌনপল্লীসহ বিভিন্ন জায়গায় প্রভাব খাটিয়ে বিভিন্ন অপকর্ম ও অবৈধ সুবিধা নেন বলে অভিযোগ রয়েছে।
মামলার অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পুলিশের রেকার চালক কনস্টেবল মীর ইয়াসিন আলী গত মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে দৌলতদিয়া ঘাটে জরুরি দায়িত্ব পালন করছিলেন। কর্তব্য পালনকালে তিনি সরকারি রেকারের বিল প্রস্তুত করছিলেন। এ সময় মমিন শেখের নেতৃত্বে সোহাগ মিয়া, সোহেল রানা চৌধুরীসহ কয়েক যুবক সংঘবদ্ধভাবে তাকে এ কাজে বাঁধা প্রদান করেন। সরকারি কাজে বাঁধা প্রদানের কারণ জানতে চাইলে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারপিট করে। এসময় আশপাশের লোকজন ও অপর পুলিশ সদস্যরা এগিয়ে আসলে অন্যরা পালিয়ে গেলেও মমিন শেখকে আটক করা হয়।
মারপিটে জখম কনস্টেবল ইয়াসিন আলীকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।
জানা যায়, ২০১৬ সালের ১০ জুন অসামাজিক কর্মকান্ড ও সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত থাকার দায়ে মমিন শেখকে ছাত্রলীগের দৌলতদিয়া মডেল হাইস্কুল শাখার সভাপতির পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। তার বিরুদ্ধে ছাত্রলীগ নেতা ও সাংবাদিক পরিচয়ে দৌলতদিয়া ঘাট দিয়ে অবৈধ উপায়ে যানবাহন পারাপারসহ নানা অভিযোগ রয়েছে।
এ বিষয়ে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, সরকারি কাজে বাঁধা প্রদানের অভিযোগে মমিন শেখসহ পলাতক আসামি কথিত সাংবাদিক সোহাগ মিয়া, সোহেল রানা চৌধুরী ও অজ্ঞাত ৩-৪ জনের বিরুদ্ধে কনস্টেবল মীর ইয়াসিন আলী মামলা দায়ের করেছেন। আটক মমিন শেখকে রাজবাড়ীর আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ ও অপর আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন