রোববার, ১৪ আগস্ট ২০২২, ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৫ মুহাররম ১৪৪৪

জাতীয় সংবাদ

দেহরক্ষীসহ জোড়া মামলায় ইরফান ৫ দিনের রিমান্ডে

অস্ত্র ও মাদক মামলা

বিশেষ সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৯ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

অস্ত্র ও মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনের পৃথক দুই মামলায় সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদুল মোল্লার ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। পুলিশের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালত গতকাল রোববার এই আদেশ দেন। এর আগে সকালে আসামি ইরফান ও তার দেহরক্ষী জাহিদকে আদালতে হাজির করা হয়। অস্ত্র ও মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনের পৃথক দুই মামলায় তাদের প্রত্যেককে ৭ দিন করে মোট ১৪ রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার আবেদন করে পুলিশ। অপর দিকে ইরফান ও জাহিদের পক্ষে রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করা হয়। আদালত উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় ইরফান ও জাহিদকে তিন দিন করে এবং মাদক নিয়ন্ত্রণে আইনের মামলায় প্রত্যেককে দুই দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন।

নৌবাহিনীর কর্মকর্তা ওয়াসিফ আহম্মেদ খানকে মারধরের ঘটনায় করা মামলায় ইরফানকে দুই দফায় রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। এই মামলায় ইরফানের দেহরক্ষী জাহিদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। একই মামলায় কারাগারে আছেন ইরফানের সহযোগী এ বি সিদ্দিক ওরফে দীপু এবং ইরফানের গাড়িচালক মিজানুর রহমান। গত ২৬অক্টোবর রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় ইরফান সেলিমসহ চারজনের বিরুদ্ধে মারধর ও হত্যাচেষ্টার মামলা করেন নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খান।

ওয়াসিফ আহমেদ খান মামলায় অভিযোগ করেন, আগের দিন রাতে স্ত্রীকে নিয়ে তিনি মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। ধানমন্ডির ল্যাবএইড হাসপাতালের সামনে পেছন থেকে তার মোটরসাইকেলকে ধাক্কা দেয় সংসদ সদস্যের স্টিকারযুক্ত একটি গাড়ি। ওয়াসিফ নিজের পরিচয় দিলেও গাড়ি থেকে নেমে একজন গালিগালাজ করে হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান। এরপর গাড়িটি কলাবাগান বাসস্ট্যান্ড সিগন্যালে দাড়ালে ওয়াসিফ মোটরসাইকেল নিয়ে সেখানে গিয়ে গাড়ির জানালা টোকা দিয়ে নিজের পরিচয় দেন এবং কথা বলতে চান। গাড়ির ভেতরে থাকা লোকজন কোনো কথা না বলে তাকে উপর্যুপরি মারধর করেন। তিনি জানতে পারেন, তার ও তার স্ত্রীর ওপর হামলাকারী সাদা পাঞ্জাবি পরিহিত ব্যক্তি হাজি সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিম। এর বাইরেও এজাহারে তিনি আরও তিনজনের নাম উল্লেখ করেন। তারা হলেন- এ বি সিদ্দিক দীপু, জাহিদ ও মিজানুর রহমান। মামলার চার আসামিই গ্রেফতার আছেন।

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধরের জেরে ২৬ অক্টোবর পুরান ঢাকার বড় কাটরায় ইরফানের বাবা সরকারদলীয় সংসদ সদস্য হাজি সেলিমের বাড়িতে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত মাদক রাখার দায়ে ইরফানকে এক বছর কারাদন্ড ও অবৈধ ওয়াকিটকি রাখার কারণে ছয় মাসের কারাদন্ড দেন। ইরফানের দেহরক্ষী জাহিদুলকে ওয়াকিটকি বহন করার দায়ে ছয় মাস সাজা দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া বাসা থেকে অস্ত্র ও মাদক উদ্ধারের ঘটনায় ইরফান ও জাহিদুলের বিরুদ্ধে চারটি মামলা করে র‌্যাব। রাজধানীর চকবাজার থানায় মামলাগুলো হয়। ইরফানকে নৈতিক স্খলনজনিত অপরাধ এবং অসদাচরণের অভিযোগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন