ঢাকা মঙ্গলবার, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, ১২ মাঘ ১৪২৭, ১২ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

৯৮ ভাগ মানুষ বিশুদ্ধ পানি পাচ্ছে

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেছেন, বর্তমানে দেশের ৯৮ ভাগ মানুষ বিশুদ্ধ পানি পানের সুযোগ পাচ্ছে। অর্থাৎ শতকরা দুইভাগ মানুষ বিশুদ্ধ পানি পানের সুযোগ হতে বঞ্চিত হচ্ছে। বিশুদ্ধ পানির সুবিধাবঞ্চিত জনগণ দুরবর্তী উৎস থেকে পানি সংগ্রহ করে থাকে।

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে সরকারী দলের সদস্য হাবিবর রহমানের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান তিনি। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে লিখিত প্রশ্নোত্তরে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো ও ইউনিসেফের ২০১৯ সালের প্রতিবেদনের তথ্য তুলে ধরে মন্ত্রী জানান, সরকার সকলের জন্য বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা নিশ্চিত করার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। এ লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। ২১ হাজার ৪৮০ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ৪৭টি প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বিশুদ্ধ পানির উৎস স্থাপন করা হচ্ছে। এসডিজির লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে ২০৩০ সালের মধ্যে পানি সরবরাহ কাভারেজ শতভাগ উন্নীত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে নলক‚পের বিকল্প হিসেবে অন্যান্য পানির উৎস যেমন পাতকুয়া, বৃষ্টির পানি ধারক, পুকুর পাড়ে বালির ফিল্টার ইত্যাদি স্থাপন করা হচ্ছে।

মন্ত্রী আরো জানান, শতভাগ সুপেয় পানি সরবরাহ নিশ্চিত করতে আট হাজার ৮৫০ কোটি ৭৩ লাখ টাকা ব্যয়ে পল্লী এলাকায় উপযোগী প্রায় ৬ লাখ সেফলি ম্যানেজড পানির উৎস স্থাপনের পাশাপাশি শহরের মত গ্রামে পাইপলাইনে প্রদানে ৪৯১টি রুরাল পাইপড ওয়াটার সাপ্লাই স্কিম এবং আট হাজার ৮৩৮টি কমিউনিটি ভিত্তিক পানি সরবরাহ ইউনিট স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। একই প্রশ্নের জবাবে তাজুল ইসলাম জানান, আর্সেনিক ঝুঁকিপূর্ণ ৩১টি জেলার ১১৭ উপজেলার এক হাজার ২৯০টি ইউনিয়নে প্রায় দুই লাখ নিরাপদ পানির উৎস স্থাপনের কাজ চলমান রয়েছে। হাওড় অঞ্চলের ৬টি জেলার ৫৪টি উপজেলার ৩৪০টি ইউনিয়নে নিরাপদ পানি ও স্যানিটেশনের লক্ষ্যে পৃথক একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। এছাড়া নতুন ১০০টি পুকুর খনন ও এক হাজার ৮টি পুকুর পুন:খননের কার্যক্রম চলছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন