ঢাকা সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ০৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ০৭ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

মর্গে নারীদের মৃতদেহ ধর্ষণ: সামাজিক মাধ্যমে তোলপাড়

আবদুল মোমিন | প্রকাশের সময় : ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৭:১৫ পিএম

রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্তের জন্য রাখা মৃত নারীদের ধর্ষণের সংবাদ প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। জঘন্যতম এই ঘটনায় মূলহোতা মুন্না ভগত (২০) নামে এক যুবককে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) গ্রেপ্তারের পর নেট দুনিয়ায় তোলপাড় চলছে। নারীদের মরদেহের সাথে এমন 'যৌন লালসা চরিতার্থ' করার ঘটনায় ব্যাপক ক্ষোভ, নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে। অভিযুক্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছে নেটিজেনরা।

মুন্নাকে বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার করে সিআইডি। সে মর্গের ডোমের সহকারী হিসেবে কাজ করত। সিআইডির ধারণা, অন্তত দেড় বছর ধরে মর্গে আসা নারীদের মরদেহ ধর্ষণ করে আসছিলেন অভিযুক্ত।

এই ঘটনায় ব্যাপক ক্ষোভ জানিয়ে নোমান মোবারক ফেসবুকে লিখেছেন, ‘‘শুধু কি "বিকৃত" এ-ই লোকটি? মানব-ইতিহাসে এমন বিকৃত মানুষ খুব কম আছে, আমার মনে হয়! কিভাবে পারে এমন ঘৃণিত কাজ করতে জানা নাই। এসব শুনলে শরীরের পশম দাঁড়িয়ে যায়। মৃত্যুদন্ড হওয়া প্রয়োজন এই লোকের। যতটা "ধর্ষণ" করেছে সে, ততবার ফাঁসি হওয়া প্রয়োজন তার।’’

হাজী গহর আলী শিকদার লিখেছেন, ‘‘এই পেশায় নারীদের জন্য আলাদা নারী কর্মী নিয়োগ দিতে হবে। দেখা যায় যে, একজন অতি পরহেজগার নারীরও যদি কোনোভাবে অপমৃত্যু হয়ে যায় যে কিনা বেঁচে থাকতে কোনোদিন কোনো পরপুরুষ এর সামনে পড়েনি, তার মৃতদেহটিও এইসকল হায়েনাদের হাতে উলঙ্গ করে সুরতহাল করানো হয় যেটা কোনোভাবেই কাম্য নয়। এর জন্য রাষ্ট্র পরিচালককে পরকালে জবাবদিহি করতে হবে।’’

বোরহান উদ্দীন লিখেছেন, ‘‘অনেক বছর আগে একটা ভিডিও দেখেছি পাকিস্তানের এক লোক এই কাজ করে ধরা পড়ছে , তো ওদের সিআইডি জিজ্ঞাসার ভিডিওটা আপলোড করছে। আজব হয়ে গেলাম আমাদের দেশেও এতো ভয়ানক খারাপ লোক আছে, ভাবতেই গা হিম হয়ে গেছে। কিভাবে সম্ভব একটা মানুষ এতো ভয়ংকর, মাথায় আসে না। কি করা উচিত এই অমানুষ জানোয়ারকে।’’

আতিকুর রহমান লিখেছেন, ‘‘এই ২০ বছরের ছেলেকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের শাস্তি দাবি করছি। মুন্নাকে ১৭ বছর বয়সে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। ১৭ বছরের ছেলের সামনে প্রতিদিন মৃতদেহ উলঙ্গ করে কাটাছেঁড়া করা হলে মানসিক বিকৃতি ঘটা অস্বাভাবিক নয়। অপরাধীর শাস্তি অবশ্যই হওয়া দরকার। তবে কর্তৃপক্ষ এর দায় এড়াতে পারে না। ১৭ বছরের শিশু শ্রমিক মুন্নাকে এমন কাজে যারা নিয়োগ দিয়েছেন তারাও অপরাধী।’’

নাফিস আদনান লিখেছেন, ‘‘দেশের বিভিন্ন মর্গে লাশ কাটার জন্যে যে ডোমরা থাকে তারা বিকৃত মানষিকতার হয়। শুধু একটা কেস সামনে আসছে সারাদেশে আরো কত মর্গে এরকম কাজ ঘটে না তার কি প্রমাণ আছে? প্রশাসনের এদিকে নজর দেওয়া উচিত।’’

আশিকুর রহমান লিখেছেন, ‘‘একটা মেয়ে জীবিত থাকতে হায়েনাদের লালসা থেকে বাঁচতে কত যুদ্ধ করতে হয়। কিন্তু মরার পর তো অন্তত শান্তি দিবি? মরেও যদি শান্তি না পায় আর যাবে টা কোথায় খুব কষ্ট লাগে হৃদয়টা ফেটে যায়।’’

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
মোঃ দুলাল মিয়া ২০ নভেম্বর, ২০২০, ৮:৫৬ পিএম says : 0
আসসালামুআলাইকুম অরাহমাতুললাহ অবারাকাতু,আমি আমাদের দেশের সবাইর কাছে অনুরোধ করবে,এই জঘন্যতম খবর গুলি পত্রিকা অথবা কেন অনলাইনে না দেয়ার জন্য। এগুলো এমন অপরাধ তাহা আর কি বলবে কেন বাসায় বলবে,হায়রে আমাদের আল্লাi। আমি পশাসনের নিকট এবং সরকারের নিকট আবেদন করিতেছি এই সমস্ত জঘন্যতম কাজে যারা (জড়িত)(সত্য)হলে এদের ফায়ার করুন ।এইটাতে কারে দোষ থাকবে না। এই গুলো বাহিরে পকাশ করলে দেশের বদনাম এবং যারা সামনের দিনে এই দুনিয়াতে আছে থাকবে এবং আসবে সবাইর জন্য বিরাট সর্ব মসিবত তাই গেপনে তাদের ফায়ার করুন মেরে ফেলুন ।ফাঁসি দরকার নাই তার কারন ফাঁসি দিলে এই জঘন্যতম কাজ দুনিয়াতে হয়ে থাকে সবাই জানবে।যেন এই গুলো সমাজে না জনে তাই করা উচিত।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন