ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪ মাঘ ১৪২৭, ০৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

করোনায় হার মানলেন মহাত্মা গান্ধীর প্রপৌত্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৩ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৯ পিএম

করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন মহাত্মা গান্ধীর প্রপৌত্র সতীশ ধুপেলিয়া। জন্মদিন পালনের তিনদিন পর কোভিডে আক্রান্ত হয়ে মারা যান সতীশ ধুপেলিয়া। গতকাল রবিবার দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গের একটি হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি সূত্রে জানা যায়, প্রায় এক মাস ধরে নিউমোনিয়ায় ভুগছিলেন তিনি। চিকিৎসা চলাকালীন করোনায় আক্রান্ত হন। রোববার সন্ধ্যায় তার হৃদযন্ত্র বন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছেন সতীশের বড় বোন উমা ধুপেলিয়া।
মহাত্মা গান্ধীর ছেলে মণিলাল গান্ধীর তিন সন্তানের মধ্যে একজন ছিলেন সীতা ধৈর্যবালা গান্ধী। শশীকান্ত ধুপেলিয়াকে বিয়ের পর তিনি সাউথ আফ্রিকার ডারবানে চলে যান। তার তিন সন্তানের মধ্যে সতীশ একজন।
সতীশ দীর্ঘদিন সাউথ আফ্রিকার সংবাদমাধ্যমে চিত্রগ্রাহক হিসাবে কাজ করেছেন। এ ছাড়া তিনি কাজ করেছেন গান্ধী ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের হয়েও। ডারবানে মহাত্মা গান্ধীর আদর্শ প্রচার ও সমাজের কাজ করছিলেন তিনি।
বিশিষ্ট সমাজকর্মী হিসেবেই খ্যাতি অর্জন করেন তিনি। সতীশের মৃত্যুর পর উমা ধুপেলিয়া ছাড়াও গান্ধী বংশের আরও এক সন্তান কীর্তি মেনন। তার বাড়ি জোহানেসবার্গে।
দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতি। ১৮৯৩ সালে এখানে এসেছিলেন তিনি। ১৯০৩ থেকে ১৯১৪ পর্যন্ত ছিলেন জোহানেসবার্গে। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বর্ণবিদ্বেষ বিরোধী আন্দোলন শুরু করেছিলেন মহাত্মা গান্ধী। এরপর ভারতে ফিরে নেমে পড়েন সত্যাগ্রহ আন্দোলনে। তবে দ্বিতীয় পুত্র মণিলাল গান্ধী থেকে যান দক্ষিণ আফ্রিকায়। তাঁরই বংশধর ছিলেন সতীশ ধুপেলিয়া।
সতীশ জীবনের একটা বড় অংশ মিডিয়াতে কাজ করেই কাটিয়েছেন। তাঁর ছিল ছবি তোলার নেশা। মিডিয়া জগতে তিনি ভিডিওগ্রাফি ও ফোটোগ্রাফির কাজই করতেন। এছাড়া গান্ধী ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন তিনি। সূত্র : এনডিটিভি

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন