ঢাকা শুক্রবার, ২২ জানুয়ারি ২০২১, ০৮ মাঘ ১৪২৭, ০৮ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ফিলিং স্টেশনে গায়ে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ নভেম্বর, ২০২০, ৭:১৩ পিএম

রাজধানীতে রিয়াদ হোসেন (২০) নামে এক কর্মচারীর শরীরে অকটেন ঢেলে আগুন দিয়েছেন তার সহকর্মীরা। দগ্ধ অবস্থায় তাকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ২৪ (নভেম্বর) ভোর পৌনে ৪টার দিকে শ্যামপুর জুরাইনের সালাউদ্দিন পেট্রোল পাম্পে এ ঘটনা ঘটে।

শ্যামপুর থানার ওসি মো. মফিজুল ইসলাম জানান, এস আহমেদ নামে পেট্টোল পাম্পে ৪ জন অপারেটর রাতে ডিউটিতে ছিলেন। এদের মধ্যে মাহমুদুল হাসান ইমন (২২) নামে এক অপারেটর ঘুমিয়ে পড়েন। পরে রিয়াদ তাকে ডাকতে যান। তিনি না উঠলে সামান্য একটু অকটেক ইমনের গায়ে ছিটিয়ে দেন রিয়াদ। পরে রিয়াদ ঘুম থেকে জেগে আড়াইশ মিলিগ্রামের একটি বোতলে অকটেন ভরে ইমনের গায়ে ঢেলে দেন। পরে ইমন ম্যাচ দিয়ে আগুন ধরিয়ে রিয়াদের গায়ে ছুঁড়ে মারেন। এতে রিয়াদের শরীরে মুহূর্তেই আগুন ধরে যায়। পরে পাম্পের কর্মচারীরা তাকে ভোরেই উদ্ধার করে বার্ন ইনস্টিটিউটে ভর্তি করেন।

ওসি আরো জানান, এই ঘটনায় রিয়াদের বাবা একটি মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় ইমনসহ অপর দুই অপারেটর ফাহাদ আহমেদ পাভেল (২৮) ও শহিদুল ইসলাম রনিকে (১৮) গ্রেফতার করা হয়েছে।

জুরাইন কমিশনার রোডের ১৩২৭/১ নম্বর বাসায় পরিবারের সঙ্গে থাকতো রিয়াদ। তার বাবা ফরিদ মিয়া গাড়িচালক। দুই ভাইয়ের মধ্যে বড় তিনি। চলতি বছর রিয়াদ সিদ্ধেশ্বরী কলেজে অনার্সে ভর্তি হন।

তার বাবা ফরিদ মিয়া জানান, ‘মাসিক ৫ হাজার টাকা বেতনে পার্টটাইম চাকরি হিসেবে চলতি মাসের ৪ তারিখে ওই পাম্পে যোগ দেয় রিয়াদ।

মঙ্গলবার সকাল ৭টার দিকে পাম্পের লোকজন ফোন দিয়ে আমাদের হাসপাতালে আসতে বলেন। এখানে এসে রিয়াদকে দগ্ধ অবস্থায় দেখতে পাই। তার শরীরের ৪০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। বর্তমানে সে আইসিইউতে রয়েছে’।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির এসআই বাচ্চু মিয়া জানান, দগ্ধ ওই ছাত্রের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন