ঢাকা মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ০৫ মাঘ ১৪২৭, ০৫ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

করোনায় বাণিজ্য সচলে ২১ প্রণোদনা প্যাকেজ

ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় তথ্য

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০২ এএম

সরকার দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য সচল রাখতে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার সংবলিত প্রায় ১ দশমিক ২২ লাখ কোটি টাকার ২১টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের দ্রæত বিকাশমান অর্থনীতির জন্য এসব পদক্ষেপ খুবই প্রয়োজন ছিল। সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং দক্ষ ব্যবস্থাপনার কারণে ক্ষয়-ক্ষতি কম হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকায় ওসমানি স্মৃতি মিলনায়তনে অর্থ মন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগ আয়োজিত ‘কোভিড-১৯ মোকাবিলা এবং টেকসই ও অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধারে বাংলাদেশ সরকারের নেওয়া প্রণোদনা প্যাকেজ’ বিষয়ে সিরিজ মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলা হয়।

প্রথম সভার প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয় ‘কর্মসংস্থান টিকিয়ে রাখা এবং অর্থনীতির সামগ্রিক চাহিদা ও সরবরাহ ব্যবস্থা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনা’। অনুষ্ঠানে বিষয়ের ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার।

ম‚ল প্রবন্ধে সিনিয়র সচিব আব্দুর রউফ তালুকদার বলেন, কোভিড-১৯ দক্ষতার সঙ্গে মোকাবিলা করে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশের অর্থনীতি। ব্যবসা-বাণিজ্য সচল রয়েছে। সরকারের প্রচেষ্টায় মানুষ সচেতন হচ্ছে। ফলে পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এবং সার্বিক তত্ত¡াবধানে বাংলাদেশ সফলভাবেই কাজ করে যাচ্ছে। মতবিনিময় সভায় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী বলেন, এ সময়ে দেশের নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের উৎপাদন, সরবরাহ এবং মূল্য স্বাভাবিক রাখতে সরকার সক্ষম হয়েছে। প্রয়োজনে টিসিবি’র মাধ্যমে সাশ্রয়ী মূল্যে খোলাবাজারে পণ্য বিক্রয় করা হয়েছে। ফলে কঠিন পরিস্থিতিতেও দেশে কোনও পণ্যের সংকট হয়নি বা মূল্য বৃদ্ধি ঘটেনি। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, চীনে কোভিড-১৯ শনাক্তের পর মার্চের ৮ তারিখ বাংলাদেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। দেশে ৬৬ দিন সরকারি ছুটি কার্যকর ছিল। প্রয়োজনে সরকার অনেক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। অর্থনীতির ওপর এর ক্ষতিকর প্রভাব কাটিয়ে উঠতে নিতে হয়েছে অনেক পদক্ষেপ। সে কারণে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাÐ সচল রাখা সম্ভব হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। প্যানেল আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত ইতো নাওকি, বাংলাদেশ ও ভুটানে নিযুক্ত বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর মিস মার্সি মিয়াং টেমবোন, বিজিএমই-এর প্রেসিডেন্ট ড. রুবানা হক, সানেম এর নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান, বিআইডিএস-এর সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনিন আহমেদ প্রমূখ। ##

 

 

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
Md Saidur Rahman ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৫ এএম says : 0
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সুন্দর সুন্দর পদক্ষেপ নেন যা দেশ ও জাতির জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু মাঠ পর্যায়ে অনেক ক্ষেত্রে সুষ্ঠ বন্টনের অভাবে, লক্ষ পূরণ এবং সুনাম অর্জন ব্যাহত হয়।
Total Reply(0)
Rakibul Islam Khan Hasib ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৭ এএম says : 0
কবে থেকে দেওয়া হবে ?
Total Reply(0)
Kanti Sen ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৯ এএম says : 0
অভিনন্দন। অনেক পরে হলেও এটি একটা ভালো উদ্যোগ।
Total Reply(0)
সাদ্দাম ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৯ এএম says : 0
বদলে দিচ্ছে , বদলে যাচ্ছে ,বদলে যাবে চিরচেনা বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের মানুষেরা...ভরসা রাখুন পিতার সপ্ন , মাতার হাতে দেশ, পথ হারাবে না বাংলাদেশ ।
Total Reply(0)
Md Nayem ২৭ নভেম্বর, ২০২০, ৩:১৯ এএম says : 0
এতো দিনে ভালো একটা কাজের দিকে নজর দিছে সরকার, ভালো লাগলো শুনে
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন