ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪ মাঘ ১৪২৭, ০৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বন্ধের পথে দিল্লির ৫ প্রবেশপথ

লক্ষাধিক কৃষকের অবরোধ মোদি-অমিত শাহ’র আশ্বাস বিফলে কৃষিনীতি বাতিলে কৃষকরা অনড়

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ১২:০০ এএম

সঙ্ঘাত আরও স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। প্রধানমন্ত্রীর ‘মন কি বাত’ বিদ্রোহী কৃষকদের মন ভেজাতে পারেনি। বরং আন্দোলনের ঝাঁঝ আরো বাড়িয়ে লক্ষাধিক কৃষক দিল্লি প্রবেশের ৫টি পথকে অবরুদ্ধ করতে চলেছেন। সারা ভারত কৃষক সভা (এআইকেএস)সহ আরও কয়েকটি কৃষক সংগঠন এ বিক্ষোভের নেতৃত্বে রয়েছে।
মন কি বাতে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নতুন কৃষি আইনে ভারতীয় কৃষকদের জন্য একটি সুযোগের দরজা খুলে দিয়েছে’। মোদি জানান, কয়েক বছর ধরে কৃষকরা যেসব দাবি করে আসছিল, তা শেষ পর্যন্ত পূরণ হয়েছে। এ আইন কৃষকদের ভালোর জন্য।

আর বিক্ষোভরত লক্ষাধিক কৃষকের দাবি, সরকার নতুন কৃষিনীতি বাতিল করুক ও এমএসপি চালু করুক। তারা আরো জানিয়েছেন, কোনো অবস্থায় ঘেরাও আন্দোলন বন্ধ করা হবে না।
এর আগে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানিয়েছিলেন, বিক্ষোভকারী কৃষকদের সঙ্গে আলোচনা হবে ৩ ডিসেম্বর। সরকার যে জায়গা বরাদ্দ করছে সেখানে হোক অবস্থান বিক্ষোভ। গতকাল রোববার অমিত শাহের আবেদন প্রত্যাখান করেছেন আন্দোলনরত কৃষকরা। তারা জানিয়েছেন, সরকার যদি যন্তর-মন্তরে বিক্ষোভ প্রদর্শনের অনুমতি না দেয় তাহলে দিল্লি সীমান্তেই বিক্ষোভ চলবে।

কৃষিনীতি বাতিল করতেই হবে। এ নীতি কর্পোরেট ব্যবসার সুফল দেবে। কৃষকদের জন্য সর্বনাশ ডেকে এনেছে। মূলত এ দাবিতেই সারা ভারত কৃষক সভার (এআইকেএস) নেতৃত্বে আরও কিছু কৃষক সংগঠনের যে বিক্ষোভ মিছিল চলছে তা দৈর্ঘ্যপ্রস্থে এখন জনসমুদ্র।

একের পর এক রাজ্য থেকে রাজধানীর দিকে হাজার হাজার কৃষকের যাত্রা অব্যাহত আছে। উত্তর প্রদেশ, রাজস্থান, পাঞ্জাব এবং হরিয়ানার সীমানা পার করে দিল্লি ঘেরাও করতে মরিয়া কৃষকরা। মোদি সরকারকে টানা অবরোধে বেঁধে রাখতে অন্তত ছয় মাসের খাবার নিয়ে এসেছেন বলেই জানিয়েছেন বিদ্রোহী কৃষকরা।
দিল্লির দিকে ইতিমধ্যে ঢুকে পড়েছেন বিক্ষুব্ধ কৃষকদের একাংশ। এর ফলে পরিস্থিতি আরও ঘোরতর। কোনো রাজ্যের সীমানায় তাঁদের আটকে রাখা সম্ভব নয়। যদিও হরিয়ানা ও উত্তর প্রদেশ সরকার প্রাথমিকভাবে বিরাট পুলিশি ব্যারিকেড তৈরি করেছিল। সে বাধা উড়িয়েই বিরাট কৃষক বিক্ষোভ যাত্রা চলেছে। এর পরেই বিজেপি শাসিত দুই রাজ্য সরকার হাল ছেড়ে দেয়। তবে হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টার জানিয়েছেন, এ কৃষক বিক্ষোভ সম্প‚র্ণ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে চলছে।

বিরোধী কংগ্রেস, সিপিআইএম, সিপিআইসহ বিভিন্ন বাম দল ও একাধিক বিরোধী দল কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন করেছে। এ আন্দোলনে সামিল এনডিএ জোট ত্যাগ করা শিরোমনি আকালি দল। তারাও সরকারের কৃষি নীতির প্রবল বিরোধিতা করে জোট ছাড়ে।

কেন্দ্রের নতুন কৃষিনীতি প্রত্যাহারের দাবিতে মিছিলের সমর্থনে দেশের অন্যান্য রাজ্যগুলিতেও চলছে কৃষক বিক্ষোভ। বাম কৃষক সংগঠনের পাশাপাশি এতে সামিলার এআইকেএসসিসি, আরকেএমএস, বিকেইউ (রাজেওয়াল), বিকেইউ (চাদুনি)সহ অন্যান্য কৃষক সংগঠন। সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস, এনডিটিভি, কোলকাতা২৪।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (2)
Subur Abdullah ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ১:৪৬ এএম says : 0
চিন্তা কোনো কারন নাই, দাদার দেশে চালু করছে আপনার দেশেও চালু হবে ধয্য সাথে অপেক্ষা করেন,
Total Reply(0)
HK Surzo ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ১:৪৭ এএম says : 0
মিথ্যার দিন ফুরিয়ে এলো
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন