ঢাকা বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ০৬ মাঘ ১৪২৭, ০৬ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

কথিত প্রেমিক ও তার বন্ধুদের হাতে ধর্ষিত সিলেটে এক কিশোরী, আটক ২

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ৩০ নভেম্বর, ২০২০, ৭:১৫ পিএম

সিলেটে কথিত এক প্রেমিক্ও তার বন্ধুদের হাতে ধর্ষনের শিকার হয়েছেন এক কিশোরী এছাড়াও পানির সঙ্গে মিশিয়ে গর্ভ নষ্ট করার ওষুধও খাওয়ানো হয় ওই কিশোরীকে। এ ঘটনায় দুই যুবককে আটক ও কিশোরীকে উদ্ধার করেছে সিলেটের গোয়াইনঘাট সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের একদল পুলিশ।
সূত্র জানায়, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে গত ২০নভেম্বর রাতে গোয়াইনঘাট উপজেলার তোয়াকুল ইউনিয়নের পূর্ব-পেকেরখাল গ্রামের এক কিশোরীকে নিয়ে পালিয়ে যায় জাকির আহমেদ মুহসিন (২৪) নামের এক যুবক। ওইদিন রাত ১০টার দিকে কিশোরীর বাবা-মা মেয়েকে খোঁজে না পেয়ে পরবর্তীতে জানতে পারেন জাকিরের হাত ধরে পালিয়ে গেছে তাদের কিশোরী কন্যা। পরে ওই কিশোরীর পিতা জাকিরকে অভিযুক্ত করে গোয়াইনঘাট থানায় দায়ের করেন একটি অভিযোগ। অভিযোগের ভিত্তিতে গোয়াইনঘাট সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. শফিক ইসলাম খান ওই কিশোরীকে উদ্ধার এবং জাকিরকে গ্রেপ্তারের জন্য গোয়াইনঘাট ও সিলেট সদর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে একাধিক অভিযান চালানো হয়। অবশেষে রোববার (২৯ নভেম্বর) সন্ধ্যার দিকে শাহপরাণ থানাধীন সিলেট শহরতলির কল্লোগ্রাম এলাকা থেকে ওই কিশোরী উদ্ধার করে পুলিশ। এসময় আটক করা হয় শাহপরাণ থানাধীন পীরের চক গ্রামের ফারুক আহমদের পূত্র মো. জাকির হোসেন ও চেরাগ আলীর পূত্র আলী হোসেনকে। ‘নির্যাতিতা’ কিশোরীর নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, জাকিরের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল ওই কিশোরীর। ২০ নভেম্বর রাতে তার বাড়িতে হঠাৎ জাকির উপস্থিত হয়, এরপর বলে তার সঙ্গে পালিয়ে যেতে। পালিয়ে না গেলে আত্মহত্যার হুমকিও দেয় জাকির। পরে ওই কিশোরী ভয় পেয়ে কাউকে না বলে জাকিরের হাত ধরে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। তারপর কিশোরীকে নিয়ে ওইদিন রাতে চেঙ্গেরখাল নদীর পারে জাকির আরো ৪/৫ জন যুবকের সঙ্গে মিলিত হন। জাকির এসময় এই যুবকদের বন্ধু বলে পরিচয় দেন কিশোরীকে। তারপর ওইরাতেই কিশোরীর চোখ বেঁধে বিভিন্ন স্থানে নিয়ে গিয়ে ওরা সবাই পালাক্রমে ধর্ষণ করে। গত ৮ দিনে ওরা সবাই ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে একাধিকবার। এছাড়াও কথিত প্রেমিকও তার বন্ধুরা পানির সঙ্গে মিশিয়ে গর্ভ নষ্ট করার ঔষধ সেবন করান ওই কিশোরীকে। সালুটিকর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, অভিযান চালিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার ও অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে আটকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বল্ওে জানান তিনি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন