ঢাকা রোববার, ২৪ জানুয়ারি ২০২১, ১০ মাঘ ১৪২৭, ১০ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

টিকা বাধ্যতামূলক হবে না

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ ডিসেম্বর, ২০২০, ১২:০১ এএম

যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাসের টিকা ব্যবহারের অনুমোদন পাওয়ার পর সবার জন্য তা বাধ্যতাম‚লক করা হবে না। শুক্রবার ডেলাওয়ারের উইলমিংটনে তিনি একথা বলেছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এখবর জানিয়েছে। জো বাইডেন এমন সময় এই কথা জানালেন যখন দেশটির সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল (সিডিসি) আমেরিকার জনগণকে প্রথমবারের মতো নিজেদের বাড়ি ছাড়া যে কোনও অভ্যন্তরীণ স্থানেও মাস্ক পরার আহবান জানিয়েছে। সিডিসি জানায়, যুক্তরাষ্ট্র উচ্চমাত্রার সংক্রমণ পর্যায়ে পৌছেঁছে। ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে শপথ নেবেন জো বাইডেন। ধারণা করা হচ্ছে, করোনাভাইরাসের উদ্বেগের কারণে তার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠান খুব বড় আকারের হবে না। মার্কিন কোম্পানি ফাইজার ও মডার্না জানিয়েছে, তাদের উদ্ভাবিত করোনা টিকা ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে প্রায় ৯৫ শতাংশ কার্যকর। উভয় কোম্পানিই যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের (এফডিএ) কাছে টিকা ব্যবহারের অনুমতি চেয়েছে। যুক্তরাজ্য প্রথম দেশ হিসেবে ফাইজারের টিকা ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে। উইলমিংটনে বাইডেন বলেছেন, সবার জন্য করোনা টিকা বাধ্যতামূলক করার প্রয়োজন নেই। এর আগে সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাইডেন জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমিয়ে আনতে আমেরিকার জনগণকে তার দায়িত্ব গ্রহণের ১০০ দিন মাস্ক পরার জন্য বলবেন। তিনি বলেন, বলেন, দায়িত্ব গ্রহণের প্রথম দিনে আমি সবাইকে বলবো- আপনার সবাই ১০০ দিনের জন্য মাস্ক পরে থাকুন, সারা জীবনের জন্য নয়, মাত্র ১০০ দিনের জন্য। অপর এক খবরে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন মনে করেন, পরমাণু বিজ্ঞানী মোহসেন ফাখরিজাদে হত্যাকান্ড ইরানের সঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লেনদেন বা বোঝাপড়াকে আরও জটিল করবে বলে। তবে তিনি বলতে পারছেন না তা কতটা জটিল হবে। সিএনএন টিভি চ্যানেলকে প্রদত্ত সাক্ষাৎকারে বাইডেন বলেছেন, এটা বলা কঠিন যে এই হত্যাকান্ড তেহরানের সঙ্গে তার লেনদেন বা বোঝাপড়াকে কতটুকু জটিল করে তুলবে। বাইডেন আরও বলেন, ইরান ইস্যুতে ট্রাম্পের অনুসৃত নীতি ভুল ছিল। আর এ কারণেই ইরানের পরমাণু সংক্রান্ত জ্ঞান ও সক্ষমতা বেড়েছে। বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট থাকাকালে ইরানের সঙ্গে ছয় জাতিগোষ্ঠীর পরমাণু সমঝোতা হয়। পরে ট্রাম্প ক্ষমতায় এসে ওই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যান এবং ইরানের বিরুদ্ধে একের পর এক কঠোর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে থাকেন। এদিকে পরমাণু সমঝোতা চুক্তি নিয়ে জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেইকো মাস ফের ইরানকে আলোচনায় ফেরার কথা বলার পর দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ বলেন, তার দেশকে লেকচার দেয়ার আগে ইউরোপকে আগে আচরণ পরিবর্তন করতে হবে। এদিকে হেইকো মাস বলেন, ইরানের হাতে কোন পরমাণু অস্ত্র বা কোনো ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি থাকবে না। ইরানের এ ধরনের কর্মসূচি পুরো অঞ্চলকে ঝুঁকির মুখে ফেলেছে বলে তিনি দাবি করেন। পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য অঞ্চলে ইরানের ভূমিকায় পরিবর্তন আনার তাগিদ দেন। ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইউরোপের দেশগুলোর উচিত প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প পরমাণু চুক্তি থেকে বের হয়ে যাওয়ার ব্যাপারে তাদের ব্যর্থতা পর্যালোচনা করা। পারস্য উপসাগরীয় অঞ্চলে হাজার হাজার কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি বন্ধ করার কথাও তখন বলেন জারিফ। বিবিসি, রয়টার্স, সিএনএন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন