ঢাকা বুধবার, ২০ জানুয়ারি ২০২১, ০৬ মাঘ ১৪২৭, ০৬ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

চীনা ভ্যাকসিনে আস্থা বাহরাইন ও ইউএই’র

আঞ্চলিক আধিপত্যের রাজনীতি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ জানুয়ারি, ২০২১, ১২:০৪ এএম

সংযুক্ত আরব আমিরাত বা ইউএই’র দুবাই মাথাপিছু করোনা ভ্যাকসিন প্রয়োগের ক্ষেত্রে বিশ্বের দ্বিতীয় স্থানে অবস্থান করছে। গেল ১৩ জানুয়ারির মধ্যে দুবাই তার প্রতি ১শ’ বাসিন্দার মধ্যে প্রায় ১৩ ডোজ ভ্যাকসিন সরবরাহ করে ইসরাইলকেও পেছনে ফেলে দিয়েছে। যেহেতু করোনা ভ্যাকসিন দুটি করে ডোজ দেয়ার প্রয়োজন হয়, তাই শহরটিতে সম্পূর্ণভাবে ভ্যাকসিনপ্রাপ্ত মানুষের সংখ্যা এখনও কম। তবে, এপ্রিলের মধ্যে দেশের অর্ধেক জনগণকে ভ্যাকসিন প্রদান সম্পন্ন করার লক্ষ্য নিয়েছে সংযুক্ত আরব আমিরাত।

অন্য উপসাগরীয় দেশ বাহরাইন তার প্রতি ১শ’ বাসিন্দার মধ্যে প্রায় ৬ ডোজ করে ভ্যাকসিন বিতরণ করে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। বাহরাইনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ড. ওয়ালিদ খলিফা আল-মানিয়া বলেছেন, ‘আমাদের সবার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণে ব্যবস্থা রয়েছে।’ সম্ভবত বাকি দেশগুলোর তুলনায় বাহরাইন এবং ইএই’র সাফল্যের সবচেয়ে বড় রহস্যটি হল, তারা চীনের রাষ্ট্রীয় সংস্থা সিনোফার্মের তৈরি একটি ভ্যাকসিনের উপর আস্থা স্থাপন করেছে।

প্রথম থেকেই তারা চীনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে, যা অন্য দেশগুলোর অনাস্থার মুখোমুখি হয়েছিল। এ পদক্ষেপ তাদের হার্ড ইমিউনিটি অর্জন তরান্বিত করেছে। পাশাপাশি, এটি একটি উচ্চাভিলাষী ভ্যাকসিন ক‚টনীতির বেশে চীনের সাথে ইউএই’র সম্পর্ক আরও গভীর করার এবং ইউএইকে একটি আঞ্চলিক শক্তি হিসাবে অবস্থান জোরদার করার জন্য রাজনৈতিক সুবিধাও প্রদান করবে। ইউএই’র গৃহীত বিবিআইবিপি-কোরভি নামক ভ্যাকসিনটি সিনোফার্মের উৎপাদিত দু’টি ভ্যাকসিনের অন্যতম। চীনা ভ্যাকসিন গ্রহণ করা উল্লেখযোগ্য সংখ্যক আমিরাতি কর্মকর্তার মধ্যে দেশটির স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক অনলাইনে নিজেদের ভ্যাকসিন গ্রহণকালীন ছবিও পোস্ট করেছেন।

করোনা মহামারিতে ইউএইতে এ পর্যন্ত ৭শ’ ২৩ জন এবং বাহরাইনে ৩শ’ ৫৬ জন প্রাণ হারিয়েছে, যা (জনসংখ্যার অংশ হিসাবে) পশ্চিম এবং আরব বিশ্ব উভয় দেশগুলোর করোনা সংক্রান্ত মৃত্যুর তুলনায় ইতিবাচক। তাদের নমুনা পরীক্ষা ব্যাপক এবং দ্রæত। ইউএই রাজধানী আবুধাবিকে মধ্যপ্রাচ্য জুড়ে ভ্যাকসিন বিতরণের কেন্দ্রস্থল বানানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে।

দেশটি ভ্যাকসিন মজুদকরণ সুবিধা চালু করেছে এবং সুইস ফার্ম স্কাইসেলের সাথে অংশীদারিত্বে শীততাপ নিয়ন্ত্রিত শিপিং কন্টেইনার তৈরি করছে, যেগুলো পরিবহনের সময় ভ্যাকসিনকে শীতল রাখবে। দুবাইয়ের আমিরাত বিমান সংস্থা ফাইজারের সাথে ভ্যাকসিন বিতরণে কাজ করছে। পাশাপাশি, দেশটি রাশিয়ার তৈরি ভ্যাকসিন স্পুতনিক ভি’র পরীক্ষামূলক প্রয়োগও চালিয়ে যাচ্ছে, যা এখন পর্যন্ত রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাাদিমির পুতিনের অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

তবে, এ মুহূর্তে ইউএই’র সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক চীনের সাথে। এ বছরের শেষের দিকে দেশটি চীনের সিনোফার্মের ভ্যাকসিন উৎপাদন শুরু করবে। রাজনীতি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিষয়টি এ অঞ্চলে ভ্যাকসিন ক‚টনীতির সম্ভাবনাকে জোরালো করেছে, যেখানে মিসরের ১ কোটি লোকের জন্য পর্যাপ্ত ভ্যাকসিন দরকার, যা পুরো উপসাগরীয় জনসংখ্যার দ্বিগুণ এবং কার্যকরভাবে দেউলিয়া লেবানন আগামী মাসে ফাইজারের কাছ থেকে মাত্র ৬০ হাজার ডোজ ভ্যাকসিনের প্রত্যাশা করছে। এ পরিস্থিতিতে ইউএই’র সিনোফার্ম ভ্যাকসিনের উদ্বৃত্ত মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে ব্যাপকভাবে গৃহীত হতে পারে।

গত ডিসেম্বরে ইউএই সরকার মিসরে এক লাখ ডোজ অনুদান দিয়েছে। এটি চীনকে খুশি করবে এবং আমিরাতীদেরকে কাক্সিক্ষত ফল দেবে। পশ্চিমা অংশীদার হিসাবে দীর্ঘকাল ধরে তারা সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আশেপাশের দেশগুলোর সাথে বিশেষ করে চীনের সাথে তাদের সম্পর্কের বৈচিত্র্য আনতে চেয়েছিল। ইতোমধ্যে, ইউএই’র সরকারি টেলিকম সংস্থাগুলো আমেরিকার কালো তালিকাভুক্ত চীনের হুয়াওয়েইর সাথে ৫জি চুক্তি করেছে। লিবিয়ার হামলায় ইউএই চীনা তৈরি ড্রোন ব্যবহারের মাধ্যমে ইউএই’র সাথে চীনের সামরিক সম্পর্কও ক্রমেই জোরদার হচ্ছে। পাশাপাশি, সিনোফার্মের সাথে ঘনিষ্ঠতা তাদের সম্পর্ক আরও বলিষ্ঠ করবে। সূত্র : দ্য ইকোনোমিস্ট।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন