ঢাকা বুধবার, ১৪ এপ্রিল ২০২১, ০১ ব্শৈাখ ১৪২৮, ০১ রমজান ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

সংক্রমণ কমলেও ব্রিটেনে স্কুল বন্ধ থাকতে পারে আরো তিন মাস

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জানুয়ারি, ২০২১, ১২:০১ এএম

ব্রিটেনে ইস্টার ছুটির দিন পর্যন্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার শঙ্কা বাড়ছে, যার অর্থ শিশুরা ক্লাসরুম থেকে দূরে কাটাবে আরো তিন মাস। বরিস জনসন করোনা সংক্রমণ রোধে প্রথম দিকে সময় বাড়িয়ে ফেব্রæয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত স্কুলগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছিলেন, কিন্তু তারপর লকডাউন বিধিনিষেধ না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। মন্ত্রীরা গত মঙ্গলবার ইঙ্গিত দেন যে, লকডাউন ও নিষেধাজ্ঞা মার্চের শুরুর দিক থেকে ধীরে ধীরে তুলে নেয়া হবে।

বিদ্যালয়গুলো আবার চালু হবে কিনা জানতে চাইলে স্বাস্থ্য সচিব ম্যাট হ্যানকক বলেছেন: ‘আমাদের পরিসংখ্যানগুলোতে নজর রাখতে হবে’। তিনি আরো যোগ করেন, এটি মৃত্যুর সংখ্যা এবং ন্যাশনাল হেলথ সার্ভিসের চাপের ওপর নির্ভর করে। হ্যাঁ, ভ্যাকসিন রোলআউট পরিকল্পনা অনুযায়ী হবে এবং কোনও নতুন প্রক্রিয়া নেই।

একটি বড় একাডেমি চেইনের নেতা বলেছেন, বাস্তবতা হ’ল, স্কুলগুলো এপ্রিলের শুরুর ইস্টার হলিডে পর্যন্ত বেশিরভাগ শিশুর জন্য বন্ধ থাকবে। ব্রিটেনজুড়ে ৪৮টি স্কুল পরিচালনাকারী ওয়াসিস একাডেমি চেইনের প্রধান স্টিভ চালকে বলেন: ‘আমি মনে করি না ইস্টার শেষ না হওয়া পর্যন্ত স্কুলগুলো আবার চালু হবে। ‘আমি মনে করি, তারা দ্বিতীয়ার্ধের মেয়াদও মিস করবে’। তিনি আরো যোগ করেন, অনেক শিক্ষক স্কুলে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হওয়া নিয়ে উদ্বিগ্ন এবং আবহাওয়া উষ্ণ হলে এবং শিশুদের বাইরে নিয়ে যেতে পারলে তারা ক্লাসরুমে ‘নিরাপদ’ এবং ‘আরও আত্মবিশ্বাসী’ বোধ করবেন।

সোমবার ডাউনিং স্ট্রিটের করোনাভাইরাস ব্রিফিংয়ে বক্তব্য রেখে মি. হ্যানকক মার্চ মাসে স্কুল পুনরায় চালু হওয়ার সম্ভাবনা সম্পর্কে বলেন: ‘আমরা উপাত্তে দেখতে পেয়েছি এবং প্রধানমন্ত্রী যখন জাতীয় লকডাউন ঘোষণা করেন, তখন তিনি চারটি বিষয় বিবেচনা করেছিলেন:
‘আমরা মৃত্যুর সংখ্যা কমতে দেখতে চাই এবং দুঃখের বিষয়, আমরা এখনও তা দেখিনি, এনএইচএসের উপর চাপ কমাতে আমাদের স্পষ্টভাবে দেখতে হবে এবং যেমন আপনি প্রফেসর পাওয়িসের কাছ থেকে শুনেছেন, আমরা তা এখনও দেখছি না। ‘আমাদের অবশ্যই দেখতে হবে টিকা কর্মসূচি কাজ করছে এবং রোলআউটটি সত্যই ভাল চলছে, এটি স্পষ্টভাবে সঠিক ট্র্যাকে রয়েছে। জীবন রক্ষার অনুশীলনে কাজ করা ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা আমাদের দেখতে হবে, যা আমরা জানি এটি ক্লিনিকাল ট্রায়াল থেকে হবে, তবে আমি দেখতে চাই যে এটি আসলে বাস্তবে ঘটছে। ‘চতুর্থ বিবেচ্য হ’ল, ডিসেম্বরে আমরা নতুন রূপ আবিষ্কার করলাম যা অনেক সমস্যার সৃষ্টি করেছিল এবং এর অর্থ হল যে, পুরানো ত্রি-স্তরযুক্ত সিস্টেম কাজ করা বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা সবসময় নতুন রূপ পর্যবেক্ষণ করি এবং যেমন আপনি জানেন, আমরা বিদেশে সন্ধান করা নতুন রূপগুলো থেকে ব্রিটেনকে রক্ষার জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ এবং দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছি’।

জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ডের জাতীয় সংক্রমণ পরিষেবা (পিএইচই)-এর উপ-পরিচালক ডা. সুসান হপকিন্স যোগ করেন: ‘আমরা প্রতিদিন তথ্য-উপাত্ত পর্যবেক্ষণ করি এবং কখন এবং কী কী ঘটতে পারে এ বিষয়টি পর্যালোচনা করি। ‘বিদ্যালয়ের দৃষ্টিতে আমরা সবসময় বলেছি যে, স্কুলগুলো সবার শেষে বন্ধ হওয়া এবং সবার আগে খোলা উচিত, তবে আমি মনে করি যে, পরবর্তী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে কী ঘটে যায় তা না দেখা পর্যন্ত তার চেয়ে বেশি সুনির্দিষ্ট তারিখ দেয়া খুব কঠিন।

‘শিক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান রবার্ট হ্যালফন বলেন: ‘সরকার বলেছিল যে, ফেব্রুয়ারির অর্ধেক মেয়াদ শেষে স্কুলগুলো আবার চালু হবে। ‘বাচ্চাদের পড়াশোনা, মানসিক স্বাস্থ্য এবং সুরক্ষার স্বার্থে - এ তারিখটি ধরে রাখতে যথাসম্ভব সবকিছু করা উচিত। এ কারণেই মন্ত্রীদের উচিত ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে স্কুলকর্মীদের অগ্রাধিকার দেয়া এবং দেশজুড়ে তাদের মোবাইল ইউনিট পাঠানো’।

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিধিনিষেধ প্রত্যাহার প্রক্রিয়াটি ধীরে ধীরে হবে, কোনও খুঁত রাখা হবে না। মি. জনসন বলেন: ‘আমি পুরোপুরি বুঝতে পেরেছি যে, লোকেরা যতটা সম্ভব স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যেতে চায়। এটি ভালভাবে চলার উপর নির্ভর করে। ‘তিনি পরামর্শ দিয়ে বলেন, বসন্তে বিষয়টি হবে খুব ভিন্ন’। তিনি আরো যোগ করেন, সবকিছু খুব দ্রæত এবং স্বাভাবিকভাবে উন্মুক্ত করা হবে না। তা হবে ধীরে ধীরে।

‘জনস্বাস্থ্য ইংল্যান্ড (পিএইচই) বলেছে, যুক্তরাজ্যে ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত মঙ্গলবার দেশটিতে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ১ হাজার ৬শ’ ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত বছরের মার্চে করোনাভাইরাস মহামারি শুরুর পর এই প্রথম দেশটিতে একদিনে এক হাজার ছয়শ’ লোকের মৃত্যু অতিক্রম করল। যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিভাগ এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। এর আগে গত ১৩ জানুয়ারি সর্বোচ্চ ১ হাজার ৫শ’ ৬৪ জনের মৃত্যু হয়েছিল। সোমবার মৃতের সংখ্যা ছিল ৫শ’ ৯৯ জন এবং রোববার ছিল ৬শ’ ৭১ জন। এ পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা ৯১ হাজার ৪শ’ ৭০ জন। তবে দেশটিতে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ধীরে ধীরে কিছুটা কমতে শুরু করেছে। মঙ্গলবার করোনায় নতুন করে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ৩৩ হাজার ৩৫৫ জন। যা সোমবার ছিল ৩৭ হাজার ৫৩৫ জন। করোনা ঠেকাতে যুক্তরাজ্যজুড়ে ধাপে ধাপে ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। এ পর্যন্ত ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪২ লাখ ৬৬ হাজার ৫৭৭ জন। সূত্র : মেট্রো.সিও.ইউকে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন