ঢাকা বুধবার, ০৩ মার্চ ২০২১, ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭, ১৮ রজব ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

বিপুল ভোটে চট্টগ্রামের নতুন মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী

চট্টগ্রাম ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৮:৫৩ এএম

বিপুল ভোটের ব্যবধানে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী এম রেজাউল করিম চৌধুরী। নৌকা প্রতীকে প্রথম নির্বাচনে ভূমিধস বিজয় পেয়ে আগামী পাঁচ বছরের জন্য চট্টগ্রামের নগরপিতার দায়িত্ব নিতে যাচ্ছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিচ্ছন্ন এ রাজনৈতিক নেতা।
তিনি ৩ লাখ ৬৯ হাজার ২৮৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপিডা. শাহাদাত হোসেন পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪২৯ ভোট। নির্বাচন ভোট পড়েছে ২২ শতাংশ।
বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১টায় রেজাউল করিমকে মেয়র পদে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান। তিনি নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়ামে স্থাপিত নির্বাচন কমিশনের অস্থায়ী নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে ফল ঘোষণা করছিলেন। এ সময় সেখানে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী ও সমর্থকরা বিজয় উল্লাসে ফেটে পড়েন।
তবে সেখানে বিএনপির মেয়র প্রার্থী বা তার সমর্থক কাউকে দেখা যায় নি।
রিটার্নিং কর্মকর্তা জানান, চট্টগ্রাম সিটির ১৯ লাখ ৩৮ হাজার ৭০৬ জন ভোটারের মধ্যে নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন ৪ লাখ ৩৬ হাজার ৫৪৩ জন। বৈধ ভোটের সংখ্যা ৪ লাখ ৩৫ হাজার ৪৯০। বাতিল হয়েছে ১ হাজার ৫৩ ভোট। ভোটের শতকরা হার ২২ দশমিক ৫২ শতাংশ।

নির্বাচনের মোট ৭৩৫টি কেন্দ্রের মধ্যে স্থগিত থাকা দু’টি কেন্দ্র বাদে ৭৩৩টি কেন্দ্রের ফলে রেজাউল করিম চৌধুরী নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৩ লাখ ৬৯ হাজার ২৪৮ ভোট, তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন পেয়েছেন ৫২ হাজার ৪৮৯ ভোট। দু’জনের ভোটের ব্যবধান ৩ লাখ ১৬ হাজার ৭৫৯।

মেয়র পদে অন্য প্রার্থীদের মধ্যে মোমবাতি প্রতীক নিয়ে বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের এমএ মতিন পেয়েছেন ২ হাজার ১২৬ ভোট, আম প্রতীক নিয়ে ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) আবুল মনজুর পেয়েছেন ৪ হাজার ৬৫৩ ভোট, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. জান্নাতুল ইসলাম পেয়েছেন ৪ হাজার ৯৮০ভোট, চেয়ার প্রতীক নিয়ে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মুহাম্মদ ওয়াহেদ মুরাদ পেয়েছেন ১ হাজার ১০৯ ভোট ও হাতি প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে খোকন চৌধুরী পেয়েছেন ৮৮৫ ভোট।
এবারের নির্বাচনে ২টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে নির্বাচন হয়নি। এরমধ্যে ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী তারেক সোলেমান সেলিমের মৃত্যুতে ওই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন স্থগিত করে নতুন তফসিল ঘোষণা করা হয়েছে। এ ওয়ার্ডে ভোট হবে আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি। এ ছাড়া ১৮ নম্বর পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন কাউন্সিলর পদপ্রার্থী মো. হারুনুর রশিদ।

এর আগে ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দীন পেয়েছিলেন ৪ লাখ ৭৫ হাজার ৩৬১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক মেয়র এম মনজুর পান ৩ লাখ ৪৮ হাজার ৩৭ ভোট।
চসিকের পঞ্চম নির্বাচিত পরিষদের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের মেয়াদ গত ৫ আগস্ট শেষ হয়। বর্তমানে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজন চসিকের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ফল ঘোষণার সময় জিমনেশমিয়ামে উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও রেজাউল করিম চৌধুরী আসেননি। তার প্রধান নির্বাচনি এজেন্ট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল এসময় উপস্থিত ছিলেন।
সজ্জন রাজনীতিক হিসেবে পরিচিত রেজাউল করিম করিম চৌধুরী একাত্তরের রণাঙ্গনের বীর সেনানী। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে এই প্রথম নির্বাচনে লড়ছেন তিনি।

চট্টগ্রাম নগরীর ভূমিপুত্র রেজাউল করিম। নগরীর ঐতিহ্যবাহী বহদ্দার বাড়ির সন্তান তিনি। ছাত্রলীগের রাজনীতি থেকে উঠে আসা রেজাউল নগর আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ্য যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে আছেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউল করিমের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের শুরু ষাটের দশকে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে যুক্ত হওয়ার মাধ্যমে। ১৯৭২ সালে চট্টগ্রাম কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি হন তিনি। এরপর চট্টগ্রাম জেলা ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক, উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও উত্তর জেলার সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।
পঁচাত্তরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার পর উত্তর জেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়কের দায়িত্ব পালন করেন। যুবলীগের সদস্যও ছিলেন।

আশির দশকে আওয়ামী লীগ ছেড়ে ভিড়েছিলেন মরহুম আব্দুর রাজ্জাকের বাকশালের সঙ্গে। পরে আবার আওয়ামী লীগে ফিরে সাংগঠনিক দক্ষতায় মূলধারায় জায়গা করে নেন। চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক, সাংগঠনিক সম্পাদকও ছিলেন।

বঙ্গবন্ধু হত্যার পর পত্রিকা বের করেছিলেন মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তিকে উজ্জীবিত করতে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে উপজীব্য করে বইও লিখেছেন। চট্টগ্রামের মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব ও কো-চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন রেজাউল করিম।
চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ইতিহাসে মেয়র পদে দায়িত্ব পালন করে গেছেন জাতীয় পার্টির মাহমুদুল ইসলাম চৌধুরী, বিএনপির মীর মো. নাছির উদ্দিন, আওয়ামী লীগের এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী, বিএনপির এম মনজুর আলম ও আওয়ামী লীগের আ জ ম নাছির উদ্দীন। এদের মধ্যে এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী সিটি করপোরেশনের প্রথম নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন। পরপর তিন দফা নির্বাচিত হয়ে তিনি ১৭ বছর দায়িত্ব পালন করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (8)
Alamgir ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৩:৩২ পিএম says : 0
নিশ্চয় আল্লাহ যাকে ইচ্ছা সম্মান দান করেনএবং যার থেকে ইচ্ছা সম্মান কেড়ে নেন।মনে হয়ে ভোটারের সম্মান কেড়ে নিয়েছেন তিনি।
Total Reply(0)
কামাল ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৯:১২ এএম says : 1
আমরা একজন ভাল নগরপিতা পেলাম,।এবার আমাদের দরকার একজন আব্রাহাম লিংকন। যিনি আমাদের দাসত্ব থেকে মুক্তি দেবেন।
Total Reply(0)
কামাল ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ৯:১৭ এএম says : 1
আমরা একজন ভাল নগরপিতা পেলাম,।এবার আমাদের দরকার একজন আব্রাহাম লিংকন। যিনি আমাদের দাসত্ব থেকে মুক্তি দেবেন।
Total Reply(0)
Nannu chowhan ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:৩০ এএম says : 0
It's shame on you, showing the victory sign mr.rezaul karim,⁹ media has shown already how the way your terror group terrorize with help - cooperation with the govrment law enforcer & rigging vote. Its open secret. It's not election it's as like as selection
Total Reply(0)
মোঃ দুলাল মিয়া ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:৩৪ এএম says : 0
খুন করিয়া ক্ষমতা দখল করে দুই আংগুল উঠাইয়া কি লাভ হবে একদিন তার জবাব দিতে হবে।চিরদিন এই দুনিয়াতে চিরস্থায়ী কেউ নয়।
Total Reply(0)
habib ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১০:৫৩ এএম says : 0
Eder abar vote lage na ki?
Total Reply(0)
Mohammed Siddiqui ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:১১ এএম says : 0
জান্নাতুল ইসলাম জানান, ৫০টি কেন্দ্র ঘুরেছি। সব কেন্দ্র থেকে আমাদের এজেন্টদের বের করে দিয়েছে। বারবার নির্বাচন কমিশন এবং প্রশাসনকে ফোন করেও আমরা কোনো প্রতিকার পাইনি। নৌকার এজেন্টরাই ভোট নিয়ন্ত্রণ করেছেন। আর এ কারণে প্রহসনের নির্বাচনের থেকে সরে দাঁড়িয়েছি।
Total Reply(0)
ম নাছিরউদ্দীন শাহ ২৮ জানুয়ারি, ২০২১, ১১:১৮ এএম says : 3
অভিনন্দন বঙ্গবন্ধুর কন‍্যা মাননীয়প্রধান মন্ত্রীকে চট্টগ্রামের মানুষের অভিনন্দন নতুন নগর পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা জনাব রেজাউল করিম চৌধুরী কে। মানুষের জীবন মান উন্নয়ন সত্যিকার নেতৃত্ব প্রতিষ্টা করতে সত্যিকারআদশ‍্যবান সৎত‍্যাগি নেতাদের মুল‍্যায়নের বিশাল নজির স্থাপন করলেন বঙ্গবন্ধুর কন‍্যা মাননীয় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের মানুষের জন্যে সৎ আদশ‍্যবান নেতা কে নগর পিতার উপযুক্ত আসনে বসার সম্মান দিয়েছেন। প্রধান মন্ত্রীর সুচিন্তিত চিন্তার ফসল এইনেতা সুদীর্ঘকালের প্রায় অদ‍্য শতাব্দী বঙ্গবন্ধুর আদশ‍্যের রাজনৈতিক কর্মি ছিলেন জীবনেরশেষ প্রান্তেএসে মর্যাদা ও সম্মানপেলেন চট্টগ্রামের মেয়র হয়ে এককথায় আল্লাহ্ যাকে সম্মানিত মর্যাদাবান করতে চান এভাবেই হয়। আলহামদুলিল্লাহ্। নব নির্বাচিত মেয়র মহোদয় কে শ্রদ্ধা অভিনন্দন সালাম।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন