বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

উন্নয়ন-অগ্রগতি রূপকথাকেও হার মানায়

সংসদে অর্থমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০১ এএম

জাতীয় সংসদে প্রেসিডেন্টের ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১২ বছরে বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন-অগ্রগতি রূপকথাকেও হার মানায়। এতো অল্প সময়ে এতো অগ্রগতি বাংলাদেশকে বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করেছে।
গতকাল সোমবার জাতীয় সংসদে প্রেসিডেন্টের ভাষণের ওপর আলোচনার ১০ম দিন। গত ১৮ জানুয়ারি বছরের প্রথম অধিবেশনের প্রথম দিন প্রেসিডেন্ট সংসদে ভাষণ দেন। গত ১৯ জানুয়ারি চিফ হুইপ নুর- ই- আলম চৌধুরী প্রেসিডেন্টের ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব উত্থাপন করলে সরকারি দলের সদস্য উপাধ্যক্ষ আবদুস শহীদ এ প্রস্তাব সমর্থন করেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকের শুরুতে প্রশ্ন জিজ্ঞাসা উত্তর টেবিলে উপস্থাপন ও ৭১ বিধিতে নোটিশের কার্যক্রম স্থগিত করা হয়।
আলোচনায় অংশ নেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, হুইপ আবু সাইদ আল মাহমুদ স্বপন, বিরোধী দলের চিফ হুইপ মশিউর রহমান রাঙা, সরকারি দলের সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী, আবদুল মজিদ খান, নুরুজ্জামান বিশ্বাস, মোজাফ্ফর হোসেন, কানিজ সুলতানা, জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, বিএনপির হারুনুর রশীদ ও ওয়ার্কার্স পার্টির ফজলে হোসেন বাদশা। আলোচনায় অংশ নিয়ে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেন, প্রেসিডেন্ট তাঁর ভাষণে গত এক যুগে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জাতীয় উন্নয়নে অর্জিত অভূতপূর্ব সাফল্যের চিত্র তুলে ধরার সাথে সাথ ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা তুলে ধরেছেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী পালন ও স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনের এ বছরই সব ঠিক থাকলে বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হবে। বৈশ্বিক মহামারি করোনার এ সময় বিশ্ব অর্থনীতিতে সার্বজনীন মহামন্দা চলছে। এ সময়েও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঠিক ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশের অর্থনীতি সঠিক পথে এগিয়ে চলছে। করোনাকালে অর্থনীতির চাকা সচল ও সাধারণ মানুষের জীবনমান স্বাভাবিক রাখতে তিনি ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকারও বেশী প্রণোদনা দিয়েছেন। এতে অর্থনীতি যেমনি আবার ঘুরে দাঁড়ানো শুরু করেছে, তেমনি দেশের মানুষের জীবন যাত্রাও স্বাভাবিক রয়েছে। তিনি বলেন, করোনার গভীর ক্ষতে বিশ্বের প্রায় সব দেশেরই জিডিপি সংকুচিত হয়েছে। আর জিডিপির প্রবৃদ্ধির দিক থেকে বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শীর্ষে এবং বিশ্বে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে। এ সময়ে দেশের প্ুঁজি বাজারে পুঁজি শতকরা ২৭ ভাগ বেড়েছে। প্রবাস আয় বেড়েছে ৪৩ ভাগ।
আ হ ম মুস্তফা কামাল করোনাপূর্ব সময়ে বর্তমান সরকারের এক যুগে দেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রে দেশের এক অনন্য উচ্চতায় উত্তরণের কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন। তিনি বলেন, আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার কিংবদন্তী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে সব ক্ষেত্রেই এ উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে।এ প্রেক্ষিতে তিনি পদ্মা সেতু, কর্ণফুলি বঙ্গবন্ধু ট্যানেল, মাতারবাড়ি বিদ্যুৎ কেন্দ্র, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ বিভিন্ন মেগা প্রকল্পের উল্লেখ করেন। এ ছাড়া নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন আর্থ-সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের উর্ধ্বগতির কথা তুলে ধরেন। মন্ত্রী বলেন, ২০০৮-৯ অর্থ বছরে দেশের জিডিপি’র আকার ছিল ৯১ বিলিয়নের কিছু বেশী আজ তা দাঁড়িয়েছে ৩৩০ বিলিয়ন ডলারে। ২০৩০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের ২৮তম অর্থনীতির দেশ এবং ২০৩৫ সালে তা হবে ২৫তম।
অর্থ মন্ত্রী বলেন, সরকারের গত এক যুগে এবং বর্তমান করোনার বৈশ্বিক সংকটকালেও সামষ্টিক অর্থনীতির সব সূচকেই উর্ধ্বগতি বজায় রয়েছে। আর এ ধারা অব্যাহত রেখেই শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ সুখী-সমৃদ্ধ, শোষণ ও বৈষম্যমুক্ত ধনী দেশে পরিণত হবে।
আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা বৈশ্বিক মহামারি কভিড-১৯ মোকাবেলায় শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের সাফল্যের কথা তুলে ধরে বলেন, এ মহামারিতে যখন গোটা বিশ্ব পর্যদুস্ত তখন প্রধামন্ত্রীর বলিষ্ট ও দক্ষ নেতৃত্ব এবং সময়োপযোগী পদক্ষেপের ফলে দেশ আবার ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন