ঢাকা রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮, ০৫ রমজান ১৪৪২ হিজরী

প্রবাস জীবন

আমেরিকায় থেকে চাকরি করেন টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৮:৫২ পিএম

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক সহকারী শিক্ষক তিন মাসের ছুটি নিয়ে দেড় বছর আগে আমেরিকায় পারি জমিয়েছেন। টাঙ্গাইলের মির্জাপুরের ওই শিক্ষিকার সাথে যোগাযোগ করতে না পেরে তার বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না উপজেলা শিক্ষা অফিস। আমেরিকায় পারি জমানো ওই শিক্ষিকার নাম তানিয়া রহমান। তিনি মির্জাপুর পৌরসভা এলাকার ২৬ নম্বর বাওয়ার কুমারজানি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিক।

উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্র জানা যায়, তানিয়া রহমান ২০১৯ সালের ৩ জুলাই থেকে ০২ অক্টোবর পর্যন্ত ব্যক্তিগত সমস্যা দেখিয়ে স্কুল থেকে ছুটি নেন। ছুটি নিয়ে তিনি একই বছর ২ জুলাই সপরিবারে আমেরিকায় চলে যান। তারপর থেকে স্কুলের সাথে তার কোনো যোগাযোগ নেই। উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে একাধিকবার এ ব্যাপারে কৈফিয়ত চেয়ে তার ঠিকানায় পত্র পাঠালেও কেউ তা গ্রহণ করেননি। সর্বশেষ তানিয়া রহমানের ঠিকানায় ২৩ জুলাই ২০২০ তারিখে কৈফিয়ত চেয়ে পত্র পাঠায় উপজেলা শিক্ষা অফিস। ওই পত্রটিও কেউ গ্রহণ করেননি। মির্জাপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, সহকারী শিক্ষিকা তানিয়া রহমান তিন মাসের ছুটি নেন। এরপর দীর্ঘদিন তানিয়া রহমান বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকার কারণে এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন তিনি আমেরিকা চলে গেছেন। একাধিকবার পত্র দিয়েও তার কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি। তার বর্তমান অবস্থান সম্পর্কে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। এ ব্যাপারে বাওয়ার কুমারজানী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলুয়ারা বেগমের সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (5)
মোঃ দুলাল মিয়া ১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:০৭ পিএম says : 1
বর্তমানে স্কুল কলেজ ইউনিভার্সিটি সবই বন্ধ যখন খুলবে তখন সে আসবে।সবাইতে চাকরি করতেছে সে কি নাকি বেতন ও সবাই পাইতেছে।তাকে নিয়ে জালাজনতনা কেন।
Total Reply(0)
N Islam ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:৪৮ এএম says : 0
এই ধরনের হাজারো ঘটনা আছে, যারা কর্মস্থলে না থেকেও বেতন-ভাতা সবই উঠিয়ে নিয়েছেন । উনিতো অন্তত: তা করেননি । তাঁকে কর্মচ্যুত করতে তাঁর সাথে যোগাযোগ হতেই হবে, এমন কোন বাধ্যবাধকতা আছে নাকি ? কর্তৃপক্ষের গাফিলতি ওনার উপরে চাপানোর চেষ্টা করছেন কেন প্রতিবেদক ? এখানে প্রতিবেদকের ব্যক্তিগত স্বার্থ আছে বলেই আমার মনে হয় । কারন, দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে এটা কোন অনিয়মের পর্যায়ে পড়েনা ।
Total Reply(0)
Nannu chowhan ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৬:০৮ এএম says : 0
Eai dhoroner ghotona guli ohoroho ghotse tar prodhan karon ghush o rajnitikoroner karone ojoggo o dayitto geanhin lokder niog deowar karone,I dont understand when Bangladesh will be survibe from all those stupid process?
Total Reply(0)
এ,+কে,+এম+জামসেদ ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৩:৫১ পিএম says : 0
স্কুল খুলবে ২ বছর পর। তাই তিনি ২বছর পর আসবেন।
Total Reply(0)
Anwar+Hossain ১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:০৮ পিএম says : 0
যখন স্কুল খুলবে তখন সে ইনস্যা আল্লাহ আসবে .
Total Reply(0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন