বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

ইসলামে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের স্থান নেই : সর্বস্তরে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে

ঢাকাসহ দেশব্যাপী বেফাকের মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত

প্রকাশের সময় : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বেফাক নেতৃবৃন্দ ও প্রখ্যাত ওলামা-মাশায়েখ
স্টাফ রিপোর্টার : সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও নৈরাজ্যের কোনো স্থান ইসলামে নেই। জিহাদের নামে ভ্রান্ত সন্ত্রাসবাদ, নৈরাজ্যবাদ ও জঙ্গিবাদ যে কোনো মূল্যে প্রতিহত করতে হবে। সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও মানুষ হত্যার কোনো বিধান ইসলামে নেই। ইসলাম পবিত্র জিহাদের মাধ্যমে সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, জঙ্গিবাদ ও হত্যাসহ সকল অন্যায় অশান্তি দূর করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করে ছিল। আর ইহাই ছিল রাসূল সা. আদর্শ। ইসলামী জিহাদে নিরীহ মানুষ শিশু-বৃদ্ধ-বৃদ্ধা ও নারী হত্যার কোনো বিধান নেই। বাংলাদেশসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে জিহাদের নামে যারা সন্ত্রাসবাদ চালাচ্ছে তাঁরা অর্থলোভে ভ্রান্তমতবাদী বিশ্বাসী হয়ে জান্নাতে যাওয়ার প্রত্যাশায় এবং দেশকে অকার্যকর করার লক্ষ্যে ইসলামবিরোধী জঙ্গিবাদে সম্পৃক্ত হয়ে মূলত বিপদগামী হচ্ছে। সন্ত্রাস-জঙ্গি ও নৈরাজ্য প্রতিহত করতে হলে এদের মাস্টারমাইন্ড, অর্থদাতা এবং সাহায্যকারীদের চিহ্নিত করে এদের নির্মূলে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে এবং এদের পিছনে যারা ষড়যন্ত্র করছে তাদের সঠিক তথ্য উদ্ঘাটন করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করতে হবে। সন্ত্রাসবাদ, জঙ্গিবাদ ও নৈরাজ্যবাদ এর মত ভ্রান্ত পথ থেকে অজ্ঞ ও সরল মনা যুবসমাজকে ফেরাতে শিক্ষার সকলস্তরে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে। এভাবে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূল হবে।
বাংলাদেশ কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড (বেফাক) এর উদ্যোগে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ এর বিরুদ্ধে গতকাল ঢাকা সদরঘাট থেকে জয়দেবপুর চৌরাস্তা পর্যন্ত দীর্ঘ ৪০ কি. মি. নিরবচ্ছিন্ন ঐতিহাসিক মানববন্ধনের জাতীয় প্রেসক্লাব পয়েন্টে সমবেত সহস্রাধিক মাদরাসা ছাত্র-শিক্ষক-ও তওহিদী জনতার উপস্থিতিতে দেশের প্রখ্যাত ওলামায়ে-কেরাম তাদের বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। মানববন্ধনের ৯টি পয়েন্ট সদরঘাট, কাকরাইল মোড়, মালিবাগ, রামপুরা ব্রিজ, নতুনবাজার, কুড়িল বিশ্বরোড, এয়ারপোর্ট ও জয়দেবপুর চৌরাস্তা পয়েন্টে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। এছাড়াও বেফাকের মানববন্ধন কর্মসূচী অনুসরণে দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন পালিত হয়। মূল মানববন্ধন চলাকালে বিভিন্ন সেøাগানে সেøাগানে আকাশ-বাতাশ ছিলো মুখরিত।
বেফাকের সহ-সভাপতি ও ঢাকা মহানগর মানববন্ধন বাস্তবায়ন কমিটি’র আহ্বায়ক আল্লামা নূর হোসেন কাসেমী জাতীয় প্রেস ক্লাব পয়েন্টে সভাপতিত্ব করেন। বেফাকের সহকারী মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক এর পরিচালনায় ঢাকা মহানগর মূলপয়েন্ট বক্তব্য রাখেন বেফকের সিনিয়র সহ-সভাপতি শায়খুল হাদীস আল্লামা আশরাফ আলী মা.দা, বেফাক মহাসচিব মাওলানা আব্দুল জাব্বার জাহানাবাদী, জামিয়া মুহাম্মদিয়া’র প্রিন্সিপাল মাওলানা আবুল কালাম, জামিয়া নূরীয়া কামরাঙ্গীরচর প্রিন্সিপাল মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজী, মাওলানা আব্দুল লতিফ নেজামী, বেফাকের সহকারী পরিচালক মাওলানা জুবায়ের আহমদ চৌধুরী, জামিয়া ইসলামিয়া ইসলামবাগের প্রিন্সিপাল মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মারকাজুল উলুম মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি তৈয়ব হোসাইন, জামিয়া কাসিমিয়ার প্রিন্সিপাল মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব, আল ইহসান মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, জামিয়া মাদানিয়া বারিধারার ভাইস-প্রিন্সিপাল মাওলানা নাজমুল হাসান, আশরাফুল উলুম বরকাটা মারদাসার সদরোল মুদাররিসিন মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, বরকাটা মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা সাইফুল ইসলাম, লালবাগ মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি ফয়জুল্লাহ, জামিয়া দারুল উলুম নতুনবাগের প্রিন্সিপাল মাওলানা মুহিউদ্দীন ইকরাম, জামিয়া ইসলামিয়া ওয়াহিদিয়ার মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন। উপস্থিতি ছিলেন মাওলানা শেখ মুজিবুর রহমান, মাওলানা জসিম উদ্দিন, মাওলানা মুফতি মনির হোসাইন, মাওলানা আহলুল্লাহ ওয়াসেল, মুফতী এবিএম শরীফ উল্লাহ, মাওলানা আরিফুর রহমান, মাওলানা আলতাফ হোসাইন, মাওলানা আজিজুর রহমান হেলাল, মাওলানা তোফায়েল গাজালী, মাওলানা ফয়সাল আহমদ, মুফতি ফখরুল ইসলাম। এছাড়াও ঢাকার বিভিন্ন মাদরাসার দায়িত্বশীলগণ উপস্থিত ছিলেন।
ঢাকা মানববন্ধনে বিভিন্ন পয়েন্টে দায়িত্ব পালন করেন মুফতি নূরুল আমিন, মাওলানা হাবিবুল্লাহ মিয়াজী, মাওলানা আলমগীর, মাওলানা আনোয়ার শাহ, মাওলানা আবু মূসা, মাওলানা আবুল হাসান, মাওলানা মকবুল হুসাইন, মাওলানা লোকমান মাজহারী, মাওলানা আব্দুল কাইয়ূম, মাওলানা মুহাম্মদ শফী, মাওলানা আনিসুর রহমান, মুফতি লেহাজ উদ্দীন ভূইয়া, মাওলানা জাকির হুসাইন প্রমুখ।
এছাড়াও মাওলানা আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে সাভারে, মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরীর নেতৃত্বে নরসিংদীতে, মুফতি আব্দুল কাদেরের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জে, মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফীর নেতৃত্বে হবিগঞ্জে, মাওলানা সেখান্দর আলী ও মাওলানা আব্দুল হক কাউসারী নেতৃত্বে পটুয়াখালীতে, মাওলানা উসমান গণীর নেতৃত্বে ঝিনাইদহে, মাওলানা আনোয়ারুল করিমের নেতৃত্বে যশোরে, মাওলানা আব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুরের নেতৃত্বে মুন্সিগঞ্জে, মাওলানা আব্দুল বারী ধর্মপুরীর নেতৃত্বে মৌলভীবাজারে, মাওলানা আনোয়ার শাহ এর নেতৃত্বে কিশোরগঞ্জে, মাওলানা আব্দুল রহমান হাফেজ্জি ও মাওলানা আব্দুল হক এর নেতৃত্বে ময়মনসিংহে, মাওলানা শাহাদাত হুসাইনের নেতৃত্বে রাজশাহীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী সভাপতির বক্তব্যে বলেন, সন্ত্রাসের সাথে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। যারা সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ করে তাদের ইহকাল ও পরকাল বরবাদ। এরা ইহুদীবাদী সাম্রাজ্যবাদীদের এজেন্টে। তিনি বলেন, ইসলামের চিন্তা-চেতনা বাস্তবায়িত হলে সন্ত্রাসবাদ দূর হবে। তাই শিক্ষা সকলস্তরে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে। দেশ ও মানুষের ক্ষতি হয় এমন কাজ ইসলামের শিক্ষায় শিক্ষিতরা করতে পারে না।
আল্লামা আশরাফ আলী বলেন, ইসলামী শিক্ষা, মানবতা ও দয়া-মায়া শিক্ষা দেয়। ইসলামী শিক্ষা থাকলে সন্ত্রাস ও জঙ্গি, নৈরাজ্য থাকতে পারে না। একমাত্র ইসলামী শিক্ষা দিয়েই সন্ত্রাস, জঙ্গি ও নৈরাজ্যবাদ নির্মূল করা সম্ভব।
মাওলানা আব্দুল জব্বার জাহানাবাদী বলেন, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সৃষ্টি হয়েছে ধর্মহীনতা থেকে। শিক্ষার সর্বক্ষেত্রে ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূল করেই সন্ত্রাস দমন করা সম্ভব। যারা কওমি মাদরাসা ও ওলামায়ে কেরামগণের মাঝে জঙ্গিবাদ খুঁজে তারা মূলত বোকারস্বর্গে বাস করছে। আজকের মানববন্ধন তারই প্রমাণ করে।
মাওলানা আবুল কালাম বলেন, আজকের ঐতিহাসিক শান্তিপূর্ণ মানববন্ধন আবার প্রমাণ করল কওমি মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষক ও আলেম ওলামারা কোন ধরনের জঙ্গিবাদের সাথে সম্পৃক্ত নয়। বরং শান্তি প্রতিষ্ঠায় সর্বদা স্বোচ্ছার ছিল, আছে, থাকবে।
মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী বলেন, পবিত্র কুরআনের ফর্মূলা অনুযায়ী কাজ করলে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ থাকবে না। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ নির্মূলে সরকারকে পবিত্র কুরআন অনুসরণ করে শিক্ষা ব্যবস্থায় তা বাস্তবায়ন করতে হবে।
চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়
ইসলামের নামে গুলশান, শোলাকিয়াসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিদেশি, অমুসলিম ও ধর্মীয় ব্যক্তিত্বদের টার্গেট করে একের পর এক নৃশংস হত্যাকা-সহ সকল প্রকার খুন, গুম, অপহর ও দুর্নীতির প্রতিবাদে বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের (বেফাক) আহ্বানে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী মানববন্ধন করেছে দেশের সবচেয়ে বড় কওমী মাদ্রাসা দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসার ছাত্ররা। প্রখ্যাত মুহাদ্দিস আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী’র নেতৃত্বে হাটহাজারী মাদ্রাসার ছাত্ররা গতকাল (বৃহস্পতিবার) সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত আধঘণ্টাব্যাপী মাদ্রাসার সামনে চট্টগ্রাম-খাগড়াছড়ি সড়কে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে।
মানব বন্ধনে হাটহাজারী মাদ্রাসার ছাত্রদের সাথে শরিক ছিলেন দারুল উলুম হাটহাজারী মাদ্রাসার প্রখ্যাত মুহাদ্দিস ও হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী, হাটহাজারী মাদ্রাসার মুখপত্র মাসিক মুঈনুল ইসলাম পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক মাওলানা মুনির আহমদ, সিনিয়র শিক্ষক মাওলানা নূরুল ইসলাম, মাওলানা রাশেদুল ইসলাম, মাওলানা আবু আহমদ প্রমুখ।
মানব বন্ধনের সময় আল্লামা হাফেজ মুহাম্মদ জুনায়েদ বাবুনগরী বলেন, আমরা সন্ত্রাসবাদ ও ইসলামবিরোধী নাস্তিক্যবাদ কোনোটাই সহ্য করব না। আমরা সন্ত্রাসবাদকে যেমন ঘৃণা করি, প্রত্যাখ্যান করি, প্রতিরোধের ও উৎখাতের আহ্বান জানাই, আমাদের একই অবস্থান ইসলামবিদ্বেষী নাস্তিক্যবাদীদের বিরুদ্ধেও। তিনি বলেন, এখন দ্বিমুখী নীতিতে দেশ পরিচালিত হচ্ছে। একদিকে নাগরিক অধিকার হরণ, ঘুষ-দুর্নীতি ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম, ধর্মের বিরুদ্ধে একের পর এক অব্যাহত আঘাত হেনে মামলাবাজি ও বন্দুকের ভয় দেখিয়ে নাগরিকদের কণ্ঠকে স্তব্ধ করে গভীর ক্ষোভ ও হতাশা তৈরি করা হচ্ছে। অন্যদিকে সন্ত্রাস, বোমাবাজি ও হত্যাকা-ের বিরুদ্ধে নাগরিক প্রতিরোধের কথাও বলা হচ্ছে।
কুমিল্লা থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়ে গতকাল কুমিল্লা নগরীর টাউন হলের সামনে থেকে শুরু হয়ে পূবালী চত্বর, লির্বাটি চত্বর, প্রেসক্লাব মোড়, জিলাস্কুল রোড, শিক্ষাবোর্ড রোড এবং টমছমব্রিজ পর্যন্ত কয়েক হাজার শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের নিয়ে একঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড কুমিল্লা জেলা শাখা। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, কাসেমুল উলুম মাদরাসার ভাইস প্রিন্সিপাল আলহাজ্ব মাওলানা আবদুল কুদ্দুস। রানীরবাজার মাদরাসার মুফতি সুলতান আহমেদ, মাওলানা মনিরুল ইসলাম, মাওলানা তৈয়ব হুসাইন, মাওলানা সারোয়ার ও মাওলানা আবদুল হাকিম প্রমুখ।
ময়মনসিংহে মানববন্ধন
ময়মনসিংহ আঞ্চলিক অফিস জানায়, ময়মনসিংহে প্রায় ৩ কিলোমিটার দীর্ঘ মানববন্ধন করেছে মহানগর কওমী মাদরাসা পরিষদ। গতকাল নগরীর মাসকান্দা এলাকা থেকে মানববন্ধনটি শুরু হয়ে ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড ও গাঙ্গিনারপাড় হয়ে টাউন হল মোড় পর্যন্ত ছিল এর পরিধি।
মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন মাও. আব্দুর রহমান হাফেজ্জি, আব্দুল হক, মাও. খালিদ সাইফুল্লাহ সাদী, মুফতী মুহিবুল্লাহ, মাও. মঞ্জুরুল হক, দেলোয়ার হুসাইন প্রমুখ।
মানিকগঞ্জ জেলা সংবাদদাতা জানান, মানিকগঞ্জে মানববন্ধন করেছে কওমী মাদরাসা শিক্ষক শিক্ষার্থীরা।
মানিকগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে ঘণ্টাব্যাপী
মানববন্ধনে সন্ত্রাসবিরোধী নানা স্লোগানসহ প্ল্যাকার্ড ব্যানার নিয়ে কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনের জেলার ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা অংশ নেয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন মাওলানা ফকরুদ্দিন, আবু হুরাইরা মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল শওকাতুল ইসলাম, মাওলানা আমিনুল ইসলাম, মাওলানা ইসলাম হোসেন, মাওলানা আরিফ হোসেন।
নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা জানান, বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড নেত্রকোনা জেলা শাখার উদ্যোগে গতকাল নেত্রকোনা জামে মসজিদের (বড় মসজিদ) সামনের সড়কে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। এতে বক্তব্য রাখেন মাও. তাহের কাসেমী, মাওঃ আব্দুল কাইয়ুম, হাফেজ মাওঃ দেলোয়ার হোসেন, মাওঃ আব্দুল বারী প্রমুখ।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সংবাদদাতা জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের সামনে গতকাল বাংলাদেশ কওমী মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের উদ্যোগে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। মানববন্ধনে চলাকালে বক্তব্য রাখেন আশেকে এলাহী ইব্রাহিমী, মাওলানা সাজিদুর রহমান, নোমান আল হাবিবী, মারুফ কাসেমী প্রমুখ।
ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা জানান, ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলার প্রায় ৩০টি কওমী মাদরাসার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা একযোগে দেশের জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ঘন্টাব্যাপি এক মানবন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।
বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের উপজেলার বিশ্বরোড মোড় থেকে দক্ষিণ দিকে প্রায় ১ কি.মি. বিস্তৃত এ শান্তিপূর্ণ মানববন্ধনে উপজেলার কওমি মাদরাসাগুলোর সহস্রাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন।
এসময় বক্তব্য রাখেন উপজেলার দাড়িয়ারমাঠ মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আঃ রহিম, মাওলানা শরিফুল ইসলাম, ঈদগাহ মাদরাসার মোহতামিম হাফেজ মাওলানা তলহা, মাওলানা সাইফুল ইসলাম, মুফতি গোলাম কবীর, মুফতি হোসাইন প্রমূখ।
স্টাফ রিপোর্টার, নরসিংদী থেকে জানান, নরসিংদীর সর্বত্র গতকাল সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদবিরোধী বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। হাজার হাজার মাদরাসা শিক্ষক ও ছাত্ররা এই মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছে। বেফাকের নির্বাহীসদস্য মাওলানা ইসমাইল নূরপুরীর নেতৃত্বে মানববন্ধন হয়েছে নরসিংদী প্রেসক্লাবের সামনে, মাওলানা ইলিয়াছ ও মাওলানা আব্দুন নূর’র নেতৃত্বে ভেলানগরে, মাওলানা আব্দুল বারী ও মাওলানা মজিবুর রহমান নোমানীর নেতৃত্বে সাহেপ্রতাব এলাকায় মানববন্ধন হয়েছে। এছাড়া মাধবদীর শেখেরচর, পলাশ সারকারখানা এলাকায়, রায়পুরার শ্রীরামপুর এলাকায়, শিবপুরের ইটাখোলা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এবং মনোহরদীর পৌরসভা থেকে বাসস্ট্যান্ড পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।
মাগুরা জেলা সংবাদদাতা জানান, বেফাক মাগুরা জেলা শাখাার উদ্যোগে গতকাল সকালে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে ও জেলার ৪০টি মাদরাসার প্রায় এক হাজার ছাত্র অংশ নেয়। মানববন্ধন শেষে সংগঠনের মাগুরা জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা আমজাদ হুসাইনের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জাবের বিন মুহসিন, শাহ সাইফুল্লাহসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
রাজাপুর উপজেলা সংবাদদাতা জানান, ঝালকাঠির রাজাপুরে কারীমপুর জামিয়া কুরআনিয়া আবারিয়া কওমী মাদরাসার আয়োজনে জঙ্গিবাদবিরোধী মানববন্ধন করেছে ওই মাদরাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে কাঠাখালি বাজারের ভান্ডারিয়া-রাজাপুর আঞ্চলিক মহাসড়কে অর্ধঘণ্টাব্যাপি অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধনে মাদরাসার সহকারি পরিচালক মাও. হেদায়েতুল্লাহ ফয়েজীর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মুফতি নুমান আজমী, মুফতি ইব্রাহিম ও অহিদুজ্জামান প্রমুখ।
নান্দাইল (ময়মনসিংহ) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গতকাল বৃহষ্পতিবার ময়মনসিংহ কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে উপজেলা চৌরাস্তায় মানববন্ধনে উপজেলার ৪৭টি কওমী মাদরাসার শিক্ষক শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে। জামিয়া গাফুরীয়া ইসলামপুরের মোহাদ্দিস মাও. নূরুল আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন পৌর মেয়র আব্দুছ সাত্তার, মুফতি শফিকুল হামিদী, মুফতি আব্দুল্লাহ নাটোরী, মুফতি কাওসার হাসান প্রমুখ।
মুক্তাগাছা উপজেলা সংবাদদাতা জানান, ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় শতাধিক কওমী মাদরাসার ছাত্র-শিক্ষকরা মিলে দুই কিলোমিটারব্যাপী সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বিরোধী মানববন্ধন করেছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে বৃষ্টি উপেক্ষা করে ময়মনসিংহ-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাশে দাঁড়িয়ে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। এ সময় একাত্বতা প্রকাশ করে সালাহ উদ্দিন আহমেদ মুক্তি এমপি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম শাহরিয়ার শরীফ, বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের মধ্যে মাওলানা ইছাহাক আলী, মাওলানা মুফতি আক্রাম হোসেন, মাওলানা মুফতি আব্দুল হালিম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
হোসেনপুর উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গতকাল হোসেনপুর-কিশোরগঞ্জ মহাসড়কে রামপুর বাজারে, মাদরাসা ও এতিমখানার উদ্যেগে ইসলামের নামে জঙ্গি ও দেশ বিরোধী কর্মকা-ের প্রতিবাদে এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে। এতে বক্তব্য রাখেন রড়পীর আ. কাদির জীলানী রা. মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আরিফুল্লা,মাওলানা নুরুল ইসলাম,মাওলানা শরিফুল ইসলাম,আনোয়ার হোসেন, উপজেলা প্রেসক্লাবের সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন আহমদ প্রমুখ।
সরাইল উপজেলা সংবাদবাদদাতা জানান, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলা কওমী মাদরাসা ঐক্য পরিষদের উদ্যোগে গতকাল মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
উপজেলার প্রধান প্রধান সড়কে মানববন্ধন শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপজেলা কওমী মাদরাসা ঐক্য পরিষদের সভাপতি ও শাহবাজপুর মাদরাসার মোহতামিম হযরত মাওলানা আবু তাহের এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আতিক উল্লা, মাওলানা মিজানুর রহমান, মাওলানা হাফেজ গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ।
বরুড়া (কুমিল্লা) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, বরুড়ায় গতকাল কওমী মাদরাসা সমূহের উদ্যোগে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও নাশকতার বিরুদ্ধে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। বরুড়া মৌলভী বাজার থেকে উপজেলার মেইন ফটক পর্যন্ত প্রায় ২ হাজার শিক্ষার্থী মানববন্ধনে অংশ নেয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বরুড়া পুরাতন মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা নোমান।
বাজিতপুর উপজেলা সংবাদদাতা জানান, গতকাল সকালে আলোছায়া সিনেমা হল চত্বরে বাজিতপুর কওমি মাদরাসার উদ্যেগে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস রিরোধী মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়। মুফতি মাওলানা হাবিবুর রহমানের নেতৃত্বে মানববন্ধনে উপজেলার সকল কওমি মাদরাসার ছাত্র ও শিক্ষকগণ অংশগ্রহণ করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (3)
sajidur ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১০:৩০ এএম says : 0
thanks
Total Reply(0)
Habib ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১০:৩২ এএম says : 0
সর্বস্তরে ইসলামী শিক্ষা বাধ্যতামূলক করতে হবে
Total Reply(0)
শাহজালাল ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ৫:০৪ পিএম says : 0
পবিত্র কুরআনের ফর্মূলা অনুযায়ী কাজ করলে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ থাকবে না।
Total Reply(0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন