ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৯ বৈশাখ ১৪২৮, ০৯ রমজান ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

নিজেদের সম্পদ পরিমাপে কাজ করছে সউদী আরব

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০০ এএম

সউদী আরব তার সম্পদ এবং দায়বদ্ধতার একীভ‚ত ব্যালান্সশিট তৈরিতে কাজ করছে যা বর্তমানে তেলসমৃদ্ধ অর্থনীতির বইগুলো সম্পর্কিত শক্তিশালী সার্বভৌম সম্পদ তহবিলের বিনিয়োগ এবং ঋণসহ সবকিছু অন্তর্ভুক্ত থাকবে। এতে বর্তমানে ‘ব্যালান্স শিট বহিভর্‚ত’ সম্পদ এবং দায় অন্তর্ভুক্ত থাকবে যোগ করে ট্রেজারি বিভাগের এক মুখপাত্র রয়টার্সকে বলেছেন: ‘এ কর্মসূচির মূল লক্ষ্য হ’ল সরকারি ব্যালান্সশিটের এমআরআইয়ের আর্থিক মূল্যকে সমান করা।

সউদী যুবরাজ এবং ডি ফ্যাক্টো রুলার মোহাম্মদ বিন সালমান বিশ্বের শীর্ষ তেল রফতানিকারকের অর্থনীতিকে জীবাশ্ম জ্বালানী থেকে দূরে রাখার লক্ষ্যে সউদী আরবের প্রধান সার্বভৌম সম্পদ তহবিলকে একটি পাবলিক ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডে (পিআইএফ) পরিণত করেছেন। উপসাগরীয় দেশগুলি সাধারণত তাদের মোট ঋণ এবং সম্পদ সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ করে না, তবে পিআইএফ-এর ঝুঁকিপূর্ণ বিনিয়োগের প্রোফাইল এবং রাষ্ট্রীয় তহবিলের বিধান কিছু বিনিয়োগকারীর জন্য এর অস্বচ্ছতাটিকে ইস্যুতে পরিণত করেছে।

‘ফিচের স্বায়ত্তশাসিত দলের পরিচালক কিরজানিস ক্রাস্টিনস বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মতো তরল সম্পদ পুলগুলো থেকে সম্পদের স্থানান্তর কম তরল (এবং কম স্বচ্ছ) পিআইএফ বিনিয়োগ সরকারি খাতের ব্যালান্সশিটের সামগ্রিক ঝুঁকির প্রোফাইলকে বাড়িয়ে তোলে’।

‘ঋণ বিনিয়োগকারীরা পিআইএফ-এর মতো সরকার এবং এর সাথে সম্পর্কিত মূল বিষয়গুলো একই ঝুঁকির প্রতিনিধিত্বকারী হিসাবে দেখবে। সুতরাং বিস্তৃত সউদী কমপ্লেক্সটির অবতারণা এক পর্যায়ে সরকারের নিজস্ব ঋণি ব্যয়কে প্রভাবিত করতে পারে’, -বলেছিলেন তিনি। সরকারি মিডিয়া অফিস মন্তব্য করার অনুরোধে সাড়া দেয়নি।
আরামকো বিলিয়নস : সরকার গত বছরের দ্বিতীয়ার্ধে তথাকথিত সার্বভৌম সম্পদ ও দায়বদ্ধতা ব্যবস্থাপনার (এসএলএম) কাঠামোয় কাজ শুরু করে এবং মুখপাত্র বলেছেন যে, এটি একটি ‘দীর্ঘমেয়াদী প্রকল্প’ যা তার ফলাফল কখন এবং কীভাবে প্রকাশ করা হবে তা নিয়ে এখনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

তিনি প্রকল্পটি বিষয়ে বলেন, ‘আমরা যদি মানদন্ড ব্যবহার করি, আমরা দেখতে পাব যে, স্থিতিশীলতা পর্ব বাস্তবায়নে দেশগুলো কয়েক বছর অপচয় করেছে’। পাবলিক ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের আর্থিক সংস্থানগুলি প্রচুর।

পেট্রোকেমিক্যাল জায়ান্টে পিআইএফের অংশীদারি এবং কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিদেশী রিজার্ভ থেকে ৪০ বিলিয়ন ডলার স্থানান্তরের জন্য সউদী রাষ্ট্রীয় তেল সংস্থা আরামকো প্রত্যাশিত ৭০ বিলিয়ন ডলার দ্বারা তহবিলের সাহায্যে ২০১৫ সালে ১৫০ বিলিয়ন ডলার থেকে ২০২০ সালের মধ্যে এর সম্পদ ৪০০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হয়েছে। এটি ২০১৯ সালে আর্মকো’র প্রাথমিক পাবলিক অফার থেকে প্রায় ৩০ বিলিয়ন ডলার উপার্জনকারীও ছিল।

সূত্র জানিয়েছে, তহবিলটি ২০১৮ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ঋণে ২১ বিলিয়ন ডলার সংগ্রহ করেছে এবং ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি অর্থের একটি নতুন স্থাপনা হবে বলে চ‚ড়ান্ত করছে।

‘সাধারণ’ পথ : সউদীতে তেলসম্পদ থাকা সত্তে¡ও দেশটির যুবা জনগোষ্ঠীর জন্য পর্যাপ্ত কর্মসংস্থান তৈরি পশ্চিমে এমবিএস হিসাবে পরিচিত প্রিন্স মোহাম্মদের অন্যতম বড় চ্যালেঞ্জ।

২০৩০ সালের মধ্যে লাখ লাখ কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং বেকারত্ব ৭ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যে সরকার ২০১৬ সাল থেকে অর্থনৈতিক নীতিমালা চালিয়ে যাচ্ছে। গত বছরের জিডিপির ১২% থেকে ঘাটতি কমিয়ে এ বছরের শেষের দিকে ৪.৯% হ্রাস পেতে রিয়াদ মূলধন ব্যয় কমিয়ে দিয়েছে। সূত্র : রয়টার্স।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (4)
জুয়েল ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৪:১০ এএম says : 0
তারা সম্পদের ব্যালান্সশিট বানাচ্ছে আর সারা বিশ্বে অনেক মানুষ না খেয়ে মারা যাচ্ছে
Total Reply(0)
আরাফাত ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৪:১১ এএম says : 0
সম্পদগুলো ইসলামের জন্য খরচ করুন
Total Reply(0)
Mehedi Hasan Munna ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:০৭ এএম says : 0
সম্পদ পরিমাপ করুন এবং আল্লাহর কাছে হিসাব দেয়ার জন্য প্রস্তুত থাকুন।
Total Reply(0)
মো: শামসুল আলম ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৮:০৯ এএম says : 0
যে দেশে কোন বয়োজ্যেষ্ঠ নারী গৃহে পবিত্র কোরান প্রশিক্ষণ দেয়ার অপরাধে গ্রেফতার হয়, সেখানে এমন প্রত্যাশা না করাই ভালো। ওদের অর্থ যাবে আমেরিকায় প্রভুদের সন্তুষ্ট রাখতে। আর যুবরাজ নিজদেশের বেকার যুবকদেরকে সেখানে বিদেশী পরিচালিত দোকানপাটে অনৈতিক পন্থায় চাকুরী দিবে শুধু বিনা কাজে বেতন পেতে। আর যুব সম্প্রদায় তো মহাখুশী যুবরাজের উপর। ওদিকে কষ্টে উপার্জিত অর্থে গড়ে তোলা দোকানপাট-এর চরম দূরবস্থা; বেচারা বিদশী!
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন