ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ০৯ বৈশাখ ১৪২৮, ০৯ রমজান ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

বাইডেনের নির্দেশে সিরিয়ায় মার্কিন বিমান হামলা, নিহত ১৭

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০০ এএম

সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি ছিল বেশ আলাদা। তিনি রাশিয়ার মতো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শত্রুদের সাথে নমনীয় ছিলেন। আবার ফ্রান্স, কানাডা এবং জার্মানির মতে দীর্ঘদিনের মিত্রদের সাথে সম্পর্ক অনেকটা খারাপ করে ফেলেছিলেন। এ কারণে জো বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণ করার পরে যুক্তরাষ্ট্রের মিত্ররা খুশি হয়েছে। কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো তো বলেও ফেলেছেন যে, ট্রাম্পের সময়ে বিশ্বকে নেতৃত্ব দেয়ার ক্ষমতাই হারিয়ে ফেলেছিল যুক্তরাষ্ট্র।

বাইডেনের ক্ষমতাগ্রহণ যুক্তরাষ্ট্রের শত্রুদের জন্য নিঃসন্দেহে খারাপ সংবাদ। বৃহস্পতিবার রাতে তিনি সিরিয়ায় ইরান সমর্থিত মিলিশিয়াদের বিরুদ্ধে বিমান হামলার নির্দেশ দেন। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএনের খবরে বলা হয়, জো বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতা নেয়ার পর তার নির্দেশে জানামতে এটাই প্রথম হামলা। সিরিয়ায় যে স্থানে মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে রকেট হামলা হয়েছিল, গতকালের ওই হামলা নির্দিষ্ট করে সেই স্থানে চালানো হয়নি। তবে মার্কিন বাহিনীর হামলার স্থানে ইরান-সমর্থিত শিয়া মিলিশিয়ারা সক্রিয় রয়েছেন।
সিরিয়ায় মোতায়েন যৌথ বাহিনীর অংশীদার ও মার্কিন মিত্রদেশগুলোর সঙ্গে পরামর্শ করেই প্রেসিডেন্ট বাইডেন হামলা চালানোর এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এ হামলায় সিরিয়া সীমান্তে ইরান-সমর্থিত কাইতিব হিজবুল্লাহ, কাইতিব সায়েদ আল শুহাদাসহ কয়েকটি মিলিশিয়া গোষ্ঠীর একাধিক স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। মার্কিন বাহিনীর হামলা প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা সদর দপ্তর পেন্টাগনের মুখপাত্র জন কিরবি বলেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেনের নির্দেশনায় হামলাটি চালানো হয়েছে। মার্কিন ও যৌথ বাহিনীর ওপর সম্প্রতি যে রকেট হামলা হয়েছে, তার জবাব দিতেই যে শুধু বাইডেন এটি অনুমোদন দিয়েছেন তা নয়; বরং মার্কিন সেনাদের ওপর হুমকির বিষয়টিকেও মোকাবিলা করতে বলেছেন তিনি।
কিরবি আরও বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বাধীন বহুজাতিক বাহিনীর সদস্যদের রক্ষায় বাইডেন প্রশাসন পদক্ষেপ নেবে-অভিযানের মধ্য দিয়ে এ দ্ব্যর্থহীন বার্তাই পাঠানো হয়েছে। একই সময়ে, আমরা স্বেচ্ছায় কিছু পদক্ষেপ নিয়েছি; সিরিয়ার পূর্বাঞ্চল ও ইরাকের সার্বিক পরিস্থিতি শান্ত করাই যার লক্ষ্য।’ বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, সিরিয়া-যুদ্ধের ওপর নজর রাখা যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক গোষ্ঠী সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলেছে, মার্কিন বাহিনীর হামলায় ইরানপন্থী ১৭ জন মিলিশিয়া নিহত হয়েছেন।
মার্কিন হামলার স্থানকে মিলিশিয়ারা অস্ত্র চোরাচালানের কাজে ব্যবহার করত বলে ধারণা করা হয়ে থাকে। পেন্টাগনের ওই কর্মকর্তা বলেন, ভবিষ্যতে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর হামলা করার সক্ষমতা হ্রাস করা এবং বিদ্রোহীদের সাম্প্রতিক হামলা সম্পর্কে বার্তা পাঠাতেই এ হামলা চালানো হয়েছে। সিরিয়ায় হামলা চালানোর সিদ্ধান্ত প্রশাসনের একেবারে শীর্ষস্থান থেকে নেয়া হয়েছে জানিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের একজন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা বলেন, সেনাবাহিনীর কোনো সুনির্দিষ্ট সুপারিশের ভিত্তিতে এ হামলা করা হয়নি।
বাইডেন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি নিয়ে একটি সমঝোতায় আসার চেষ্টা করছে ওয়াশিংটন ও তেহরান। বৃহস্পতিবারের এই হামলা ইরানের কর্মসূচি নিয়ে চলমান ভঙ্গুর সমঝোতা-প্রক্রিয়াকে জটিল করে তুলবে বলে মনে করা হচ্ছে।
সিরিয়ায় ইরবিল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে ১৫ ফেব্রুয়ারি মার্কিন সেনাদের লক্ষ্য করে চালানো রকেট হামলায় এক বেসামরিক ঠিকাদার, চার মার্কিন ঠিকাদার ও এক মার্কিন কর্মী আহত হন। ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র সাঈদ খাতিবজাদেহ ইরবিলে ১৫ ফেব্রুয়ারির হামলার সঙ্গে তার দেশের কোনো রকম সংশ্লিষ্টতার কথা নাকচ করে দিয়েছিলেন। সিরিয়া-যুদ্ধের ওপর নজর রাখা যুক্তরাজ্যভিত্তিক পর্যবেক্ষক গোষ্ঠী সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস বলেছে, মার্কিন সেনাদের ওপর রকেট হামলার ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্র নির্দিষ্ট করে কোনো গোষ্ঠীকে অভিযুক্ত বা তারা ইরানের সমর্থনপুষ্ট বলে উল্লেখ করেনি। তবে হামলার মধ্য দিয়ে বাইডেন প্রশাসন কাকে অভিযুক্ত করতে চায়, তা স্পষ্ট করে দিয়েছে। সূত্র : পলিটিকাস ইউএসএ।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (7)
মমতাজ আহমেদ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:২৬ এএম says : 0
আমি তো ভালা না, ভালা লইয়াই থাইকো - ট্রাম্প কাক্কু!
Total Reply(0)
Ziaur Rahman ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:২৭ এএম says : 0
আমেরিকার কোন প্রেসিডেন্ট এর দ্বারা বিশ্বের কোন মুসলিম দেশের শান্তি প্রতিষ্ঠা চাওয়া মানে বোকামি ছাড়া আর কিছুই না।।
Total Reply(0)
Mustafa Munna ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৩০ এএম says : 0
অনেকেই বলেছেন ট্রাম্প এর চেয়ে বাইডেন ভালো, ভালো। আজ সেইসব তথাকথিত সুশীলরা কি এগুলো দেখে না? আমাদের গ্রামের ভাষায় একটা প্রবাদ আছে লাল কুকুর শেয়ালের ভাই। এটাই সবসময় প্রমাণিত
Total Reply(0)
Abdullah Al Mamunn ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৩০ এএম says : 0
আজকের পৃথিবীর যত সমস্যা,যত যুদ্ধ,যত সন্ত্রাস,যত মানবাধিকার লংঘন,৫%তার করিতেছে রাশিয়া চীন বাকি ৯৫%ই আমেরিকা গং।
Total Reply(0)
Sajarul Islam Sajib ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৩৮ এএম says : 0
যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি পরিবর্তন হয়না। তাদের নীতি হলো অন্য দেশকে শাসন করতে হবে যে কোনো মূল্য। বাইডেন আসছে এখন তার ব্যতিক্রম হবেনা।
Total Reply(0)
Younus Ali ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৩৮ এএম says : 0
আমেরিকার নেতার পরিবর্তন হয় কিন্তু নীতির নয়।মুসলিম নিধন সহ সারা বিশ্বে মড়লগিরি করাই ওদের তারগেট
Total Reply(0)
পারভেজ ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:৩৩ এএম says : 0
বাইডেন অবশ্য একটা ভাল মনুষ। তবে যারা গনন্ত্যরে বিশ্বাস করেনা তাদের জন্য খারাপ।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন