ঢাকা সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৬ বৈশাখ ১৪২৮, ০৬ রমজান ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

আরব বিশ্বে তুরস্কের প্রভাব জেঁকে বসছে

পুনরুজ্জীবিত অটোমান সাম্রাজ্যের স্বপ্ন

দ্য ইকোনোমিস্ট | প্রকাশের সময় : ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০২ এএম

মধ্যপ্রাচ্যের আধিপত্যের রাজনীতিতে তুরস্ক কোনও নতুন নাম নয়। দেশটির অটোমান সাম্রাজ্য ৫ শ’ বছর ধরে এই অঞ্চল শাসন করেছে। ২০১১ সালের আরব বসন্তে ইসলামীপস্থী আন্দোলন দমিয়ে দেয়ার পর এবং পশ্চিমা শক্তিগুলি এই অঞ্চল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিলে, তুরস্ক অঞ্চলটিতে আরও দৃঢ়ভাবে প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে। তুরস্কের শক্তিশালী নেতা রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান দেশটিকে ইসলামি শাসনের মডেল হিসাবে এবং নিজেকে মুসলিম বিশ্বের নেতা হিসাবে তুলে ধরেন।
গত এক বছরে তুরস্ক উত্তর-পূর্ব সিরিয়াতে ঘাঁটি গেড়েছে, ইরাকের অভ্যন্তরে আক্রমণ করেছে এবং লিবিয়ার গৃহযুদ্ধে হস্তক্ষেপ করেছে। ২০১৬ এর পর থেকে দেশটির সামরিক ব্যয় প্রায় অর্ধেক বেড়ে গেছে। অতি সম্প্রতি তুরস্ক সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিক প্রভাব বিস্তার করতে শুর করেছে, বিশেষত তুর্কি ধারাবাহিক অনুষ্ঠান এবং উন্নয়ন প্রকল্পগুলির মাধ্যমে।

তুরস্ক দীর্ঘদিন ধরে সিরিয়ায় বাশার আল-আসাদের সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করতে বিদ্রোহীদের সমর্থন করেছে। সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলেও দেশটি সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিম অঞ্চলে এখনও তাদের নিয়ন্ত্রণ বজায় রেখেছে। তুরস্ক সেখানে পুলিশদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে, একটি সিভিল সার্ভিসে অর্থায়ন করছে এবং দুর্বল সিরিয়ান পাউন্ডকে তুলনামূলক শক্তিশালী তুর্কি লিরা দিয়ে প্রতিস্থাপন করেছে। সিরিয়ার আজাজের মতো শহরগুলিতে খুব দ্রুত তুর্কি প্রভাব জেঁকে বসেছে। তুরস্ক বর্তমানে তার সীমান্তের ১ শ’ ৪৫ কিলোমিটার দূরে বিস্তৃত সিরিয়ার একটি ৩০ কিলোমিটার গভীর উপত্যকা অধিগ্রহন করে রেখেছে।

এরদোয়ান উত্তর ইরাকের কুর্দি স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলেও পিকেকের বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। তুরস্ক জানিয়েছে যে, তারা এ বছর ইরাক ও সিরিয়ায় ১ হাজার ৪ শ’ কুর্দি যোদ্ধাকে নিষ্ক্রিয় করেছে। অনেকের ধারণা, তুরস্ক ইরাক সীমান্তে বাফার জোন তৈরি করতে চায়, যেমনটি তারা সিরিয়ায় করেছে।
পূর্ব ভ‚মধ্যসাগরে কোন দেশগুলি সমুদ্রের কোন অংশ এবং এর নীচে লুকায়িত গ্যাসক্ষেত্রগুলি নিয়ন্ত্রণ করে তা, নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরে বিতর্ক চলে আসছে। এর্দওয়ান আশঙ্কা করেছিলেন যে মিশর, ইসরায়েল, গ্রীস এবং সাইপ্রাসের একটি জোট তুরস্ককে এই অঞ্চলে অকেজো করে দিতে পারে। তাই গত বছর তিনি লিবিয়ার জাতিসংঘ-সমর্থিত সরকারের সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেন, যা তাদের সমুদ্রসীমা নির্ধারণ করেছে এবং তুরস্ককে গ্রীক সমুদ্রে খনন করার বৈধতা দিয়েছে।

এর বিনিময়ে তুরস্ক লিবিয়ার সরকার এবং তার মিত্রদের কাছে সৈন্য, অস্ত্র, ড্রোন এবং ভাড়াটে বাহিনী সরবরাহ করেছে। তুরস্ক এখন ভূমধ্যসাগরের ৬ শ’ কিলোমিটার অঞ্চল দভল করে রাখা একটি শক্তি দেশ। বর্তমানে তুরস্ক তিউনিসিয়া-লিবিয়া সীমান্তের নিকটবর্তী আল-ওয়াতিয়ায় একটি বিমান ঘাঁটি নিয়ন্ত্রণ করছে। তার নৌবাহিনী লিবিয়ার পশ্চিম উপকূল রক্ষা করছে।
এরদোয়ান অন্যাস্য স্থানেও সক্রিয়। তিনি কাতারে একটি তুর্কি সামরিক ঘাঁটি স্থাপন করেছেন। সউদী আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের (ইউএই) নিষেধাজ্ঞার শিকার কাতার তুরস্কের ইসলামপন্থী আন্দোলনের সহযোগী ও সহযোগী সমর্থক। তিনি ইয়েমেনের গৃহযুদ্ধেও আগ্রহও দেখিয়েছেন। দেশটির নির্বাসিত প্রেসিডেন্ট আবদ রাব্বু মনসুর হাদির পক্ষে যুদ্ধরত ইসলামপন্থীদের জন্য তুরস্কে নিরাপদ আশ্রয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন।

তুরস্ক আশা করছে যে, লোহিত সাগরের ওপাড়ে সুদানে ধ্বংস পাপ্ত অটোমান বন্দর সুকিনের বিকাশ ঘটাবে। তারা সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিশুতে তাদের বৃহত্তম বিদেশী ঘাঁটি স্থাপন করেছে। কাতার তুরস্কে বিনিয়োগের জন্য এগিয়ে এসেছে। এই বছরের শুরুর দিকে দেশটি তুরস্কের সাথে ১৫ বিলিয়ন ডলারের মুদ্রা-অদলবদল চুক্তি করে দুর্বল লিরাকে স্থিতিশীল করতে সহায়তা করেছে। এটি লিবিয়াতে তুরস্কের অর্থায়নে সহায়তা করতে পারে। সেখানে শান্তিকালীন পুনর্গঠন পুনরায় শুরু হলে তুরস্ক নতুন চুক্তি জিতে নিতে পারে বলে আশা করছে।

তুরস্কের আধিপত্য বিস্তার অনেকেরই উদ্বেগের কারণ হয়ে দাড়িয়েছে। মিশর লিবিয়া সীমান্তে তার বাহিনীকে একত্রিত করেছে এবং তুরস্ক আরও অগ্রসর হলে তারা সীমান্ত অতিক্রম করার শপথ করেছে। সউদী আরব এবং ইসলাম বিদ্বেষী ইউএই সম্ভবত মিশরকে সমর্থন দেবে। তাই পরিস্থিতি জটিল হয়ে উঠতে পারে। তবে তুরস্ক নির্ভিকভাবে আরব বিশ্বে তার পদচিহ্নের বিস্তার ঘটাচ্ছে, কূটনীতির চেয়ে শক্তির প্রয়োগ বেশি করছে এবং সমগ্র আরব বিশ্বে প্রভাব বিস্তার করে চলেছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (15)
Asad Mollah ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:০৯ এএম says : 0
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে ধন্যবাদ , সৌদি আরব ও ইসলাম বিদ্বেষী আরব আমিরাতের রাজবংশের পতন হোক , আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি
Total Reply(0)
RuhulAmin37 ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:২৩ এএম says : 1
todr ....... ........... news bad de
Total Reply(0)
Elyas Ahmed ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৪৯ এএম says : 0
Go ahead
Total Reply(0)
Fourkan Hamid ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৫০ এএম says : 0
এশিয়া ইউরোপ আফ্রিকা, ৩ মহাদেশেই ফের পদচিহ্ন এঁকে দিচ্ছে তুরষ্ক। তুর্কি সিরিয়াল দিরিলিস, যার অর্থ পুনরুত্থান, ছেড়ে দিয়ে এরদোয়ান বার্তা দিয়েছেন অনেক আগেই, উসমানিয়া ফিরে আসছে, নতুন রুপে, নব উদ্যমে।
Total Reply(0)
Saeed Md Humayun Kobir ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১:৫১ এএম says : 0
লুজানী চু‌ক্তি শেষ হ‌বে ২০২৩ সা‌লে । আর ২০২৩ সা‌লের প‌রে মজা টের পা‌বে ইহুদীবাদীরা । ওসমানীয়া চড় সবার জন্য অ‌পেক্ষা কর‌ছে । ওসমানীয়রা আর চাই‌তে আ‌রো শ‌ক্তিশালী হ‌য়ে ফি‌রে আস‌ছে ।
Total Reply(0)
MD Akkas ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:১০ এএম says : 0
আমরাও চাই ইসলামী আইন প্রতিষ্ঠিত হোক সারা বিশ্বের সব জায়গায় সবখানে। পরিশেষে এরদোগানের সাফল্য করছি।
Total Reply(1)
jocigov ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৭:৩০ পিএম says : 1
তুরস্ক জিবনে ইসলামি আইন প্রথিস্টা করবেনা।অদের দেশ ইউরোপের মতো বেহায়া।আরব দেশগুলি এখনো ইসলামি আইন মানে।কিন্তু ওদের শাসক গুলি খারাপ।
ওমর ফারুক ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৬:২৫ এএম says : 0
এগিয়ে যাও তুরস্ক ।
Total Reply(0)
taijul+Islam ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৯:০২ এএম says : 0
তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে ধন্যবাদ , সৌদি আরব ও ইসলাম বিদ্বেষী আরব আমিরাতের রাজবংশের পতন হোক , আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি
Total Reply(0)
Shaon Khan ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১০:৪৫ এএম says : 0
আবার ফিরে আসুক সেই খিলাফতকাল, সেই শর্নালী দিন। ইসলামী জাগরণ ✌ সাফার বিজীম, জাফার আল্লাহ্‌
Total Reply(0)
Jack+Ali ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১১:৫২ এএম says : 0
Muslim's are not allow to divide themselves and create so called muslim populated coronaries around world. Muslim are like a single body, if we cut off the head??? then we going to die?? yes... we muslim's are dead body, every body have the right to kill us, rape, us. pushing out muslim from their home land, dropped million million tons of bombs and destroyed whole muslim land: Stern warning from Allah [SWT] regarding unity of Muslim Ummah: Surah 8:Al-Anfal: Ayat: 73.. And those who disbelieve are allies of one another, [and] if you [Muslims of the whole world collectively] do not do so [i.e: become allies, as on united block under one Khalifah] (a chief Muslim ruler for the whole Muslim world) to make victorious Allah’s religion of Islamic Monotheism), there will be Fitnah [war, battles, rape, adultery, fornication, murder, polytheism] and oppression on the earth, and a great mischief and corruption will spread every corner in the world. It has been mentioned in Tafsir At-Tabari, that the best interpretation of this above Verse: [-And those who disbelieve are allies of one another, ] (and) if you (Muslims of the whole world collectively) do not do so (i.e; become allies, as one united block. “That if you do not do what We [Allah] have ordered you to do , [i.e: all of you (Muslims of the whole world] do not become allies as on united block to make Allah’s religion Islam) victorious, there will be a great Fitnah (polytheism, war, battles, killing, robbing, a great mischief, corruption and oppression, adultery, fornications,”) ] And it is Fitnah to have many Khalifahs (Muslim rulers). As it has been mentioned in Sahih Muslim By ‘Arfajah, who said: I heard Allah’s Messenger [SAW] saying: “When you all (Muslims) are united [as one block] under a single Khalifah [chief Muslim ruler] then a man comes up to disintegrate you and separate you into different groups, then kill that man.”
Total Reply(0)
Suffait Ulla ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:০৬ পিএম says : 0
Great movement by Turkey.
Total Reply(0)
AKM Nurul Islam ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:০০ পিএম says : 0
Islam should spread all over the world to curb western supremacy over Muslim countries. Turky should extend her support to liberate PALESTINE.Not only that she should take efforts to establish economic ties with MUSLIM countries around the globe. At the same time provide MILITARY HARDWARE to emerging Muslim countries.
Total Reply(0)
tariqul ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ২:২২ পিএম says : 0
We are with Mr. Erdogan . KSA, UAE , Egypt are enimies of Islam . They are legman of zew . They are one kind of Fasek . Mashallah Mr. Erdodan. Carry on - Hei de. Love to Erdogan & Turkey from Bangladesh.
Total Reply(0)
I love turkey as my country ২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ১২:২৪ এএম says : 0
Ilove turkey as my country
Total Reply(0)
মীর সাব্বির আল মাহমুদ ৪ মার্চ, ২০২১, ৯:২৯ এএম says : 0
Beloved, Brilliant, Brave President Recep Tayyip Erdogan. We feel proud of you. May Allah keep us united.
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন