ঢাকা মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ৩০ চৈত্র ১৪২৭, ২৯ শাবান ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ফিলিস্তিনে যুদ্ধাপরাধে আইসিসির তদন্ত শুরু

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ মার্চ, ২০২১, ৪:১৭ পিএম

আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি ফাতু বেনসুদা


বুধবার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ফিলিস্তিনে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। আইসিসির এই পদক্ষেপকে ফিলিস্তিন স্বাগত জানালেও সমালোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল।

২০১৪ সালের পর থেকে এ পর্যন্ত ২ হাজার ২৫০ জন ফিলিস্তিনি এবং ৭৪ ইসরাইলের নাগরিক নিহত হয়েছেন। ফিলিস্তিনের যারা নিহত হয়েছেন, তাদের অধিকাংশই বেসামরিক নাগরিক এবং ইসরাইলের যারা নিহত হয়েছেন, তাদের অধিকাংশই সেনা। আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি ফাতু বেনসুদা বলেন, ২০১৪ সাল থেকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুজালেম এবং গাজা উপত্যকার যেসব এলাকা ইসরাইল দখল করেছে, সেই সব এলাকা এই তদন্তের আওতায় আনা হবে।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে, আইসিসির এই পদক্ষেপের সমালোচনা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। এ ছাড়া ইসরাইলের প্রতি সমর্থন ব্যক্ত করেছে দেশটি। এ প্রসঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, ‘তদন্তের যে ঘোষণা তা আমরা দৃঢ়ভাবে নাকচ করছি। আইসিসির কৌঁসুলির ঘোষণায় আমরা হতাশ।’ এ ছাড়া ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু এই পদক্ষেপকে ইহুদি বিদ্বেষ বলে আখ্যা দিয়েছেন। আর ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিয়াদ আল-মালিকি বলেন, ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে অপরাধ সংঘটিত হয়েছে ইসরাইলের নেতাদের নেতৃত্বে। এটা এখনো চলছে। এ ছাড়া ফিলিস্তিনের সশস্ত্র সংগঠন হামাস আইসিসির এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে।

এই উদ্যোগ প্রথম নিয়েছিলেন ফাতু বেনসুদা। আগে ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে তিনি বলেছিলেন, পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুজালেম ও গাজা উপত্যকায় যুদ্ধাপরাধ সংঘটিত হয়েছে বা হচ্ছে। ইসরাইলের প্রতিরক্ষা বাহিনী ও ফিলিস্তিনের সশস্ত্র গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ তোলেন তিনি। তিনি সে সময় বলেছিলেন, ফিলিস্তিনে যা ঘটছে, তা তদন্ত না করার কোনো কারণ নেই। তবে ফাতু বেনসুদা প্রথমে আদালতের কাছে আদেশ চান, ফিলিস্তিনের ভূখণ্ডে সম্ভাব্য যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিচার করার এখতিয়ার রয়েছে কি না।

এরপর গত ফেব্রুয়ারির শুরুর দিকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) জানান, ফিলিস্তিন ভূখণ্ডে যেসব অপরাধ সংঘটিত হয়েছে, বিশেষ করে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে বিচারের এখতিয়ার এই আদালতের রয়েছে। এরপর এমন আনুষ্ঠানিক তদন্তের ঘোষণ এল। এই তদন্ত প্রসঙ্গে ফাতু বেনসদা বলেন, তিনি সতর্কতার সঙ্গে সর্বশেষ পাঁচ বছরের ঘটনাগুলো পর্যবেক্ষণ করেছেন। কোনো ধরনের ভয়ভীতি ছাড়া, নিরপেক্ষ এবং স্বাধীনভাবে তদন্তের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। তিনি বলেন, ‘দিন শেষে ফিলিস্তিন ও ইসরাইলের ভুক্তভোগী মানুষেরা আমাদের লক্ষ্য হলো।’ সূত্র: বিবিসি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন