সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫ আশ্বিন ১৪২৮, ১২ সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

নরেন্দ্র মোদির লজ্জা থাকলে বাংলাদেশে আসবেন না

বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দ

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৭ মার্চ, ২০২১, ১২:০০ এএম

ইসলাম ও কুরআনের দুশমন নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশের মানুষ বরণ করতে পারে না। ভারত মুসলমানদের সাথে খেলা শুরু করেছে কখনো মসজিদ ভেঙ্গে, কখনো সীমান্তে বাংলাদেশী নাগরিক হত্যা করে, কখনো পানি বন্ধ করে দিয়ে, কখনো গরুর গোশত খাওয়ার অপরাধে মুসলিম হত্যা করে। মোদির লজ্জা থাকলে বাংলাদেশ সফরে আসবেন না। বাংলাদেশে সফরে আসলে ইসলাম ও মানবতার এই দুশমন মোদিকে সীমান্তে হত্যাকারীদের কঙ্কাল উপহার দেয়া উচিত। বাংলাদেশের জনগণ নরেন্দ্র মোদির আগমন সহ্য করতে পারছেন না। তাই সরকারকে মোদির সফর বাতিল করতে হবে। বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেছেন।

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ : ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের সিনিয়র নায়েবে আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই বলেছেন, ইসলাম ও কুরআনের দুশমন নরেন্দ্র মোদিকে বাংলাদেশের মানুষ বরণ করতে পারে না। ভারত মুসলমানদের সাথে খেলা শুরু করেছে কখনো মসজিদ ভেঙ্গে, কখনো সীমান্তে বাংলাদেশী নাগরিক হত্যা করে, কখনো পানি বন্ধ করে দিয়ে, কখনো গরুর গোশত খাওয়ার অপরাধে মুসলিম হত্যা করে। তিনি বলেন, মোদির লজ্জা থাকলে বাংলাদেশ সফরে আসবেন না। যে দেশের সরকার মুসলমানদের নাগরিক অধিকার হরণ করে ভারত থেকে বিতাড়িত করতে চায়, সেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেদ্র মোদি নব্বই ভাগ মুসলমানের বাংলাদেশে আসবেন কোন মুখে?

গত সোমবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলা পাইকপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে নূরে মদীনা জাহানারা বেগম মহিলা মাদরাসায় আয়োজিত বিশাল ইসলামী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম শায়খে চরমোনাই এসব কথা বলেন। মাওলানা ইউনুছ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে শহরের বরেণ্য ওলামায়ে কেরাম বক্তব্য রাখেন। ইসলামী আন্দোলনের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এতথ্য জানানো হয়। ভারতের উচ্চ আদালতে পবিত্র কোরআনের ২৬টি আয়াত বাতিলের রিট গ্রহণ করায় গভীর উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করে মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ ফয়জুল করীম বলেন, নরেন্দ্র মোদি ভারতের শিয়া ওয়াক্ফ বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান ওয়াসিম রেজভীকে দিয়ে পবিত্র কোরআনের ২৬টি আয়াত বাতিলের রিট করিয়েছেন। অবিলম্বে কোরআনের দুশমন ওয়াসিম রিজভীকে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তি দিতে হবে। তিনি বলেন, নরেন্দ্র মোদি মুসলমানদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। ভরা মওসুমে পানি ছেড়ে দেয়, পানির প্রয়োজনে তা বন্ধ করে দেয়, পেয়াঁজের সঙ্কট হলে রফতানি বন্ধ করে ভরা মওসুমে পেয়াঁজ দেয়। তিনি বলেন, পবিত্র কোরআন শরীফের ২৬টি আয়াতের ওপর আপত্তি তুলে তা পরিবর্তনের আবেদন, ভারতের সুপ্রিমকোর্টে তা গ্রহণ, ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের জিহাদবিরোধী ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য, দেশে ‘আড়ং’সহ বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে দাঁড়ি-টুপি ও হিজাবের বিরুদ্ধে অবস্থান এবং সারা দেশে মসজিদ-মাদরাসার বিরুদ্ধে গভীর ষড়যন্ত্রের কারণে এ দেশের মুসলিম জনতার হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ : জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দ বলেছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এক দিকে যেমন চরম মুসলিমবিদ্বেষী, অপরদিকে তেমনি বাংলাদেশে একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তারকারী। তিনি বাংলাদেশ থেকে শুধু নিয়েই যাচ্ছেন আর দেয়ার বেলায় বারংবার বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে যাচ্ছেন। ভারতের মুসলিম নিধন ও নির্যাতনই যেন তার প্রধানতম এজেন্ডা। সঙ্গত কারণে বাংলাদেশের জনগণ নরেন্দ্র মোদির আগমন সহ্য করতে পারছেন না। তাই সরকারকে মোদির সফর বাতিল করতে হবে। অন্যথায় পরিস্থিতির অবনতি হলে তার দায়ভার সরকারকেই বহন করতে হবে।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল্লামা শায়খ যিয়া উদ্দীন, সহ-সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী, মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা জহীরুল হক্ব ভূঁইয়া,মাওলানা আব্দুল হামীদ পীর সাহেব মধুপুর, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী ও যুগ্মমহাসচিব মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া গতকাল এক যৌথ বিবৃতিতে এসব কথা বলেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, সম্প্রতি এক শিয়া নেতা ভারতের সর্বোচ্চ আদালতে পবিত্র কুরআনের ২৬টি আয়াত বাতিল চেয়ে রিট করায় গোটা মুসলিম বিশ্বে চরম উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। মুসলিমপ্রধান বাংলাদেশের মুসলমানদের হৃদয়েও এই ন্যাক্কারজনক ঘটনায় রক্তক্ষরণ হচ্ছে। মূলত এই রিট মানবতার মুক্তির সনদ মহাগ্রন্থ পবিত্র কোরআনে পরিবর্তন আনার একটি ধৃষ্টতাপূর্ণ অপপ্রয়াস। অবিলম্বে কুখ্যাত এই রিটকারীকে গ্রেফতারপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে।

জাতীয় সংহতি মঞ্চ : স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পরেও সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক আধিপত্য ও আগ্রাসনের যাতাকলে পিষ্ট হচ্ছে জনগণ। আমাদের সীমান্ত নিরাপদ নয়, ফলে সীমান্তে বাংলাদেশের নাগরিকদের অহরহ প্রাণ দিতে হচ্ছে। আমাদের স্বাধীনতা আজ চরমভাবে অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। অভিন্ন নদীর ন্যায্য পানির হিস্যা আদায় করতে পারছে না বাংলাদেশ। ভারতের সাথে বাণিজ্য ঘাটতি কমিয়ে আনতে কোন লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। নরেন্দ্র মোদিও হাত মুসলমানদের রক্তে রঞ্জিত । স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী অনুষ্ঠানে নরেন্দ্র মোদির আগমনকে সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ মেনে নিবে না। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর পুরানা পল্টনের একটি রেস্টুরেন্টে স্বাধীনতা সুবর্ণ জয়ন্তী উপলক্ষে জাতীয় সংহতি মঞ্চের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন। সংগঠনের প্রধান সমন্বয়কারী ও বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির নির্বাহী সভাপতি মাওলানা একে এম আশরাফুল হকের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংহতি মঞ্চের সদস্য সচিব প্রফেসর সিদ্দিকুর রহমান, বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টির চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খান রওনক, বাংলাদেশ আইডিয়েল পার্টির চেয়ারম্যান কে এম ইব্রাহিম খলিল, বাংলাদেশ নেজামে ইসলাম পার্টির সহ-সভাপতি মাওলানা মিজানুর রহমান রাজাপুরী, বিশ্ব মুসলিম পরিষদের মহাসচিব মাওলানা মুমিনুল ইসলাম, আমির হোসেন হিরা, মাওলানা আব্দল্লাহ ও মোহাম্মদ খলিলুর রহমান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
HM Aziz ১৭ মার্চ, ২০২১, ৩:১০ এএম says : 0
মোদি দাঙ্গাবাজ সাম্প্রদায়িক উসকানি দাতা উগ্রবাদী গোষ্ঠীর প্রতিনিধি । সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যাকারী ! কাশ্মীর স্বাধীনতাকামী মুসলিমদের হত্যাকারী ! ..... মোদির আগমণ বাংলাদেশের জনগণ চায়না।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন