সোমবার, ০৮ আগস্ট ২০২২, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৯, ০৯ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

করোনা প্রতিরোধের ক্ষমতা নিয়েই শিশুর জন্ম!

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ এপ্রিল, ২০২১, ৭:২১ পিএম

বর্তমানে করোনার ঝুঁকি হ্রাস করার অন্যতম সেরা উপায় টিকাদান। যে সময়ে দ্বিতীয় তরঙ্গ এবং করোনার বিভিন্ন স্ট্রেন কয়েক মাস বয়সী বাচ্চাদেরও প্রভাবিত করছে, সেই শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি নিয়েই এক শিশু জন্মগ্রহণ করেছে। ওই শিশুর চিকিৎসক মা নিজেই এক টুইটে এই ঘটনা জানিয়েছেন। তার ওই পোস্টটি ভাইরাল হয়েছে।

করোনা প্রতিরোধী ক্ষমতা নিয়ে জন্ম নেয়া ওই শিশুটি এখন অলৌকিক শিশু হয়ে উঠেছে। শিশুটির মা ডক্টর প্রেরণা শ্রেষ্ঠ কিছুদিন আগে করোন ভ্যাকসিন নিয়েছিলেন। বর্তমানে তিনি নিউইয়র্কের স্টোন ব্রুক ডিপার্টমেন্টে নিউরোবায়োলজি অ্যান্ড বিহেভিয়ারে অনুশীলন করছেন। গত শুক্রবার সোশ্যাল মিডিয়া টুইটারে করা এক পোস্টে তিনি বলেন, ‘অন্যান্য খবরের মধ্যে আমি গতকাল জানতে পেরেছিলাম যে, আমার নবজাতকের শরীরে কোভিড স্পাইক প্রোটিনের অ্যান্টিবডি রয়েছে কারণ, আমার গর্ভাবস্থায় আমি টিকা নিয়েছিলাম। বিজ্ঞানের জয়!

বর্তমানে, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনগুলি গর্ভবতী মহিলাদের জন্য পুরোপুরি উপলব্ধ নয় এবং এর জন্য ক্লিনিকাল ট্রায়ালও চলছে। যাইহোক, গর্ভবতী, স্তন্যদানকারী মহিলাদেরকে তাদের সম্মুখের উচ্চ ঝুঁকির কথা ভেবে ভ্যাকসিন নিতে উৎসাহিত করা হয়। বিশ্বজুড়ে কয়েকটি নির্বাচিত জায়গায় গর্ভবতী মহিলারা টিকা নেয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হন। ডক্টর প্রেরণা তার ফলো-আপ টুইটগুলিতে আরও বিশদভাবে জানিয়েছিল যে, ফেব্রুয়ারী মাসে তিনি তার শেষ ত্রৈমাসিকের সময় ফাইজারের ভ্যাকসিনের দুইটি ডোজ পেয়েছিলেন।

এই অবসন্ন সময়ে ইন্টারনেটে অবাক করে দিয়ে ডিফেন্সিভ অ্যান্টিবডি নিয়ে বাচ্চা জন্মানোর খবরটির জন্য অনেকেই নতুন মাকে টিকা দেয়ার সুবিধা সম্পর্কে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য ধন্যবাদ জানায়, আবার অনেকে বিজ্ঞানের অলৌকিক ঘটনাগুলির প্রশংসা করেছেন। গত বছরের ভাইরাসটির প্রথম তরঙ্গের তুলনায় ছোট বাচ্চাদের মধ্যে এই মুহূর্তে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা অভূতপূর্বভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। নবজাতক থেকে শুরু করে পনেরো সপ্তাহের শিশুদের অনেকেই করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে, এমনকি হাসপাতালে ভর্তি হতে হচ্ছে।

প্রেরণা আরও জানিয়েছেন, গর্ভাবস্থায় কোভিড-১৯ টিকা দেয়ার সুবিধার বিষয়টি বোঝার জন্য বেশ কয়েকটি গবেষণা চলছে এবং তিনি অন্যদেরও তা অনুসরণ করার আহ্বান জানান। অন্যান্য কেস স্টাডিতে এও জানা গেছে যে, টিকা নেয়া গর্ভবতী নারীদের জন্ম দেয়া বাচ্চারা কিছু অ্যান্টিবডি পেতে পারে। এই ঘটনা বিশ্বব্যাপী মায়েদের জন্য বাচ্চাদের সুরক্ষিত করার এক ধরণের ‘শক্তি’ দিয়েছে, যতক্ষণ তারা তাদের দুধ খাওয়াচ্ছেন।

আরও দেখা গেছে, যে বাচ্চারা ভ্যাকসিন নেয়ার জন্য অনুমোদিত হয়নি, তাদের মায়ের টিকা দেয়া হলে স্তনের দুধের মাধ্যমে তারা অ্যান্টিবডি পেতে পারে। এই কারণে অনেক নারী বুকের দুধ দান করছেন, যা অন্যান্য বাচ্চাদেরও সুরক্ষা দিতে এবং সংক্রমণের ঝুঁকি প্রতিরোধে ব্যবহার করা যেতে পারে।

ইসরাইলের আরেকটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, মায়ের দুধে ভাইরাল সংক্রমণ রোধ করার ক্ষমতা রয়েছে এবং এটি ভাইরাসের হোস্ট কোষগুলিকে সংক্রামিত করার ক্ষমতা আটকাতে পারে।

চিকিৎসকরা আরও পর্যবেক্ষণ করেছেন যে, প্রাপ্ত বয়স্কদের মতো, মায়েদেরকে ভ্যাকসিন দেয়া হলে শিশু এবং শিশুদের মধ্যে সংক্রমণ এবং তীব্রতার ঝুঁকি হ্রাস পায়। সূত্র: টিওআই।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন