ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ জুন ২০২১, ০১ আষাঢ় ১৪২৮, ০৩ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

ফরিদপুরে বড় ভাইয়ের পিস্তলের গুলিতে ছোট ভাই আহত

ফরিদপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৮ মে, ২০২১, ১১:৩৩ এএম

ফরিদপুরের নগরকান্দায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বড় ভাইয়ের ছোঁড়া অবৈধ পিস্তলের গুলিতে আহত হয়েছে ছোট ভাই। আহত হয়ে ছোট ভাই বর্তমানে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। শুক্রবার (৭ মে) বিকাল ৪ টার দিকে উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের উত্তরকান্দি গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

উপজেলার কাইচাইল ইউনিয়নের উত্তরকান্দি গ্রামের বাসিন্দা নুরুল হক মাতুব্বর (৭৫)- এর চার পুত্র ও তিন কন্যা। বড় ছেলে ফারুক মাতুব্বর (৪১) কাঠের ব্যবসা করেন, মেঝো ছেলে ফরহাদ মাতুব্বর (৩৮) স্থানীয়ভাবে মাদকসেবী ও কারবারি হিসেবে পরিচিত, সেঝো ছেলে ফয়েজ মাতুব্বর (২৭) ভাঙ্গা কেএম কলেজের ছাত্র, আর ছোট ছেলে মাহমুদুল হক জাপানে (২২) পড়ালেখা করছেন। তিন মেয়ের মধ্যে একজনকে বিয়ে দিয়েছেন, অন্য দুইজন পড়ালেখা করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান,বাড়ির পাঁশে মাটিকাটা নিয়ে বড় ভাই ফারুক মাতুব্বরের সাথে ছোট ভাই ফরহাদের কথা কাটাকাটি হয়। এসময় অন্য ভাই ফয়েজ মাতুব্বরসহ পরিবারের সদস্যরা তাদের দুজনের মধ্যে বিবাদ মিটিয়ে দিতে এগিয়ে আসে। হঠাৎ করেই ফরহাদ তার কাছে থাকা অবৈধ পিস্তল দিয়ে গুলি ছুঁড়ে বড় ভাই ফারুক মাতুব্বরের উদ্দেশ্যে। কিন্তু বড় ভাই ফারুক মাতুব্বরের উদ্দেশ্যে ছোড়া গুলি গিয়ে লাগে ছোট ভাই ফয়েজ মাতুব্বরের হাতের কনুইতে।

গুরুতর আহত অবস্থায় পরিবারের সদস্যরা ফয়েজ মাতুব্বরকে পাশের ভাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

পিতা নুরুল হক মাতুব্বর জানান, মেঝো ছেলে ফরহাদের অত্যাচারে আমি ও আমার স্ত্রী বাড়িতে থাকি না। ভাঙ্গায় বাসা ভাড়া করে থাকি। আমাদের সাথে সেঝো ছেলে ফয়েজও থাকে। মেঝো ছেলে মাদকের সাথে জড়িত। অনেক চেষ্টা করেছি তাকে ফেরাতে, কিন্তু পারিনি। তাই বাড়ি থেকে বের হয়ে গিয়ে ভাঙ্গায় ভাড়া বাসায় থাকি।

ভাই ফারুক মাতুব্বর জানান, জুমার নামাজের পর বাড়িতে যাই। সেঝো ভাই ফয়েজও ভাঙ্গা থেকে বাড়িতে আসে। বাড়িতে যাওয়ার পর ফরহাদ জমির মাটি কাটা নিয়ে আমার সাথে দুর্ব্যবহার শুরু করে। আমি প্রতিবাদ করলেই আমার ওপর তেড়ে আসে। ফরহাদের কাছে থাকা পিস্তল দিয়ে গুলি করলে গুলিটি আমার গায়ে না লেগে ফয়েজের হাতের কনুইতে লাগে। আহত অবস্থায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করেছি। সে এখন সুস্থ আছে।

তিনি আরো জানান, দীর্ঘদিন যাবৎ ফরহাদ মাদকের সাথে জড়িত। নিজে খায় এবং বিক্রিও করে থাকে। এ কারণে আব্বা-আম্মা বাড়িতে থাকে না। আমি বাড়িতেই থাকি, কিন্তু ওর সাথে তেমন কথা হয় না। এর আগেও অনেকবার আমাকে অপমান করায় ওর সাথে কথা বলি না।

ফারুক মাতুব্বর জানান, ফরহাদ মাদক সেবন করতে করতে অমানুষ হয়ে গেছে। না হলে ভাই হয়ে ভাইকে গুলি করতে পারে। আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেছে ফরহাদ, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। আমি ভয়ে বাড়িতে যেতে পারছি না। বর্তমানে ভাঙ্গায় আব্বা-আম্মার কাছে রয়েছি।

ফারুক মাতুব্বরের স্ত্রী লাবনী আক্তার বলেন, বাড়িতে সব সময় মুখ বুঝে থাকি। ফরহাদের অনেক অত্যাচার সহ্য করতে হয়। তারপরও দেবর তাই কিছু বলতে পারি না। কিন্তু আজকে ফরহাদ ওর ভাইয়ের উপর গুলি চালিয়েছে- এটা মেনে নেব কিভাবে। গুলিটা যদি বুকে লাগত, তাহলে তো আমি আমার স্বামীকে হারাতাম।

নগরকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সেলিম রেজা বিপ্লব বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। ফরহাদের বাড়ি থেকে দেশীয় অস্ত্র ঢাল-সরকি উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকেই ফরহাদ পলাতক রয়েছে। তাকে আটকে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে। মামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন