মঙ্গলবার, ০৯ আগস্ট ২০২২, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ মুহাররম ১৪৪৪ হিজরী

সারা বাংলার খবর

স্বল্প সময়ে ক্যান্সার নির্ণয়ে সফল শাবিপ্রবি শিক্ষার্থী

শাবি সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০২১, ১০:৪৬ পিএম

গবেষণায় অজৈব এনজাইম উদ্ভাবনের মাধ্যমে অল্প খরচ ও স্বল্প সময়ে ক্যান্সার নির্ণয়ে সফল হয়েছেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের ১৯৯৯-২০০০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী ফাতেমা জেরীন ফারহানা। চলতি মাসেই ( মে) আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত দ্য রয়েল সোসাইটি অব কেমিস্ট্রি জার্নাল, অ্যানালিস্ট এবং দ্য আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটি জার্নাল, এসিএস অ্যাপ্লাইড ন্যানো মেটেরিয়ালসে তাঁর গবেষণাটি প্রকাশিত হয়েছে। সোমবার ( ১০ মে) সন্ধ্যায় এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন তিনি নিজেই।

ফাতেমা জেরীন ফারহানা জানিয়েছেন, তিনি যৌথভাবে বুয়েট ও অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সবুজ রসায়ন (গ্রিন কেমিস্ট্রি) প্রয়োগের মাধ্যমে কার্যকরী গ্রুপ সংবলিত আয়রন-অক্সাইডভিত্তিক নতুন শ্রেণির এক অজৈব এনজাইম উদ্ভাবন করেন, যা ক্যান্সার রোগের জন্য দায়ী বিভিন্ন বায়োমার্কার প্রাথমিক পর্যায়ে অল্প খরচে ও স্বল্প সময়ে শনাক্ত করতে সক্ষম। তাঁর এরূপ গবেষণার উদ্দেশ্য ছিল রসায়নের জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে স্বল্প খরচে বিভিন্ন রোগ নির্ণয়ের সহজ ও সঠিক পদ্ধতি বা ডিভাইস বানানো। তবে অল্প খরচে এ অজৈব এনজাইম তৈরি করে তিনি দেখিয়েছেন অনুঘটক বিক্রিয়ায় প্রাকৃতিক এনজাইমের মোটামুটি সব ধর্মই বজায় থাকে যার সংরক্ষণ পদ্ধতি সহজ এবং এটি দিয়ে যেকোনো ক্যান্সার বায়োমার্কার প্রাথমিক পর্যায়ে নির্ভুলভাবে রোগ শনাক্ত করতে সক্ষম।

তিনি বলেন, এই নতুন শ্রেণির অজৈব এনজাইম প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যান্সার রোগ নির্ণয় করার সহজ ও সঠিক পদ্ধতি বা স্বল্পমূল্যের ডিভাইস বানাতে কার্যকরী ভূমিকা রাখবে। প্রস্তুতকৃত অজৈব এনজাইম শুধু মানবদেহের ক্যান্সার শনাক্তকরণের পদ্ধতিতেই নয়, যে কোনও রোগ শনাক্তকরণের পদ্ধতিতে ব্যবহার করা যাবে। এটি বিভিন্ন ফসলের মড়ক রোগ (ধান, গম, আখ) প্রাথমিক পর্যায়ে শনাক্তকরণের কাজে ব্যবহার করা যাবে।

জানা যায়, ফাতেমা জেরীন ফারহানার গবেষণার তত্ত্বাবধানে ছিলেন বুয়েটের রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান ড. মো. শাখাওয়াৎ হোসেন ফিরোজ ও অস্ট্রেলিয়ার গ্রিফিথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্দিকী রিসার্চ ল্যাবের প্রধান ড. মুহাম্মদ জে. এ. সিদ্দিকী শামিম।

উল্লেখ্য, ফাতেমা জেরীন ফারহানা বর্তমানে বুয়েটে রসায়নে পিএইচডি করছেন। তিনি মূলত বিভিন্ন রকম ন্যানোপার্টিকেল এবং জৈব ও অজৈব যৌগ তৈরির কাজ করেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন