ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ০৮ আষাঢ় ১৪২৮, ১০ যিলক্বদ ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ফিলিস্তিনে বইছে রক্তের বন্যা, কারো আহ্বানে কর্ণপাত করছে না নেতানিয়াহু

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৪ মে, ২০২১, ১০:২২ এএম

হাজারও ঐতিহাসিক স্মৃতির ধারক বাহক মধ্যপ্রাচ্যের পূন্যভূমি জেরুজালেম আবারো রক্ত ঝড়ছে। আমাদের প্রিয় প্রথম কিবলাহ আজ আবার রক্তাক্ত! প্রিয় নবীজী সল্লাল্লাহু আলাইহি অসাল্লামের মিরাজ গমনের প্রাক্কালে এই ঐতিহাসিক পবিত্র স্থানে তিনি দু'রাকাত নামাজ পড়েছিলেন। তাঁর পবিত্র স্মৃতি বিজড়িত, সত্তুরের অধিক নবী-রাসূলের পূন্য স্মৃতি ধন্য জেরুজালেম আজ ক্ষতবিক্ষত! পবিত্র ঈদের দিনে বোমার আঘাতে, বুলড্রোজারের গর্জনে, পয়মাল-ধুলিস্যাত-নাস্তানাবুদ করে দিচ্ছে মুসলিম জনপদগুলো! নারী-শিশু-যুবা-বৃদ্ধা সকলেই আজ এই সন্ত্রাসীদের হাতে জিম্মি! গোটা ফিলিস্তিন আজ রক্তাক্ত রনক্ষেত্র!
রক্তের নেশায় মেতে উঠেছে প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু। তার নিদের্শে গাজা উপত্যকায় রক্তের হোলি খেলছে ইসরাইলি বাহিনী। আকাশ থেকে বিমান হামলা চলছে। পদাতিক বাহিনী শেল নিক্ষেপ করছে। অবরুদ্ধ করে ফেলেছে গাজা’কে। কারো আহ্বানের প্রতি কর্ণপাত করছে না তারা। আজ শুক্রবারও অব্যাহতভাবে গাজায় বোমা হামলা চালানো হচ্ছে।
সব মিলে সেখানে নিহতের সংখ্যা কমপক্ষে ১১৩। আন্তর্জাতিক মহল থেকে শান্ত থাকার আহ্বান জানানো হলেও একগুঁয়েমি দেখিয়ে নিরস্ত্র গাজাবাসীর ওপর যুদ্ধাস্ত্র দিয়ে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। এ অবস্থায় গাজাবাসীকে জাতিসংঘ নির্মিত নিরাপদ আশ্রয়স্থলে সরিয়ে নেয়া হয়েছে বা হচ্ছে। অনেক মানুষ এক কাপড়ে ঘর ছেড়েছেন। অনেক নারী তার সন্তানের মৃতদেহ পিছনে ফেলে যাচ্ছেন। সব মিলে গাজায় পুরোপুরি যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। সেখান থেকে আল জাজিরার সাংবাদিক সাফওয়াত আল কালআউট বলছেন, সীমান্তে ব্যাপকভাবে মোতায়েন করা হচ্ছে ইসরাইলি সেনা। তবে কোনো কোনো মিডিয়ায় বলা হচ্ছে, এমন স্থল অভিযানের জন্য বড় রকমের প্রস্তুতি নিতে হয়। এই মুহূর্তে তেমন প্রস্তুতি নেই। পর্যাপ্ত সংখ্যক ট্যাংক, সামরিক যান নেই সীমান্তে।
ওদিকে এরই মধ্যে স্থল অভিযান শুরু হয়েছে বলে যে খবর ছড়িয়ে পড়েছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছে ইসরাইলের সেনাবাহিনী। কালআউট তার রিপোর্টে বলছেন, গাজার উত্তরাঞ্চলে একজন নারী ও তার তিন সন্তানকে বিমান হামলায় হত্যা করেছে ইসরাইল। এমন এক ভয়াবহতার মধ্যে, যুদ্ধের মধ্যেই পবিত্র ঈদুল ফিতর উৎযাপন করেছেন ফিলিস্তিনিরা। সূত্র : রয়টার্স

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
Dadhack ১৪ মে, ২০২১, ১১:৪৯ এএম says : 0
O'Allah destroy Barbarian Cancerous Israel from the Land of Palestian. O'Allah there is muslim leader who will help to fight Barbarian Israel because they are Taghut and Murtard. They don't care about oppressed muslim around the world, Taghut. Murtard kill their own people those who want that their country rule by Quranic Law. ইসলামে মুসলমানরা সকলেই ভাই-বোন --- এক বর্ণনায় আমাদের নবী [সা।] বলেছেন "(মুমিনগণ তাদের পারস্পরিক ভালবাসা এবং করুণায় এক দেহের মতো। যখন শরীরের এক অংশের অবস্থা খারাপ থাকে, তখন বাকী পুরো অংশ) শরীর অস্থিরতা এবং ঘুমের অভাবের সাথে এটিতে যোগ দেয় এবং এর চিকিত্সা নিয়ে ব্যস্ত থাকে একইভাবে, মুসলমানদের উচিত একে অপরকে সাহায্য করার জন্য ছুটে আসা)[বুখারী] " (যে ব্যক্তি মুসলমানদের কষ্টের বিষয়ে চিন্তা করে না সে তাদের নয়),[হাকিম] অর্থ তিনি তিনি আমাদের প্রিয় নবী [সা।] - এর উম্মত নন. "পৃথিবীর ধ্বংস একটি মুসলিম মানুষের হত্যার চেয়ে আল্লাহর কাছে সহজ", (তিরমিযী) আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রাঃ) বর্ণনা করেছেন যে, তিনি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে কাবার তওয়াফ করছিলেন এবং বললেন, তুমি কত আনন্দিত, আর তোমার সুগন্ধ কতটুকু! আপনি কতটা মহৎ, এবং আপনার পবিত্রতা কত মহান! কিন্তু যার হাতে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম, বলেন মুমিনের সম্পদ ও রক্তের পবিত্রতা, আপনার [কাবার] পবিত্রতার চেয়ে আল্লাহর দৃষ্টিতে অধিকতর, আর আমরা তাকে ভালভাবে চিন্তা করি না। (ইবনে মাজাহ)
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন