ঢাকা শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৪ কার্তিক ১৪২৭, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

পদ্মায় দুই নৌকার সংঘর্ষ মায়ের লাশের উপর জীবিত শিশু

প্রকাশের সময় : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

দৌলতপুর উপজেলা সংবাদদাতা : কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পদ্মা নদীর ভিতর দুই নৌকার মুখোমুখি সংঘর্ষে নদীতে পড়ে যাওয়া মা তার সন্তানকে বাঁচাতে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা গেছেন। মৃত মায়ের নাম তানজিলা খাতুন (২৮) এবং বেঁচে যাওয়া তার সন্তানের নাম তানজিল (৩)। সে নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার লপাড়া বিলবাড়ি গ্রামে প্রবাসী মো. জালেব আলীর স্ত্রী। শনিবার রাত ৮টার দিকে চিলমারী চরের পদ্মা নদীর ভিতর এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী নববিবাহিতা চাঁদনী সুলতানা রিক্তা (১৪) জানান, বিয়ের ফিরিনি শেষে পিত্রালয় থেকে শ্বশুরালয়ে নৌকাযোগে লপাড়া বিলবাড়ি গ্রামে যাওয়ার পথে চিলমারী ও বাঘার মোহনাস্থল মূল পদ্মা নদীতে চিলমারী থেকে বাড়িভাঙ্গা আসবাবপত্র নিয়ে অপর একটি ট্রলার বাহিরমাদীর চরে আসার সময় অন্ধকারে দুই নৌকার মধ্যে সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের পর নিজেরা বাঁচতে বিয়ের ফিরিনির নৌকার যাত্রীরা আসবাবপত্র বহনকারী ট্রলারে উঠে পড়লেও শিশুসন্তানসহ তানজিলা পানিতে পড়ে যান। এ সময় নৌকার যাত্রীরা শিশু তানজিলকে জীবিত উদ্ধার করলেও মৃত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় তার মা তানজিলা খাতুনকে। পরে তাকে ফিলিপনগর আবেদের ঘাটে নিয়ে আসা হয়। খবর পেয়ে দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ, জীবিত শিশু ও প্রত্যক্ষদর্শী চাঁদনী সুলতানা রিক্তাকে উদ্ধার করে থানায় নেয়। চাঁদনী সুলতানা রিক্তাকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসা শেষে পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয় এবং নিহত গৃহবধূর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়।
উল্লেখ্য, ঈদের পরদিন বুধবার দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর দফাদারপাড়া গ্রামের মানিকের মেয়ে ফিলিপনগর হাইস্কুলের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী চাঁদনী সুলতানা রিক্তার সাথে নাটোর জেলার লালপুর উপজেলার লপাড়া বিলবাড়ি গ্রামের শহিদুল ইসলামের বিয়ে হয়। বিয়ের পর শ্বশুরবাড়িতে ফিরিনি শেষে নিজ বাড়িতে নববধূসহ ৯ জন যাত্রী নিয়ে শহিদুল ইসলাম নৌকাযোগে বাড়ি ফেরার পথে নৌ-দুর্ঘটনার শিকার হন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন