শুক্রবার, ০৬ আগস্ট ২০২১, ২২ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৬ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

দরিদ্র জনগোষ্ঠির জন্য সরকার কিছুই করছে না

আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩ জুন, ২০২১, ১২:০০ এএম

দরিদ্র জনগোষ্ঠির সহায়তায় সরকার কিছুই করছে না বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, করোনার এই দুঃসময়ে অর্থনীতিকে সচল রাখতে হলে সবচেয়ে বেশি দরকার দিন আনে দিন খায় মানুষদের জন্য সহায়তা। কারণ করোনার ফলে তারা আরও দরিদ্র হয়ে গেছে, দারিদ্র সীমার নিচে এসেছে আড়াই কোটি মানুষ। আগের দরিদ্র তিন কোটি। এখন প্রায় ৬ কোটি মানুষ এখন দারিদ্র সীমার নিচে। এই মানুষগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে, অর্থনীতিকে সচল রাখতে হলে তাদের কাছে টাকা পাঠাতে হবে। অর্থনীতিবিদরা বলেছেন, ক্যাশ ট্রান্সফার করতে হবে। সেটা তারা (সরকার) করছে না। এখনো একইভাবে তেলে মাথায় তেল দিচ্ছে অর্থ্যাৎ যাদের ইন্ডাস্ট্রি আছে তাদেরকে আবারো প্রণোদনা দিচ্ছে, এই দিন আনে দিন খায় মানুষদের জন্য কিছুই দিচ্ছে না।

গতকাল বুধবার পুরান ঢাকার জজ কোর্টে ঢাকা আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ঢাকা বার ইউনিটের উদ্যোগে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আগামীকাল বাজেট দিতে যাচ্ছে এই সরকার। মুস্তফা কামাল সাহেব একটি পত্রিকায় ইন্টারভিউতে বলেছেন, সব ধরনের মানুষকে মাথায় রেখে বাজেট করছেন। মুস্তফা কামাল সাহেব ব্যবসায়ী মানুষ, তিনি ব্যবসাটা ভালো বুঝেন। অর্থনীতি কতটুকু বুঝেন তার নিদর্শন আমরা খুঁজে পাইনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, গতবার যখন করোনা শুরু হলো তখনই আমরা সাথে সাথে আমাদের প্রস্তাবনা নিয়ে সামনে এসেছিলাম। আমরা বলেছিলাম, করোনাকালে অর্থনীতির ব্যাপক ক্ষতি হবে, দিন আনে দিন খায় মানুষ, শ্রমিক শ্রেনী এবং আইনজীবীরা কোর্ট বন্ধ থাকার ফলে কোনো আয় নেই। তারা অত্যন্ত কষ্টে আছেন। এদের জন্য কোনো প্রণোদনার ব্যবস্থা নেই।

তিনি বলেন, সরকার যে প্রণোদনা দিয়েছে সেই প্রণোদনা কীসের? মানুষকে তারা বোকা বানিয়েছে। ব্যাংক থেকে লোন নিতে হবে সকলকে। ব্যাংক থেকে লোন নিলে সরকারের কী দরকার? এটা প্রণোদনা হলো কোত্থেকে? এটা প্রণোদনা নয়। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যাংকে শোধ করতে হবে। প্রণোদনা তাকেই বলে সরকার দুঃসময়েই আপনাকে যে আর্থিক সাহায্যটা করছে সেটা ফেরত নেবে না। আপনি সেই প্রণোদনার টাকা কাজে লাগাবেন। আমরা প্রস্তাবনায় বলেছিলাম যে, দিন আনে দিন খায় মানুষগুলো ১৫ হাজার টাকা করে তিন মাস অনুদান দিতে হবে। কিন্তু সেটা করা হয়নি।গত কয়েকদিন আগে পত্রিকায় উঠেছে গাইবান্ধার একজন কৃষক সবজী চাষ করে বলেছে যে, ভাই বিক্রি হচ্ছে না। কারণ ট্রাক যায় না, ট্রাক আসে না- সরকারের কোনো ব্যবস্থা নেই। এর চেয়ে আমাদেরকে মেরে ফেললে ভালো হতো। তাহলে কাকে প্রণোদনা দিচ্ছে? আপনাদের লোকগুলোকে যারা লুট করছে, দেশের অর্থনীতিকে একেবারে শূণ্য পর্যায় নিয়ে গেছে তাদেরকে।

মির্জা ফখরুল বলেন, বড় বড় দালাল তৈরি করছেন আর বলছেন উন্নয়ন, আর মনগড়া প্রবৃদ্ধির হার দিচ্ছেন আর বলছেন যে, উন্নয়ন। উন্নয়ন সেটা নয়। উন্নয়ন হচ্ছে জনগণের জীবনযাত্রার মান উন্নত হয়, সে যেন ভালো খেতে পায়, বাচ্চাদের লেখাপড়া করাতে পারে, স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ঠিক থাকে সেটাকে বলে উন্নয়ন। এমন উন্নয়ন করেছেন যে, হাসপাতালে বেড নেই। একটা হাসপাতালে বানিয়েছেন কোবিডের সময়ে ওইটা রাতের মধ্যে উধাও হয়ে গেলো, হাসপাতাল নেই। ব্যবসা আবার নতুন করে নতুন কমিশন পাবে। এটা তো কমিশন এজেন্ট সরকার। এটা তো জনগণের সরকার নয়। জিয়াউর রহমানের কর্মজীবনের নানা দিক আলোচনায় তুলে ধরেন বিএনপি মহাসচিব।

বার ইউনিটের সভাপতি অ্যাডভোকেট মাসুম আহমেদ তালুকদারের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক ফারুকীর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় এড. ফজলুর রহমান, ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, এড. খোন্দকার মো. হয়রত আলী, আজিজুল ইসলাম খান বাচ্চু, মহসিন মিয়া, খোরশেদ আলম, হোসেন আলী খান হাসান, অধ্যক্ষ সেলিম ভুঁইয়া প্রমূখ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন