ঢাকা সোমবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, ০৪ মাঘ ১৪২৭, ০৪ জামাদিউস সানী ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

পছন্দের প্রতিপক্ষই পেল জয়রাজরা

প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস রিপোর্টার : ম্যাচের আগের দিন ‘ক‚লের কথা খুলে’ বলেছিলেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান জাকির হাসান নিজেই। তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছিলেন, সেমিতে পাকিস্তান নয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পেলেই খুশি হবে বাংলাদেশ। হলোও তাই। যুব বিশ্বকাপের শেষ কোয়ার্টারে পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে হারিয়ে সেমির টিকিট নিশ্চিত করেছে লারার উত্তরসূরিরা। ১১ ফেব্রæয়ারি সকাল ৯টায় সেমিফাইনালে বাংলাদেশের মুখোমুখি হতে হবে তাদের।
উইন্ডিজ যুবাদের পেয়ে মিরাজদের এত খুশির কারণটা কী? সেটা জানতে একটু চোখ বুলাতে হবে দুই দেশের জাতীয় ও যুব দলের পরিসংখ্যানের দিকে। পরিসংখ্যানটা দেখে ‘বড়’দের একটু ঈর্ষা হতেই পারে। ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে ‘ছোট’রা কী যে দুর্দান্ত! বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজের ওয়ানডে পরিসংখ্যানটা দেখুন। দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে স্পষ্ট ব্যবধানে এগিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ওয়ানডেতে ২৮ বার মুখোমুখি হয়ে মাত্র ৭ ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। দুটি ম্যাচ হয়েছে পরিত্যক্ত, বাকি ১৯টি ম্যাচই পরাজয়ের গল্প।
যুব ওয়ানডের পরিসংখ্যানটা ঠিক উল্টো। সেখানে বাংলাদেশ যুবাদের বীরত্বগাথা। এখনো পর্যন্ত ১৭ বার মুখোমুখি হয়ে ১২ ম্যাচে জিতেছে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। এই অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের ঠিক আগে তিন ম্যাচের যুব ওয়ানডে সিরিজে তো ওয়েস্ট ইন্ডিজ অনূর্ধ্ব-১৯ দলকে দাঁড়াতেই দেননি মেহেদী হাসান মিরাজরা। যুব বিশ্বকাপেও দুই দলের পরিসংখ্যান ঝুঁকে আছে বাংলাদেশের দিকে। তিনবার মুখোমুখি হয়ে দুবার জিতেছে বাংলাদেশ যুব দল। ২০১০ যুব বিশ্বকাপে যে ম্যাচটি বাংলাদেশ হেরেছিল, সেটিও মাত্র ১ রানে। এমন প্রতিপক্ষ পেয়ে খুশি হওয়ারই কথা বাংলাদেশের। কিন্তু প্রতিপক্ষের নাম নিশ্চিত হওয়ার পর আনন্দ তো প্রকাশ করা যায় না, একটু ‘কূটনৈতিক’ কথাবার্তাই বলতে হয়। খেলার মাঠে জয়টা হাতে আসা না পর্যন্ত যে শেষ কথা বলা যায় না!
গতকাল বিকেলে বিসিবি একাডেমি মাঠের অনুশীলন শেষে যখন দলের অন্যতম ব্যাটিং ভরসা জয়রাজ শেখ সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে জানালেন, ব্যাপারটা এমন নয় যে ওয়েস্ট ইন্ডিজই তাদের কাঙ্ক্ষিত প্রতিপক্ষ ছিল, ‘সেমিফাইনালে আমাদের প্রতিপক্ষ হিসেবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ চাওয়া ছিল, তা ঠিক নয়। যেকোনো দলের জন্যই প্রস্তুত আমরা।’ তবে শেষ চারে ক্যারিবীয়দের পাওয়ায় বাংলাদেশের যে খানিকটা ‘লাভ’ হয়েছে, সেটি লুকোলেন না জয়রাজ, ‘ওরা আসায় একটা লাভ হলো- ওদের বিপক্ষে অনেক ম্যাচ খেলেছি, অনেক সিরিজ খেলেছি, ফলে ওদের সম্পর্কে ভালোভাবে জানি।’
প্রতিপক্ষকে চেনা-জানায় যদি বাংলাদেশের ‘লাভ’ হয়, ওয়েস্ট ইন্ডিজেরও তো লাভ হতে পারে! জয়রাজ এটাও আবার মানেন। তবে নিজেদের মুখোমুখি লড়াইয়ের চিত্রটাও তুলে ধরলেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের এই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান, ‘হ্যাঁ, ওরা আমাদের চেনে। তবে ওদের সঙ্গে আমরা সর্বশেষ যে কটা ম্যাচ খেলেছি, দাপটেই জিতেছি। এদিক দিয়ে আমরা এগিয়ে থাকব। আশা করি, সেমিফাইনালে ওদের সঙ্গে ভালো খেলব।’
কোয়ার্টার-ফাইনালে অবশ্য অনেককেই চমকে দিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। হারিয়ে দিয়েছে ফেভারিট পাকিস্তানকে। বাংলাদেশের সহকারী কোচ সোহেল ইসলাম সমীহই করছেন ক্যারিবিয়ানদের, ‘হালকা করে নেওয়ার কোনো কারণ নেই। ১৬ দলের খেলায় একটা দল সেমি-ফাইনালে উঠে আসছে, মানে সেরা চারে আছে। তারা নিশ্চয়ই ভালো ফর্মে আছে। ভালো খেলেই এই পর্যায়ে এসেছে।’ তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে পাওয়ায় একটু হলেও যে বাড়তি সুবিধা হচ্ছে বাংলাদেশের, সেটাও স্বীকার করেছেন সহকারী কোচ, ‘আমাদের জন্য সুবিধা হচ্ছে, বিশ্বকাপের আগে আমরা এই দলের বিপক্ষে খেলেছি। ওদের ক্রিকেটারদের সম্পর্কে ধারণা আছে। ওদের শক্তিশালী দিক, দুর্বল দিক আমরা জানি। সে অনুযায়ীই পরিকল্পনা করব আমরা।’
সেই ‘ভালো খেলা’র ফলটা যদি হয় জয়, তাহলে আরেকটি ইতিহাসই রচিত হবে- বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো খেলবে কোনো বৈশ্বিক প্রতিযোগিতার ফাইনালে।

লঙ্কানদের সামনে ফেভারিট ভারত
স্পোর্টস রিপোর্টার : আজ রাতে শ্রীলঙ্কা মুখোমুখি হচ্ছে ভারতের বিপক্ষে। ৩ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে হারলেও খুব বেশি আসবে যাবে না ম্যাথিউসের দলের। কিন্তু তার আগে লঙ্কান যুবাদের একই প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নামছে তার চেয়ে বড় লড়াইয়ে। আসরটা যেহেতু যুব বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল, লঙ্কান যুবাদের তাই জয়ের কোন বিকল্প নেই।
সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে, শক্তির বিচারে লঙ্কানদের চেয়ে যোজন যোজন এগিয়ে আসরের সবচেয়ে সফল দল ভারত। টুর্নামেন্টে আদম্য গতিতে পথচলা তাদের পক্ষেই কথা বলে। রিশাব পান্ত-সরফরাজ খানদের ব্যাটে ঝরছে রানের ফুলঝুরি, ব্যাট-বলে আমরোর পারফর্মেন্স এসবকিছুই এগিয়ে রাখছে ভারতকেই। তবে লঙ্কানরাও এই পর্বে পা রেখেছে যোগ্যতার প্রমান দিয়েই। কোয়ার্টার ফাইনালে তারা ৬ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারায় ইংল্যান্ডকে। যে ইংল্যান্ড টুর্নামেন্টের বড় ইনিংস গড়ার পাশাপাশি সবচেয়ে বড় ব্যবধানের জয় নিয়ে পা রেখেছিল কোয়ার্টার ফাইনালে। গ্রæপ পর্বে তাদের দেখে মনে হচ্ছিল অনেক দুর যাওয়ার পণ নিয়েই বাংলাদেশে পা রেখেছে তারা। কিন্তু সেই দলকে হারিয়েই সেমিতে পৌঁছেছে শ্রীলঙ্কা। কোয়ার্টার ফাইনালের ওই ম্যাচই আজ হতে পারে ফাইনালের পথে লঙ্কানদের অনুপ্রেরণা।
সেমিফাইনাল লাইন-আপ
তারিখ ম্যাচ ভেন্যু
৯ ফেব্রæ ভারত-শ্রীলঙ্কা মিরপুর
১০ ফেব্রæ বাংলাদেশ-উইন্ডিজ মিরপুর

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন