ঢাকা বুধবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৮ আশ্বিন ১৪২৭, ০৫ সফর ১৪৪২ হিজরী

খেলাধুলা

ম্যাককালামের মধুর বিদায়

প্রকাশের সময় : ৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : গতকাল নিশ্চয় ব্রান্ডন ম্যাককালাম স্মৃতির ভেলায় চড়ে ফিরে গিয়েছিলেন ৮ বছর আগে হ্যামিল্টনের ঠিক এই সিডন পার্ক স্টেডিয়ামে। দিনটা কি দুর্দান্তই না ছিল স্টেফেন ফ্লেমিংয়ের দলের জন্য। অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ৩৪৬ রান তাড়া করে সেদিন ম্যাচের সাথে চ্যাপেল-হ্যাডলি সিরিজটাও জিতেছিলেন ৩-০ ব্যবধানে। ম্যাককালাম খেলেছিলেন অপরাজিত ৮৬ রানের ইনিংস। এতদিন ধরে ওটিই ছিল অজিদের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে শেষ সিরিজ জয়। ৮ বছর পর কিউইরা আবার সিরিজ জয়ের শিরোপা উচিয়ে ধরলেন সেই হ্যামিল্টনের সিডন পার্ক স্টেডিয়ামে। কিন্তু এত মিলের মাঝেও সেই আর এই হ্যামিল্টনে আজ কত ফারাক! সেদিনের হ্যামিল্টনে ছিল না কোন বিদায়ের রাগিনী, যে রাগে গতকাল ভেসে গেল হ্যামিল্টন। শুধুই কি হ্যামিল্টন?, লক্ষ কোটি ক্রিকেট ভক্তদের হৃদয়ও নয় কি?
বিদায়ের ঘোষণাটা আগেই দিয়ে রেখেছিলেন ম্যাককালাম। সেই অনুযায়ী কাল নিউজিল্যান্ডের জার্সি গায়ে শেষ ম্যাচ খেলে ফেলেছেন তিনি। সিরিজ শুরুর আগে বর্তমান অধিনায়ককে ‘বিশেষ ভাবে’ বিদায়ের কথা বলেছিলেন পরবর্তী অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। সেই ‘বিশেষ ভাবে’ মানে যে সিরিজ জয় সেটা আর আলাদাভাবে বলার অপেক্ষা রাখে না। কথা রেখেছেন উইলিয়ামসন। ২৪৬ রানের ছোট সংগ্রহেও অধিনায়কের বিদায়ী শক্তিই যেন তাতিয়ে তুলেছিল কিউই বোলারদের। ১৯১ রানেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের গুটিয়ে দিয়ে জয় ছিনিয়ে আনলেন ৫৫ রানের।
ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচেও ম্যাককালামের সেই চিরচেনা রুপ। ২৭ বলের মোকাবেলায় করেছেন ৪৭ রানের ইনিংস। ৬টি চার ও ৩টি ছয়। টেস্ট ক্রিকেটে কিছুদিন আগেই দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ছুঁয়েছিলেন শততম ঝক্কা হাকানোর রেকর্ড। বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানের তকমা যার গায়ে বিদায়ী ম্যাচের ৩ ছক্কায় সেই তিনি ঢুকে গেলেন ওয়ানডেতে ২০০ ছক্কা হাকানো ব্যাটসম্যানের তালিকায়। তিনি নিজেও নাকি জানতেন রেকর্ড গড়তে তিনটি ছক্কার প্রয়োজন। ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচে এসে সেটি করেই ছাড়লেন সময়ের ভয়ঙ্করতম এই ব্যাটসম্যান। আরেক উদ্বোধনী ব্যটসম্যান মার্টিন গাপটিল এদিন ৬১ বলে করেন ৫৯ রান। এরপরও ব্যাট হাতে শুরুটা ভালো করেও গ্রান্ট ইলিয়ট ছাড়া ২২ গজে দাঁড়াতে পারেনি কেউই। আড়াই’শ ছুঁই ছুঁই যে ইনিংসটি দাড়িয়েছে তা মূলত ইলিয়টের অর্ধশতকের কল্যানে। শেষ ১৫ বলেই কিউইরা হারায় ৫ উইকেট। ৪.৩ ওভার আগেই থেমে যায় তাদের ইনিংস। ৩টি উইকেট নেন মিশেল মার্শ। এছাড়া দুটি করে উইকেট নেন হ্যাজেলউড, হেস্টিংস ও বোল্যান্ড। ব্যাট হাতে স্টেভেন স্মিথদের জবাবের শুরুটাও হয়েছিল বেশ। ১১ ওভারে শুধুমাত্র ডেভিড ওয়ার্নারকে হারিয়ে ৭৫ রান তুলে ফেলে তারা। এরপর ৯৪ রানে পৌঁছাতেই একে একে ফিরে যান উসমান খাজা (৩৬ বলে ৪৪), অধিনায়ক স্মিথ (২১) ও ম্যাক্সওয়েল (০)। ৫ম উইকেটে ৫৯ রানের জুটিতে বেইলি ও মার্শ সেই ধাক্কা সামাল দিলেও দলীয় ১৫৩ রানে বেইলি (৩৩) ফেরার পরপরই আবারো পথ হারায় সফরকারীরা। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ৪৩.৪ ওভারে ১৯১ রানেই থেমে যায় তাদের ইনিংস। কিউইদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন হেনরি। দুটি করে নেন কোরি অ্যান্ডারসন ও সোদি। অজি ইনিংসের দলীয় ৯৪ রানে এক বলের ব্যবধানে স্মিথ ও ম্যাক্সওয়েলকে ফেরানোয় ম্যাচসেরা ইশ সোদি।
নিউজিল্যান্ড : ২৪৬ ( গাপটিল ৫৯, ইলিয়ট ৫০, ম্যাককালাম ৪৭, মার্শ ৩/৩৪, হ্যাজেলউড ২/৪৫, হেস্টিংস ২/৪২); অস্ট্রেলিয়া : ১৯১ (খাজা ৪৪, মার্শ ৪১, হেনরি ৩/৬০, এন্ডারসন ২/১৬, সোদি ২/৩১)।
ফল : নিউজিল্যান্ড ৫৫ রানে জয়ী। ম্যাচসেরা : ইশ সোদি। সিরিজ : ২-১ ব্যবধানে নিউজিল্যান্ড জয়ী।
এক নজরে ব্রান্ডন ম্যাককালাম
ম্যাচ ইনিংস রান সর্বোচ্চ গড় স্ট্রাইক রেট ১০০ ৫০
টেস্ট ৯৯ ১৭২ ৬২৭৩ ৩০২ ৩৮.৪৮ ৬৩.৭১ ১১ ৩১
ওয়ানডে ২৬০ ২২৮ ৬০৮৩ ১৬৬ ৩০.৪১ ৯৬.৩৭ ৫ ৩২
টি-২০ ৭১ ৭০ ২১৪০ ১২৩ ৩৫.৬৬ ১৩৬.২১ ২ ১৩

 

ওয়ানডেতে সর্বোচ্চ ছক্কা


ব্যাটসম্যান ম্যাচ ছক্কা
শহীদ আফ্রিদী (পাকিস্তান) ৩৯৮ ৩৫১
সনাথ জয়সুরিয়া (শ্রীলঙ্কা) ৪৪৫ ২৭০
ক্রিস গেইল (উইন্ডিজ) ২৬৯ ২৩৮
ব্রান্ডন ম্যাককালাম (নিউজিল্যান্ড) ২৬০ ২০০
*২০০ ঘরের সদস্যরা

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন