মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

সারা বাংলার খবর

২৪ ঘণ্টায় দেশে বজ্রপাতে নিহত ২২

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৭ জুন, ২০২১, ১০:০২ এএম

গত কয়েকবছর ধরে দেশে বজ্রপাতে মৃত্যুর ঘটনা বেড়েই চলেছে। রোববার আট জেলায় বজ্রপাতে ২২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সিরাজগঞ্জে পাঁচ জন, চট্টগ্রামে ছয় জন, মানিকগঞ্জ, টাঙ্গাইল ও ফেনীতে দুই জন করে ছয় জন এবং মাদারীপুর, নোয়াখালী, মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর ও শরীয়তপুরে এক জন করে নিহত হয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জে বিকেল ৪টা থেকে ৫টার মধ্যে বৃষ্টির সময় বিভিন্ন উপজেলায় বজ্রপাতের ঘটনায় এক নারীসহ ৫ জন নিহত হয়েছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও ছয় জন।

নিহতরা হলেন- বেলকুচি উপজেলার লাইলি বেগম, সলঙ্গার রফিকুল ইসলাম, উল্লাপাড়ার ফরিদুল ইসলাম, শাহাজাদপুরের জুয়েল রানা ও আলহাজ পণ্ডিত।

সিরাজগঞ্জের পুলিশ পরিদর্শক সুকমল দেবনাথ হতাহতদের পরিচয় নিশ্চিত করে জানান, তারা ঘটনার সময় সবাই মাঠে কাজ করছিলেন।

ফেনী

ফেনীর সোনাগাজীতে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বাড়ির উঠানে বজ্রপাতে দুই শিশু নিহত হয়েছে নিহতরা হলো- মো. আল আমিন (৬) ও তামান্না আক্তার (১৫)। তারা পরস্পরের চাচাতো-জেঠাতো ভাই-বোন।

সোনাগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজেদুল ইসলাম পলাশ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

চট্টগ্রাম

চট্টগ্রামে বজ্রপাতে এক দিনে দুই নারীসহ ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে আরও চারজন।

ফটিকছড়ি, সীতাকুণ্ড উপজেলায় দুই জন করে এবং বোয়ালখালী ও মিরসরাইয়ে একজন করে মারা যান।

মৃতরা হলেন- সীতাকুণ্ড উপজেলায় আব্দুল জলিল (৪০) ও এসকান্দার আলী (৬০), ফটিকছড়িতে লাকী দাশ (৩৮) ও ভানু শীল (৪০), মিরসরাইয়ে স্কুল শিক্ষার্থী মো. সাজ্জাদ হোসেন (১৬) ও বোয়ালখালীতে মো. জাহাঙ্গীর (৩৯)।

এদের মধ্যে ফটিকছড়ির দুই নারী বাগানে মরিচ তোলার সময় বজ্রপাতে নিহত হন। অন্যরাও কৃষিকাজ করার সময় বজ্রাঘাতের শিকার হন।

মানিকগঞ্জ

মানিকগঞ্জে পৃথক বজ্রপাতের ঘটনায় দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। বিকেলে ঘিওর উপজেলার বৈলটি এবং দৌলতপুর উপজেলার চরকাটুরি গ্রামে বজ্রপাতে হতাহতের ঘটনা ঘটে।

নিহতদের একজন মোহাম্মদ শাহীন ঘিওর সদর ইউনিয়নের বৈলট গ্রামের মুক্তারের ছেলে। অন্যজন গোলাম মোস্তফা দৌলতপুর উপজেলার চরকাটারি ইউনিয়নের চরকাটুরি গ্রামের আব্দুল বাতেনের ছেলে।

ঘিওর থানার ওসি মো. রিয়াজ উদ্দিন আহমেদ বিপ্লব দুজনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছেন।

মুন্সিগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জের সিরাজদিখানে বৃষ্টির সময় মাঠে খেলতে গিয়ে অপূর্ব বর্মণ নামের এক কলেজ ছাত্র নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অপু বর্মণ ও পরিচয় বর্মণ নামের দুই যুবক।

বিকেল ৩টায় উপজেলার শেখেরনগর মাঠে ফুটবল খেলতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত অপূর্ব উপ‌জেলার শেখরনগর ইউনিয়নের শেখেরনগর জেলে পাড়া গ্রামের স্বপন বর্মণের ছেলে। সে আলী আজগর এন্ড আব্দুল্লাহ কলেজের এইচ এসসি পরীক্ষার্থী। আহত অপর দুইজনের বাড়িও একই গ্রামে।

সিরাজদিখানের শেখরনগর তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. নাসির শেখ হতাহতের পরিচয় নিশ্চিত করেছে।

নোয়াখালী

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সোনাদিয়াতে বজ্রপাতে মো. খোকন নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া জেলার কবিরহাট, কোম্পানীগঞ্জ, সেনবাগ ও সুবর্ণচরে বজ্রপাতে মারা গেছে সাতটি গরু ও একটি মহিষ।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হাতিয়ার ৩নং পূর্ব মাইছরা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত খোকন ওই গ্রামের সৈয়দ মুন্সির ছেলে।

হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের বজ্রপাতে কৃষক খোকনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছেন।

মাদারীপুর

বজ্রপাতে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় বিকেলে এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন।

শিবচর থানার ওসি মিরাজ হোসেন জানান, নিহত গৃহবধূ আয়েশা বেগম শিবচর উপজেলার চর জানাজাত ইউনিয়নের সামাদ খাঁর কান্দী গ্রামের বালুরটেক এলাকার ছোরফান হাওলাদারের স্ত্রী।

শরীয়তপুর

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার ছোট কৃষ্ণনগর গ্রামের আতিকুর রহমান ১৪ নামে নবম শ্রেণির এক ছাত্র বজ্রপাতে নিহত হয়েছে। আজ সন্ধ্যা ৭ টার দিকে বাড়ি ফিরবার পথে রাস্তায় বজ্রপাতে সে মারা যায়। সে ওই গ্রামের ফারুক মাদবরের ছেলে। বজ্রপাতে দগ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই সে মারা যায়।

টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের নাগরপুরে পৃথক দুইটি স্থানে বজ্রপাতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। বিকেলে উপজেলার ভাদ্রা ও বেকড়া ইউনিয়নে এই ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার ভাদ্রা ইউনিয়নের গাংবিহালী গ্রামের মো. বক্তার খানের ছেলে আলমাছ খান (৫৫) এবং বেকড়া ইউনিয়নের বেকড়া মধ্য পাড়া গ্রামের মৃত পলান মিয়ার ছেলে সোনা মিয়া (৫৩)।

স্থানীয় ইউপি সদস্য মুসলেম উদ্দিন জানায়, আলমাছ খান বিকেলে গাংবিহালী এলাকায় ধানের খড় শুকাচ্ছিলেন। এ সময় বজ্রপাতে তার মৃত্যু হয়।

অপর দিকে বেকড়া মধ্যপাড়ার সোনা মিয়া বিকেলে তার নিজ বাড়ির উঠানে বজ্রপাতে মৃত্যুবরণ করেন।

নাগরপুর থানার ওসি (তদন্ত) বাহালুল খান বাহার দুটি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন