ঢাকা রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৪ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

অভ্যন্তরীণ

আড়াই মাসেও গ্রেফতার হয়নি মামলার আসামি ইউপি চেয়ারম্যান

পিরোজপুর জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৬ জুন, ২০২১, ১২:০১ এএম

পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে আল আমীন নামে এক কাঠ ব্যবসায়ীকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় মামলায় ২নং পত্তাশী ইউনিয়নের চেয়াম্যানকে আড়াই মাসেও গ্রেফতার না করার অভিযোগ উঠেছে। গতকাল মঙ্গলবার মামলার বাদী আহত আল আমিনের বাবা আলী আকবার অভিযোগ করে বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান ও তার ছেলেসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হলেও আড়াই মাসেও গ্রেফতার হয়নি চেয়ারম্যান ও তার ছেলে। এ ব্যাপারে অন্যতম স্বাক্ষী আল আমিন জানান, এক নারীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে গত ২৮ মার্চ রাতে তাকে হাত পা বেঁধে নির্মমভাবে নির্যাতন করে গ্রেফতারকৃত মজিদ ও আলামসহ একদল যুবক। ইন্দুরকানী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়। পরে এক নারীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনেই একটি মিথ্যা মামলায় গ্রেফতার করা হয় তাকে। এরপর তার বাবা ১০জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। ইউপি চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেনের নির্দেশে অন্যান্য অভিযুক্তরা পূর্বপরিকল্পিতভাবে আল আমিনকে নির্মমভাবে নির্যাতন করেছে।
আল আমিননের বাবা আলী আকবার জানান, সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে ইউপি চেয়াম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন হাওলাদারের লোকজন তার ছেলেকে মিথ্যা দোষারোপ করে নির্যাতন চালায়। মামলা করলেও পুলিশ আসামিদের গ্রেফতার করছে না বিভিন্ন জায়গায় চেয়ারম্যার বিভিন্ন ঘুড়ে বেড়াচ্ছেন। চেয়ারম্যানের লোকজন নিয়মিত হুমকি ধামকি দিয়ে যাচ্ছে মামলা তুলে নেয়ার জন্য। এ ঘটনায় ইন্দুরকানী থানার ওসি মো. হুমায়ুন কবির জানান, ঘটনার সাথে সাথেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই আসামিকে গ্রেফতার করে। চেয়ারম্যান ও তার ছেলে বিরুদ্ধে মামলার বিষয়ে তদান্তাধীন রয়েছে। তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।
উল্লেখ্য, ইন্দুরকানী উপজেলার আল আমিন নামে এক কাঠ ব্যবসায়ীকে হাত-পা বেঁধে নির্যাতনের ঘটনায় ২নং পত্তাশী ইউপি চেয়াম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন হাওলাদার ও তার ছেলে সানি হাওলাদারসহ ১০ জনকে আসামি করে একটি মামলা দেয়া হয়। পুলিশ অভিযান চালিয়ে দুই আসামিকে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মজিদ ফকির ও সাধারণ সম্পাদক আলাম ফকিরকে গ্রেফতার কলেও চেয়ারম্যান ও তার ছেলেসহ বাকি আসামিরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন