শনিবার, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ০৭ কার্তিক ১৪২৮, ১৫ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

ইসলামী জীবন

ইসলাম ও চিকিৎসা বিজ্ঞানে রক্তদান

মুহাম্মদ মনজুর হোসেন খান | প্রকাশের সময় : ১৮ জুন, ২০২১, ১২:০৮ এএম

রক্তদান একটি পরোপকারী অনুকম্পামূলক কাজ। রক্তের স্বল্পতাজনিত মুমূর্ষু রোগীর দেহে প্রয়োজনীয় রক্ত সরবরাহের মাধ্যমে জীবন রক্ষা করা সম্ভব হয়। রক্তের কোনরূপ বিকল্প না থাকায় একমাত্র রক্তদানের মাধ্যমে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। ফলে বিশেষ মুহূর্তে রক্তদান জীবন রক্ষায় সহযোগিতা করে। বাংলাদেশে নিরাপদ রক্তদান ও পরিসঞ্চালন নিশ্চিতকরণে সুনির্দিষ্ট আইন রয়েছে। ইসলামে রক্তদান একটি বড় দান এবং পুণ্যের কাজ হিসেবে বিবেচিত। আর্তমানবতার সেবায় ব্যক্তির এ স্বতঃস্ফূর্ত এগিয়ে আসাকে ইসলামী শরীয়া অনুমোদন করেছে। এ ধরনের মানবিক কল্যাণমূলক কর্মোদ্যোগ ইসলামী শরীয়ার মানবিকতা ও নৈতিকতা দ্বারা পরিচালিত। আলোচ্য প্রবন্ধে উল্লেখিত বিষয়ের ইসলামী দৃষ্টিভক্তি ও মূল্যবোধ এবং শরীয়ার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ইত্যাদি আলোচনা করা উদ্দেশ্যে। তাছাড়া এ প্রবন্ধে রক্তদানের সাথে সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন শরীয় বিধি-বিদান আলোাচিত হয়েছে। প্রবন্ধটি প্রণয়নের ক্ষেত্রে বর্ণনা ও বিশ্লেষণমূলক পদ্ধতি অনুসরণ করা হয়েছে। আলোচনার ফলাফলে প্রতীয়মান হয়েছে যে, প্রচলিত আইনে রক্তদান বিধিসম্মত। ইসলামী আইনে এ বিধানের ক্ষেত্রে দুটি মত পাওয়া যায় এবং সার্বিক বিবেচনায় রক্তদানের বৈধ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই নির্দিষ্ট নীতিমালা প্রতিপালন করতে হবে।
রক্তদান ও পরিসঞ্চালন একটি বহুল প্রচলিত চিকিৎসা প্রক্রিয়া। চিকিৎসার প্রয়োজনে রক্তদানের মাধ্যমে একজন মানুষের দেহের একই গ্রুপের রক্ত আরেকজনের দেহে সঞ্চালন করা হয়। রক্ত এমন বস্তু, যা শুধু শরীরের ভিতরেই উৎপন্ন হয়। রক্ত তৈরির বিকল্প কোন ব্যবস্থা কিংবা রক্তের কোন বিকল্প এখনও উদ্ভাবিত হয়নি। তাছাড়া মানুষকে একমাত্র মানুষই রক্তদান করতে পারে। চিকিৎসকরা রক্তের স্বল্পতাজনিত মুমূর্ষু রোগীর দেহে নিরাপদ বিশুদ্ধ রক্ত পরিসঞ্চালনের জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। ফলে বিশেষ মুহুর্তে রোগীর জীবন রক্ষায় রক্তদান অত্যাবশ্যক হয়ে ওঠে। ইসলামে যদিও সব ধরনের দানকেই মহৎ কর্ম বলে গণ্য করা হয়, তবুও রক্তদান একটি বড় দান এবং পূণ্যের কাজ হিসেবে বিবেচিত হয়। ইসলামী শরী‘আ ব্যক্তির এ স্বতঃস্ফূর্ত এগিয়ে আসাকে আর্তমানবতার সেবা হিসেবে গণ্য করেছে। বস্তুত এ ধরনের মানবিক কল্যাণমূলক কর্মোদ্যোগ ইসলামী শরী‘আর মানবিকতা ও নৈতিকতা দ্বারা প্রভাবিত ও উৎসাহিত হয়। আলোচ্য প্রবন্ধে উল্লেখিত বিষয়ে ইসলামী শরী‘আর দৃষ্টিভঙ্গি, মুল্যবোধ ও লক্ষ্য-উদ্দেশ্য ইত্যাদি আলোচিত হবে। তাছাড়া দাতা-গ্রহীতার পারস্পরিক উপকারিতা, রক্তদানের উত্তম স্থান, ধর্মীয় ও নৈতিক উন্নতি ইত্যাদি প্রাসঙ্গিক বিভিন্ন শরীয় বিধি-বিধান আলোচনার পরিধিভূক্ত হবে।
রক্তদান ও পরিসঞ্চালনঃ রক্তদান হল কোন প্রাপ্তবয়ষ্ক সুস্থ মানুষের স্বেচ্ছায় রক্ত দেওয়ার প্রক্রিয়া। সাধারণত কোন প্রাপ্তবয়স্ক সুস্থ ব্যক্তি রক্তের স্বল্পতাজনিত কোন অসুস্থ ব্যক্তিকে স্বেচ্ছায় রক্ত দেওয়ার প্রক্রিয়াকে রক্তদান বলে। ইংরেজিতে তাকে ইষড়ড়ফ উড়হধঃরড়হ এবং আরবীতে ‘‘নাক্ল আদ্-দাম’’ ও ‘‘তাবাররু বিদ দাম’’ বলা হয়। চিকিৎসকরা নিরাপদ বিশুদ্ধ রক্ত পরিসঞ্চালনের জন্য পরামর্শ প্রদান করেন। নিরাপদ রক্ত বলতে যে কোনো ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, প্যারাসাইট, কেমিক্যাল ইত্যাদি ক্ষতিকর উপাদান বা যে কোন জীবাণুমুক্ত রক্তকে বোঝায়। একমাত্র স্বেচ্ছায় সুস্থ রক্তদাতার মাধ্যমে নিরাপদ রক্ত পরিসঞ্চালন করা হয়। এ প্রক্রিয়ায় প্রাথমিক পর্যায়ে দাতার একটি সংক্ষিপ্ত শারীরিক পরীক্ষা ও চিকিৎসার ইতিহাস গ্রহণ করা হয়। এরপর নমুনা সংগ্রহ করে ‘ব্লাডস্ক্রিনিং’ বা পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে ঝুঁকিমুক্ত হিসেবে নিশ্চিত করা হয়। রক্তের মাধ্যমে ছড়ানো রোগগুলো এ পরীক্ষার অন্তর্ভূক্ত। এ ক্ষেত্রে রক্তদাতা সম্পূর্ণ বিনামূল্যে এইডস্, সিফিলিস, ম্যালেরিয়া, হেপাটাইটিস বি এবং হেপাটাইটিস সি ইত্যাদি পরীক্ষার ফলাফল পেয়ে যায়। মূলত রক্তদাতার সুস্থতা ও দানের উপযোগিতা এবং গ্রহীতার জন্য সম্ভাব্য ক্ষতির ঝুঁকিমুক্তির নিমিত্ত এসব পরীক্ষা করা হয়। গৃহীত রক্তের পরিমাণ ও পদ্ধতি ভিন্ন হতে পারে। তবে সাধারণত একজন দাতা থেকে একবার সর্বোচ্চ পাঁচশত মিলিলিটার রক্ত নেয়া হয়। সংগৃহীত রক্ত পরিসঞ্চালন বা অংশীকরণের মাধ্যমে ঔষধে পরিণত করে গ্রহীতার দেহে প্রবেশ করানো হয়।
রক্তদান পরিসঞ্চালনের প্রয়োজনীয়তাঃ মানবদেহে প্রবাহমাণ অস্বচ্ছ লাল তরল পদার্থটি রক্ত। এটি শিরা বা ধমনীর মধ্যে দিয়ে পুরো দেহে বাহিত হয়। দেহের প্রতিটি টিস্যুতে খাবার ও অক্সিজেন পৌঁছে দেয়। এ খাবার ও অক্সিজেন টিস্যুর বৃদ্ধি ও ক্ষয় রোধের জন্যে অপরিহার্য। এছাড়া দেহের বিভিন্ন গ্রন্থি থেকে নিঃসরিত হরমোন রক্তের মাধ্যমে প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে পৌঁছে অঙ্গের কর্মক্ষমতা নিশ্চিত করে। রক্ত টিস্যুর বর্জ্যগুলো বের করে দেয়। কার্বন-ডাই-অক্সাইডকে ফুসফুসের মাধ্যমে দেহের বাইরে বের করে দেয়। দেহের পাশাপাশি দেহের বিভিন্ন অংশে রাসায়নিক পদার্থ ও পুষ্টি সরবরাহ করে। অন্যান্য তরল পদার্থগুলোর ভারসাম্য বজায় রাখতেও সহায়তা করে। রক্তের সাহায্যে দেহের তাপমাত্রা ঠিক থাকে। রোগাক্রান্ত দেহে জীবাণুর বিরুদ্ধে রক্তই প্রথম প্রতিরোধ গড়ে তোলে। দেহের অভ্যন্তরস্থ এসিড এবং ক্ষারের স্বাভাবিক মাত্রা বজায় রাখাও রক্তের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ।
চিকিৎসা পদ্ধতির উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন জটিল রোগের চিকিৎসা সেবা লাভের সুযোগ সৃষ্টির সুবাদে রক্তের বহুবিধ প্রয়োজন পরিলক্ষিত হয়। সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে প্রতিদিন শত শত রোগীর অপারেশন হচ্ছে। এতে প্রতিদিনই শত শত ব্যাগ রক্তের প্রয়োজন পড়ে। এছাড়া বিভিন্ন কারণে শরীরে রক্তাল্পতা দেখা দেয়। হঠাৎ কোন দুর্ঘটনার কারণে অধিক রক্ত প্রবাহিত হয়ে রক্তাল্পতা সৃষ্টি হলে রক্তের প্রয়োজন হয়। তৎক্ষণাৎ শরীরে রক্ত সরবরাহের মাধ্যমে জীবন রক্ষা করা অত্যাবশ্যক হয়ে পড়ে। তাছাড়া রক্তের ক্যান্সার, রক্তশূণ্যতা, হিমোফিলিয়া, ডেঙ্গুসহ রক্তের স্বল্পতাজনিত অন্যান্য রোগের চিকিৎসায় রোগীর দেহে রক্ত পরিসঞ্চালনের প্রয়োজন পড়ে। আবার অনেকক্ষণ অপারেশন চলার কারণে অতিরিক্ত রক্ত বাহিত হয়ে গেলেও রক্তের প্রয়োজন হয়। আবার কারও দেহে রক্ত সম্পূর্ণভাবে তৈরি হতে পারে না। থ্যালাসেমিয়ার রোগীরা কিছুদিন পর পর শরীরে রক্ত সঞ্চালনের মাধ্যমে বেঁচে থাকে। কারও দেহে যদিও রক্ত তৈরি হয় তা লোহিতকণিকার জন্য সময়ের আগেই নষ্ট হয়ে যায়। এতে ব্লাড ক্যান্সারের মত ভয়ঙ্কর অসুখ দেখা দেয়। ফলে এ অসুখের জন্য ঘন ঘণ রক্ত পরিবর্তন করতে হয়। তার জন্য প্রচুর রক্তের প্রয়োজন হয়। যথারীতি সপ্তাহে একবার শরীরে অবশ্যই রক্ত দিতে হয়।
রক্তদান দাতার স্বাস্থ্যের জন্যও বেশ উপকারী। রক্তদানের পর শরীরে অবস্থিত ‘বোন ম্যারো’ নতুন কণিকা তৈরির জন্য উদ্দীপ্ত হয়। রক্তদান করার দুই সপ্তাহের মধ্যেই নতুন রক্ত কণিকা জন্ম হয়ে এ ঘাটতি পূরণ করে। বছরে তিনবার রক্তদান রক্তদাতার লোহিত কণিকাগুলোকে প্রাণন্ত করে তোলে। রক্তদানের ফলে হৃদরোগ ও হার্ট এটাকের ঝুঁকি অনেকটাই কমে আসে। তাছাড়া মুমূর্ষু মানুষকে রক্তদান করে অপার মানসিক তৃপ্তি পাওয়া যায়।
রক্তদান ও পরিসঞ্চালনের ইতিহাসঃ সর্বপ্রথম ১৬১৬ সালে ইংরেজ চিকিৎসক ডা. উইলিয়াম হার্ভের গবেষণার মাধ্যমে মানুষ মানবদেহের অভ্যন্তরে রক্ত প্রবাহের বিষয়ে জানতে পারে। স্যার ক্রিস্টোফার রেন ১৬৫৭ সালে ডা. উইলিয়াম হার্ভে আবিষ্কৃত যন্ত্র ব্যবহার করে জন্তুর দেহে ইনজেকশনের মাধ্যমে তরল পদার্থ প্রবেশ করান। ডা. রিচার্ড লোয়ার ১৬৬৬ সনে সফলভাবে প্রথমবারের মতো একটি কুকুরের দেহ থেকে আরেকটি কুকুরের দেহে রক্ত সঞ্চালনের পরীক্ষা চালান। অবশ্য এর পরে পশুর দেহ থেকে মানবদেহে রক্ত পরিসঞ্চালন করতে গিয়ে চিকিৎসকদের হাতে প্রাণ হারান অনেক মানুষ। ফলে ১৬৭৮ সনে রক্ত পরিসঞ্চালনের ব্যাপারে পোপ নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেন। ডা. জেমস ব্লান্ডেল নামে একজন ইংরেজ ধাত্রীবিদ্যাবিশারদ ১৮১৮ সালে রক্ত পরিসঞ্চালনের জন্যে একটি যন্ত্র আবিষ্কার করেন, যা দিয়ে সফলভাবে একজন সুস্থ মানুষের দেহ থেকে আরেকজন মৃত্যুপথযাত্রী মানুষের দেহে রক্ত পরিসঞ্চালন করে তাকে বাঁচিয়ে তোলা হয়। তিনিই প্রথম মানুষের শরীরে কেবল আরেকজন মানুষের রক্তই দেয়া যাবে বলে নিশ্চিত করেন। ১৯০১ সনে ভিয়েনার ডা. কার্ল ল্যান্ডস্টেনার মানুষের রক্তের প্রধানত ৪টি গ্রুপ এ, ও, বি, এবং এবি. সনাক্ত করেন। ১৯১৪-১৯১৮ সনে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের এ সময়টায় যুদ্ধাহত হাজার হাজার মানুষকে বাঁচাতে অনেক রক্তের প্রয়োজন হয়েছিল। তখনই মানুষ রক্তদাতার শরীর থেকে বের করে সোডিয়াম সাইট্রেট মিশিয়ে জমাট বাঁধা থেকে রক্ষা করা এবং ফ্রিজে সংরক্ষণ করা আবিষ্কার করে। প্রথমবারের মতো ১৯১৬ সনে সফলভাবে সংরক্ষিত রক্তকে আরেকজনের দেহে প্রবেশ করান হয়। এই ধারণা থেকেই একজন আমেরিকান মেডিকেল গবেষক অসওয়াল্ড হোপ রবার্টসন ফ্রান্সে বিশ্বের প্রথম ব্লাড ব্যাংকের সূচনা করেন। তারপর ১৯২১ সনে লন্ডনের কিংস কলেজ হাসপাতালে বৃটিশ রেডক্রসের সদস্যরা সবাই একযোগে রক্ত দেয়ার মাধ্যমে বিশ্বের প্রথম স্বেচ্ছা রক্তদানের দৃষ্টান্ত সূচিত হয়। এর ফলশ্রুতিতে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের ন্যায় উপমহাদেশে স্বেচ্ছায় রক্তদান শুরু হয়। ইম্পিরিয়াল সেরোলজিস্টরা ১৯২৫ সনে কোনো ধরনের সংরক্ষণের ব্যবস্থা ছাড়া একজন রক্তদাতার দেহ থেকে একটি সিরিঞ্জের মাধ্যমে রক্ত করে রক্তগ্রহীতার দেহে পরিসঞ্চালনের ব্যবস্থা নিয়ে কলকাতার ট্রপিকেল মেডিসিন স্কুলে একটি রক্ত পরিসঞ্চালন কেন্দ্র শুরু করে। ১৯৩৯ সনে ভারতের রেডক্রস সোসাইটি একটি ব্লাড ব্যাংক কমিটি গঠন করে। এই কমিটি যন্ত্রপাতি দিয়ে রক্ত পরিসঞ্চালন কেন্দ্রটিকে সহায়তা করে এবং রক্তদাতাদের সংগঠিত করতে চেষ্টা করে।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

গত ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন