রোববার, ০১ আগস্ট ২০২১, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৮, ২১ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

ইসলামী বিশ্ব

পরমাণু সমঝোতা পুনরুজ্জীবনের চুক্তি হতে পারে ১৫ জুলাই

আজারবাইজানে তুর্কি সামরিক ঘাঁটির ওপর বিশেষ নজর রাখবে রাশিয়া

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ জুন, ২০২১, ১২:০২ এএম

রাশিয়া বলেছে, ইরানের পরমাণু সমঝোতা স্বাক্ষরের ৬ষ্ঠ বার্ষিকীতে আগামী ১৫ জুলাই এটি পুনরুজ্জীবনের চুক্তি হতে পারে। ভিয়েনায় পাশ্চাত্যের সঙ্গে ইরানের চলমান সংলাপে অংশগ্রহণকারী রুশ প্রতিনিধিদলের প্রধান মিখাইল উলিয়ানোভ শনিবার এক টুইটার বার্তায় এ আশা প্রকাশ করেছেন। মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের সাংবাদিক লরেন্স নরম্যান শনিবারই এক টুইটার বার্তায় লিখেছিলেন, “আগামী ১৫ জুলাইয়ের মধ্যে ভিয়েনা সংলাপ থেকে একটি চ‚ড়ান্ত ফলাফল বের করে আনার ব্যাপারে কি কেউ বাজি ধরতে পারবেন?” তার ওই টুইটার বার্তা প্রকাশের ঘণ্টা দুই পর উলিয়ানোভ নিজের অফিসিয়াল টুইটার পেজে দেয়া এক পোস্টে লিখেছেন, “পেশাগত কারণে আমি কোনো বাজি ধরতে পারি না। তবে এই ধারনাটি আমাকে আকৃষ্ট করেছে যে, ভিয়েনা সংলাপের চ‚ড়ান্ত চুক্তির জন্য ১৫ জুলাইকে একটি সম্ভাব্য ডেটলাইন ধরা যেতে পারে যে দিনটি হবে পরমাণু সমঝোতা সই করার ষষ্ঠ বার্ষিকী। ২০১৫ সালের ১৫ জুলাই ছয় জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে ইরানের পরমাণু সমঝোতা সই হয়েছিল যা ২০১৬ সালের শুরু থেকে কার্যকর করা হয়। তবে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ক্ষমতা হাতে পেয়ে ২০১৮ সালের মে মাসে অন্যায়ভাবে এই সমঝোতা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার ফলে চলমান অচলাবস্থা দেখা দেয়। সেই অচলাবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য ইরানের সঙ্গে পাশ্চাত্যের গত প্রায় তিন মাস ধরে ভিয়েনা সংলাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ পর্যন্ত ছয় দফা আলোচনা হলেও তা থেকে চূড়ান্ত চুক্তি হওয়ার মতো কোনো ফল এখনো আসেনি। তবে সব পক্ষ শিগগিরই চুক্তি হওয়ার ব্যাপারে আশা প্রকাশ করেছে। অপরদিকে, রাশিয়ান সীমান্তের কাছে ন্যাটো জোটভুক্ত দেশগুলোর সামরিক স্থাপনার ওপর বিশেষভাবে নজর রাখা হবে বলে মন্তব্য করেছেন রাশিয়ান সরকারের মুখপাত্র দিমিত্রি পেশকভ। শুক্রবার সাংবাদিকদের তিনি এ মন্তব্য করেন। রাশিয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দেশটির সীমান্তের কাছে ন্যাটো জোটভুক্ত দেশগুলোর সামরিক ঘাঁটি নির্মাণের ওপর বিশেষ নজর রাখা হচ্ছে বলে মন্তব্য করে দিমিত্রি পেশকভ মূলত তুরস্কের প্রতি ইঙ্গিত করেছেন। আজারবাইজানে তুরস্কের ঘাঁটি নির্মাণ করার জোর সম্ভাবনা থাকায় দিমিত্রি পেশকভ এ মন্তব্য করেছেন বলে একাধিক সংবাদ সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এর আগে শুক্রবারে আজারবাইজানে তুর্কি সামরিক ঘাঁটি নির্মাণের বিষয়ে রাশিয়ার পরররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভকে প্রশ্ন করা হয়। বিভিন্ন গণমাধ্যমের এমন প্রশ্নের উত্তরে ওই সময় সের্গেই ল্যাভরভ বলেন যে তিনি গুজবের ওপর ভিত্তি করে কোনো মন্তব্য করবেন না। এদিকে আগামী মঙ্গলবার থেকে রাশিয়া তুরস্কের সাথে তাদের বিমান যোগাযোগ আবারো চালু করে দিতে যাচ্ছে। এর ফলে তুরস্কে ব্যাপক হারে রাশিয়ান পর্যটকদের আনাগোনা শুরু হবে বলে রাশিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। তুরস্কে রাশিয়ান পর্যটকরা সব চেয়ে বেশি ভ্রমণ করে থাকেন। ২০১৯ সালে ৭০ লাখ রাশিয়ান পর্যটক তুরস্কে তাদের অবসর সময় কাটান। একক দেশ হিসেবে রাশিয়াই তুরস্কের সবচেয়ে বড় পর্যটক যোগানদাতা রাষ্ট্র। মহামারীর মধ্যে ২০২০ সালেও ২৭ লাখ রাশিয়ান তুরস্কে ভ্রমণ করতে যান। আরটি, ইরনা, আনাদোলু এজেন্সি।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন