বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

সারা বাংলার খবর

যানজটে নাকাল ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ অংশ

গোবিন্দগঞ্জ (গাইবান্ধা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৭ জুলাই, ২০২১, ৬:৩৩ পিএম

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের দেওয়া সর্বাত্মক লকডাউনের মেয়াদ শেষ হয়েছে গত বুধবার মধ্যরাতে। দীর্ঘ ১৪ দিনের সর্বাত্মক লকডাউনের পরে ও পবিত্র ঈদুল আযহার কারণে মানুষ গ্রামে ফিরতে শুরু করেছে। রংপুর বিভাগে সড়ক পথে প্রবেশের একমাত্র পথ ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ অংশে বাড়ি ফেরা মানুষের ঢল নেমেছে। নাড়ির টানে মানুষের এই ছুটে আসার চিত্র দেখে সব্যসাচী লেখক সৈয়দ শামসুল হকের বিখ্যাত নাটক “পায়ের আওয়াজ পাওয়া যায়” নাটকের “ মানুষ আসতে আছে বানের পানির লাহান” সংলাপটি আজ বাস্তব রুপ পেয়েছে।

গোবিন্দগঞ্জ উপজেলা রংপুর বিভাগের প্রবেশদ্বার। সড়ক পথ কিংবা মিটার গেজ রেলপথ হোক রংপুর বিভাগে প্রবেশ করতে হলে অবশ্যই গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার ভিতর দিয়েই যেতে হবে। বিকল্প কোন সড়ক পথ না থাকায় রংপুর বিভাগের মানুষদের ঢাকা সহ সারাদেশের সাথে যোগাযোগের একমাত্র পথ ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক। আর ঢাকা- রংপুর মহাসড়ক গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার বুক চিঁড়ে গেছে। রংপুর বিভাগ দেশের অন্যতম শ্রম শক্তি যোগান দাতা বিভাগ। অন্য সময়ে নিজ এলাকায় না আসলেও প্রতি বছরের ঈদুল আযহার সময় অবশ্যই তাঁরা ফিরে আসে নিজ এলাকায়। কিন্তু করোনার কারণে এবারের চিত্র অনেকটাই বদলে গেছে।

দেশে অতিমারি করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির কারণে টানা ১৪ দিন সর্বাত্মক লকডাউন ছিল। লকডাউন শেষ হওয়ার পর নিকটে চলে এসেছে ঈদুল আযহা। স্বাভাবিক সময়ে ঈদের ১০ থেকে ১৫ দিন আগে থেকেই উত্তর বঙ্গের লোকজন বাড়ি ফিরতে শুরু করতো। প্রথমে আসো ছাত্ররা, এরপর সন্তানদের নিয়ে গৃহিণীরা, সর্বশেষে আসতো চাকুরীজীবী ও শ্রমিক মেহনতি মানুষেরা। কিন্তু এবছর লকডাউনের কারণে আগে ভাগে তারা বাড়ি ফিরতে পারছিলো না। ঈদের সময় ঘনিয়ে আসায় গত বুধবার মধ্যরাতে লকডাউনে উঠে যাওয়ায় তাঁরা বাড়ি ফিরতে শুরু করে। বাস, ট্রাক, কাভ্যার্ড ভ্যান, মাইক্রোবাস, প্রাইভেট কার, হিউমান হলার, পিকআপ যে যেভাবে পাচ্ছে ছুটে আসছে নিজ এলাকায়। বৃহস্পতিবার ভোর থেকে ঢাকা, চট্টগ্রাম, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ সহ দেশের অন্যান্য অংশ থেকে মানুষ ছুটে আসছে। ঢাকা-রংপুর মহাসড়কের গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহর গাড়ির চাপে স্থবির হয়ে যায়। শহরের থানা মোড় চারমাথায় দেখা যায় ঝাঁকে ঝাঁকে দীর্ঘ মটর গাড়ির সারি। গাড়ির চাপে গোবিন্দগঞ্জ পৌর শহরে লেগেছে যায় যানজট। যানজটে স্থির হয়ে পড়ে গাড়ির চাকা।

পৌর শহরের রিক্সা চালক উপজেলার কুঞ্জু মালঞ্চার বাসিন্দা মামুন জানান, যেভাবে গাড়িতে করে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জ থেকে এতো মানুষ রংপুরে আসছে তাতে শহরে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যানজটের জন্য রিক্সা নিয়ে ১০ টাকার ভাড়া মাড়তে আধা ঘন্টা পর্যন্ত সময় লাগছে।

পৌর শহরের প্রধানপাড়ার বাসিন্দা শ্রমিক নেতা ময়নুল হক জানান, দীর্ঘদিন যাত্রীবাহী গাড়ি বন্ধ ছিল। খুলে দেওয়ায় সবধরণের ছোট বড় গাড়ি রাস্তায় বের হয়েছে। যাত্রীর চাহিদা থাকায় রাস্তায় গাড়ির প্রচুর চাপ সৃষ্টি হয়েছে।

গোবিন্দগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খায়রুল ইসলাম জানান, লকডাউন উঠে যাওয়ায় এবং ঈদের আর বাঁকি না থাকায় রাস্তায় গাড়ির খুব চাপ। প্রচুর যাত্রী আসছে। হাইওয়ে থানার পক্ষ থেকে যানজট নিরসন, সড়ক নিরাপত্তা এবং স্বাস্থ্য বিধিনিষেধ মানতে কাছ করা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন