মঙ্গলবার, ০৩ আগস্ট ২০২১, ১৯ শ্রাবণ ১৪২৮, ২৩ যিলহজ ১৪৪২ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

ক্ষমতায় গেলে আমরাই কূটনীতিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করব: তালেবান

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২২ জুলাই, ২০২১, ১০:১৪ এএম

আফগানিস্তানে মোতায়েন প্রতিটি বিদেশি সেনাকে দখলদার মনে করে তালেবান। কাজেই আমেরিকাকে কূটনীতিক ছাড়া বাকি সব সেনা ও বেসামরিক ব্যক্তিকে আফগানিস্তান থেকে প্রত্যাহার করে নিতে হবে। আর ক্ষমতায় গেলে তালেবানই পশ্চিমা কূটনীতিকদের নিরাপত্তা দেবে।

ইরানের ইংরেজি ভাষার নিউজ চ্যানেল প্রেসটিভিকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেছেন তালেবানের সিনিয়র নেতা মোল্লা খয়রুল্লাহ খয়েরখা। বুধবার প্রচারিত এ সাক্ষাৎকারে তিনি দাবি করেন, আমেরিকার সঙ্গে এ বিষয়ে তালেবানের আগেই সমঝোতা হয়েছে।

মোল্লা খয়েরখা ২০২০ সালে আমেরিকার সঙ্গে তালেবানের কথিত শান্তি আলোচক দলের সদস্য ছিলেন এবং সম্প্রতি ইরানের মধ্যস্থতায় আফগান সরকার ও তালেবানের মধ্যে তেহরানে যে বৈঠক হয় তাতেও অংশগ্রহণ করেন। তিনি প্রেসটিভিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, “তারা একথা মেনে নিয়েছে যে, কূটনীতিক ছাড়া সব মার্কিন নাগরিককে আফগানিস্তান ত্যাগ করতে হবে এবং একথাটি সুস্পষ্টভাবে [চুক্তিতে] লেখা রয়েছে।”

এই তালেবান নেতা বলেন, “সব ন্যাটো সেনাকে আফগানিস্তান ত্যাগ করতে হবে; এমনকি যেসব সেনাকে তাদের দূতাবাসগুলো রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত করা হয়েছে তাদেরকেও চলে যেতে হবে। কারণ, আমরা যদি আফগানিস্তানের সরকারের দায়িত্ব গ্রহণ করি তাহলে তাদের দূতাবাস ও কূটনীতিকদের নিরাপত্তা আমরাই নিশ্চিত করব।”

সাক্ষাৎকারের অন্য অংশে মোল্লা খয়েরখা বলেন, আমেরিকা ও তার ন্যাটো মিত্র দেশগুলো আফগানিস্তানে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠা করতে ব্যর্থ হয়েছে। তারা নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠার নামে এদেশে দেড় লাখ সেনা মোতায়েন করেছে কিন্তু নিরাপত্তা দিতে পারেনি।

তালেবানের এই সিনিয়র আলোচক বলেন, অতীতে ব্রিটিশ ও সোভিয়েত সেনারাও আফগানিস্তানে এসে টিকতে পারেনি এবং মার্কিন সরকার যদি আবার এদেশে আসতে চায় তবে তাকে গত ২০ বছরের পরিণতি ভোগ করতে হবে। কাজেই আফগানিস্তানে আমেরিকার প্রত্যাবর্তনে মার্কিন বা আফগান জনগণ কারোই লাভ হবে না।

সাক্ষাৎকারের আরেক জায়গায় মোল্লা খয়েরখা দাবি করেন, সামরিক আগ্রাসনের চেয়ে ‘আলোচনা’ ও ‘রাজনৈতিক সমাধানকে’ প্রাধান্য দেয় তালেবান। তিনি বলেন, “আমরা এমন একটি সমাধানের চেষ্টা করছি যাতে আফগান জনগণই তাদের সরকার নির্বাচিত করতে পারে। সেটা হতে পারে কাউন্সিলভিত্তিক বা অন্য কোনো প্রক্রিয়ায়। এই প্রক্রিয়া নিয়েই মূলত আলোচনা চলছে।”

তবে তিনি স্পষ্ট করে বলেন, সবকিছু যদি তালেবানের বিপক্ষে চলে যায় তাহলে তারা আলোচনার দরজা পুরোপুরি বন্ধ করে দেবেন।

মোল্লা খয়রুল্লাহ খয়েরখা বলেন, তালেবান নেতারা এখনো রাজধানী কাবুলসহ বড় শহরগুলো দখলের নির্দেশ দেননি। তারা বেসামরিক নাগরিকদের ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে চান। তিনি বলেন, সাবেক সোভিয়েত সমর্থিত সরকার যেমন আফগানিস্তানে টিকতে পারেনি; বর্তমান মার্কিন সমর্থিত সরকারও টিকতে পারবে না। এদেশের জনগণ একথা জানে এবং এ কারণেই বড় ধরনের সংঘর্ষ ছাড়াই একের পর এক জেলার পতন হচ্ছে বলে তিনি দাবি করেন।

সূত্র: পার্সটুডে

 

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (14)
M Milon Dewan ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:১৭ এএম says : 0
দেশ প্রেমের উদাহরণ হলো তালেবান, আমাদের দেশে ভিনদেশিদের পুজা চলে
Total Reply(0)
Osman Goni ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:২৫ এএম says : 0
আল্লাহর দুনিয়ায় আল্লাহর আইনই একমাত্র শান্তি
Total Reply(0)
Hafizur Rahman ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:২৭ এএম says : 0
সাধারন জনতার জানমাল রক্ষা করা সকল পক্ষের উচিৎ
Total Reply(0)
সুলাইমান বিন সিরাজ ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:২৮ এএম says : 0
আফগানিস্তান আবার তালেবানের কথায় চলবে।
Total Reply(0)
সফিক আহমেদ ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:৩০ এএম says : 0
তালিবান নীতি কৌশল ভালো
Total Reply(0)
গোলাম মোস্তফা ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:৩০ এএম says : 0
বিশ্বের সেরা মুজাহিদ তালেবানরা।
Total Reply(0)
সালাউদ্দিন ২২ জুলাই, ২০২১, ১১:৩০ এএম says : 0
এক লড়াকু জাতী , তালেবান, আফগানিস্তান
Total Reply(0)
humayuen Kabir ২২ জুলাই, ২০২১, ১:০১ পিএম says : 0
Allah is all mighty. Taliban Is better for Afghanistan.
Total Reply(0)
Abdul Awal ২২ জুলাই, ২০২১, ১২:২৩ পিএম says : 0
তালেবান হলো খাটি দেশপ্রেমিক
Total Reply(0)
Mohammed Siddiqui ২২ জুলাই, ২০২১, ১২:৩১ পিএম says : 0
Western main stream newspapers recently reported that Talibans are very popular in their country because of their fair judicial system and many other good qualities. Many Bengali newspapers said they are terrorist. So, does it mean that muktijuddas were terrorists?
Total Reply(0)
MOH MANIRUJJAMAN JAMADDER ২২ জুলাই, ২০২১, ১:৫০ পিএম says : 0
Pease peace peace Islam meaning peace, we need stablish the peace.
Total Reply(0)
jackali ২২ জুলাই, ২০২১, ১:২৩ পিএম says : 0
ও আল্লাহ আমাদের দেশে আল্লাহর শাসন কায়েম করে দাও তাহলে আমরা অত্যচারী শাসকদের কাছ থেকে রক্ষা পাবো এবং সুখে-শান্তিতে আমাদের পবিত্র জন্মভূমিতে বসবাস করতে পারবো .....এরা আমাদের পবিত্র জন্মভূমি টাকে জাহান্নাম তৈরি করে দিয়েছে
Total Reply(0)
Tariq Toufiq ২২ জুলাই, ২০২১, ২:৩৩ পিএম says : 0
Main stream Bangladesh media is against the spirit of Islam and Muslim, they always try to diminish and discourage any kind of Islamic and Muslim joy, achievement and progress in the world, they love western culture, even they love hindu culture, but when they see the Islamic and Muslim culture, they say those are backdated, medieval, terrorist, fundamentalist etc so many misleading language; in fact the play the role of a perfect "Munafiq".
Total Reply(0)
রুহুল আমীন যাক্কার ২২ জুলাই, ২০২১, ৫:৪১ পিএম says : 0
তালেবান চায়না তাদের দেশ সাম্রাজ্যবাদীরা শাসন করুক। আম্রিকা যদিও তালেবানকে জঙ্গি বলে আখ‍্যা দিয়েছিলো কিন্তু এটি ছিল তাদের আফগান হামলা জায়েয করার একটি প্রোপাগাণ্ডা। বাস্তবে তালেবান-আফগানদের দেশপ্রেম অতুলনীয়। আম্রিকি সাম্রাজ্যবাদিদের মুখ থেকে শুনে শুনে এ দেশেরও কিছু তথাকথিত বুদ্ধিজীবী তালেবান এবং আলেমদের জঙ্গি বলার অপপ্রয়াস চালাতে দেখা যায়। ইনশাআল্লাহ সত‍্য জয় একদিন না একদিন হবেই হবে। প্রকৃত দেশপ্রেমিক তালেবানদের দ্বারা অচিরেই আফগানিস্তানে আবার ইসলামের রাজ কায়েম হোক; আমরা এই মুনাজাত করি।
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন