শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১০ সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় সংবাদ

খালেদা জিয়ার জ্বর কমেছে

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৪ জুলাই, ২০২১, ১২:০০ এএম

করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণের পর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে গিয়েছিল বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার। একারণে জ্বরে ভুগছেন বিএনপি প্রধান। তবে গত বৃহস্পতিবার ও গতকাল শুক্রবার বেগম খালেদা জিয়ার জ্বর অনেকটাই কমে গেছে বলে জানা গেছে। বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেনের বরাত দিয়ে বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জ্বরের তাপমাত্রা কমেছে।

এর আগে বুধবার রাতে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যরা খালেদা জিয়ার বাসায় গিয়ে তার সঙ্গে ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। পরে সেখান থেকে বের হয়ে মির্জা ফখরুল বিএনপি চেয়ারপারসনের সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার কথা জানান। এ সময় তিনি বলেন, গত ১৯ জুলাই টিকা নেবার পর ম্যাডামের একটু জ্বর এসেছে। তবে করোনামুক্ত হয়ে তিনি মোটামুটি ভালো আছেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ম্যাডাম এমনিতেই কোভিডের পরে ভালো আছেন মোটামুটি। তিনি ভ্যাকসিন নিয়েছেন সেজন্য কিছুটা ট্যাম্পারেচার এসছে। এটা ভ্যাকসিনের জন্য এসছে। তবে আমরা যেটা বরাবরই বলে আসছি এবং ডাক্তার সাহেবদের যেটা পরামর্শ সেটা হলো তার উন্নত চিকিৎসা দরকার উন্নত সেন্টারে। এটা খুবই বেশি প্রয়োজন তার। দেশবাসীর জন্য খালেদা জিয়ার কোনো বার্তা আছে কিনা প্রশ্ন করা হলে মির্জা ফখরুল বলেন, দেশবাসীর কাছ থেকে তিনি দোয়া চেয়েছেন এবং ঈদের দিনে তিনি দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। করোনা থেকে যাতে দেশমুক্ত হতে পারে সেজন্য আল্লাহতালার কাছে তিনি দোয়া চেয়েছেন।

বুধবার রাত ৮টায় মহাসচিবের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটি সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান ও সেলিমা রহমান গুলশানের ‘ফিরোজা’য় প্রবেশ করেন। এক ঘন্টা সাক্ষাত শেষে বেেির্য় আসেন রাত ৯টা ১৫ মিনিটে। এই সাক্ষাতের সময়ে খালেদা জিয়ার চিকিৎসক অধ্যাপক এজেডএম জাহিদ হোসেনও ছিলেন।

দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু নিজ নিজ এলাকায় থাকায় এই সাক্ষাতে অনুপস্থিত ছিলেন। দীর্ঘ একবছর পর স্থায়ী কমিটির সদস্যদের এই সাক্ষাত হলো। সর্বশেষ সাক্ষাত হয় গত বছরের কোরবানীর ঈদের দিন। গত বছর দুই ঈদে খালেদা জিয়ার সাথে নেতাদের সাক্ষাত হলেও এবছরের রমজানের ঈদ তারা সাক্ষাত করতে পারেননি। ওই সময়ে করোনার পরবর্তি জটিলতা নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বসুন্ধরার এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন ৫৩ দিন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (1)
salman ২৪ জুলাই, ২০২১, ৪:৩১ এএম says : 0
Allah, ona'r Nek Hayet Bareye din....r Zalim der dhongsho kore din.....ameen
Total Reply(0)

এ সংক্রান্ত আরও খবর

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন