বুধবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৪ আশ্বিন ১৪২৮, ২১ সফর ১৪৪৩ হিজরী

আন্তর্জাতিক সংবাদ

চীনা কর্মীদের জন্য নতুন সুরক্ষা পরিকল্পনা পাকিস্তানের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ জুলাই, ২০২১, ৭:০৪ পিএম | আপডেট : ৭:০৫ পিএম, ২৬ জুলাই, ২০২১

চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডোর (সিপিইসি) তে কর্মরত চীনা নাগরিকদের সুরক্ষা ব্যবস্থার পাশাপাশি কোহিস্তানের দাসু জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিকটে সাম্প্রতিক সন্ত্রাসী হামলার পরে অন্যান্য প্রকল্পগুলো নিয়েও পর্যালোচনা করবে ইসলামাবাদ।

বেইজিং সফরকালে আন্তঃবাহিনী গোয়েন্দার (আইএসআই) মহাপরিচালক লেঃ জেনারেল ফয়েজ হামিদের সাথে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি দাসুর মতো ঘটনা প্রতিরোধে যে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে ও চীনা কর্মীদের নিরাপত্তায় নতুন ব্যবস্থা সম্পর্কে পর্যালোচনা করার বিষয়টি চীনা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। অফিসিয়াল সূত্রগুলি দ্য এক্সপ্রেস ট্রিবিউনকে জানিয়েছে যে, নতুন সুরক্ষা ব্যবস্থা এখন সিপিইসি প্রকল্পের অংশ। এটি নির্বিশেষে সমস্ত চীনা বিনিয়োগ এবং শ্রমিকদের রক্ষা করবে।

দাসু জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি সিপিইসি প্রকল্পের অংশ নয় এবং তাই সুরক্ষার ব্যবস্থাও এক রকম ছিল না। সিপিইসি প্রকল্প এবং সেখানে কাজ করা চীনা নাগরিকদের সম্পূর্ণ নিরাপত্তা দেয়ার জন্য পাকিস্তান একজন জেনারেলের নেতৃত্বে একটি বিশেষ সুরক্ষা বিভাগ গঠন করতে যাচ্ছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, দাসু ঘটনার পরে চীনা সংস্থা ও তাদের নাগরিকরা জড়িত সমস্ত প্রকল্পের জন্য একই ধরনের সুরক্ষা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। চীন ও পাকিস্তান উভয়ের প্রতি ‘বৈরী সংস্থা’ দ্বারা সিপিইসি এবং অন্যান্য চীনা বিনিয়োগের বিরুদ্ধে পরিচালিত সম্ভাব্য হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে সুরক্ষা ব্যবস্থা পর্যালোচনা করা হচ্ছে। সূত্র জানায়, কুরেশি চীনা কর্তৃপক্ষকে আশ্বাস দিয়েছেন যে, পাকিস্তান সিপিইসি এবং অন্যান্য প্রকল্পে কর্মরত তাদের নাগরিকদের ব্যাপক সুরক্ষা দেবে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কুরেশি এবং তার চীনা সমকক্ষ ওয়াং ইয়ের মধ্যে আলোচনার পরে একটি যৌথ বিবৃতি জারি করা হয়েছে যে, উভয় পক্ষই কোহিস্তান বাস হামলার পেছনে দোষীদের চিহ্নিত করে তাদের ‘অনুকরণীয় শাস্তি’ দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। তারা এ জাতীয় ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে ব্যবস্থা নেয়ার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘চলমান যৌথ তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের এবং তাদের নিন্দনীয় পরিকল্পনা উন্মোচন, দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান, চীনা প্রকল্পসমূহ, নাগরিক এবং সংস্থার ব্যাপক সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং এই জাতীয় ঘটনার পুনরাবৃত্তি রোধে উভয় পক্ষই দৃঢ় সংকল্প প্রকাশ করেছে।’

উল্লেখ্য, গত ১৪ ই জুলাই একটি সহিংস হামলার ঘটনায় নয় জন চীনা নাগরিকসহ কমপক্ষে ১৩ জন নিহত হয়েছিলেন যাকে প্রথমে দুর্ঘটনা বলে অভিহিত করা হয়েছিল কিন্তু যৌথ বিবৃতিতে পরিষ্কার হয়ে গেছে যে, সেটি একটি সন্ত্রাসী আক্রমণ ছিল। এই ঘটনা পাকিস্তানের চীনা বিনিয়োগের ভবিষ্যত নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করেছিল। তবে যৌথ বিবৃতিতে প্রস্তাব করা হয়েছে যে, ওই হামলার কারণে উভয়পক্ষের মধ্যে বিদ্যমান সম্পর্ক ক্ষতিগ্রস্থ হবে না। কারণ, পাকিস্তানি পক্ষ চীন নাগরিকদের ব্যাপক নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সূত্র : ট্রিবিউন।

 

Thank you for your decesion. Show Result
সর্বমোট মন্তব্য (0)

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন